পেকুয়ায় গুলি বর্ষন ও হামলায় আহত-৪ : আটক-২

hamla-injured-new.jpg

নাজিম উদ্দিন,পেকুয়া(১১ জানুয়ারী) ::  পেকুয়ায় দু’পক্ষের মধ্যে ব্যাপক সংঘর্ষ হয়েছে। এ সময় দু’পক্ষের মধ্যে অন্তত চার রাউন্ড গুলি বিনিময় হয়েছে। হামলায় উভয় পক্ষের চারজন গুরতর আহত হয়েছে। আহতদের স্থানীয়রা উদ্ধার করে পেকুয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে। পেকুয়া থানা পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। এ সময় পুলিশ দু’জনকে আটক করেছে।

আহতরা হলেন উপজেলার সদর ইউনিয়নের পশ্চিম গোঁয়াখালী এলাকার ডা.আফতাব উদ্দিনের ছেলে আমির আশরাফ রুবেল (৩৭), একই এলাকার মৃত. দলিলুর রহমানের ছেলে শফিউল আজম চৌধুরী (৫০), পারভেজ সাজ্জাদ চৌধুরী (৫০) ও আসিফ সাজ্জাত চৌধুরী (৪৭)। আহতদের মধ্যে পারভেজ সাজ্জাতের অবস্থা গুরুতর হওয়ায় ওইদিন তাকে চমেক হাসপাতালে ভর্তি করে।

আটককৃতরা হলেন মাতবরপাড়া এলাকার কামরুল সাজ্জাদ ও কমরুদ্দিন।

বুধবার সকাল ৮টার দিকে মগনামা ইউনিয়নের ধারিয়াখালী এলাকায় এ ঘটনাটি ঘটে। গুলি বিনিময় নিয়ে পরষ্পর বিরোধী বক্তব্য পাওয়া গেছে। এ ঘটনায় একপক্ষ অপরপক্ষকে দায়ী করছে। প্রত্যক্ষদর্শী ও স্থানীয় এলাকাবাসিরা জানিয়েছেন মগনামা ইউনিয়নের ধারিয়াখালী এলাকায় গোঁয়াখালী ফতেহ আলী মাতবর চৌধুরীর মালিকানাধীন বিপুল জমি রয়েছে।

প্রায় ২একর আয়তন একটি দিঘি নিয়ে ওয়ারিশ নুরুল আজিম চৌধুরী ও আমেরকিা প্রবাসি শফিউল আজম চৌধুরীর মধ্যে বিরাধ দেখা দেয়। দীর্ঘ যুগ ধরে নুরুল আজিম চৌধুরী দিঘিটি ভোগ করছিলেন। ঘটনার দিন শফিউল আজম চৌধুরী দখলের উদ্দেশ্যে ভাড়াটে লোকজনসহ শ্রমিক নিয়ে দিঘি খনন করতে যায়। এ সময় নুরুল আজিম চৌধুরীর ছেলে পারভেজ সাজ্জাত বাধা দেয়ার চেষ্টা করে।

এ সময় ভাড়াটে সন্ত্রাসীরা তাকে নির্দয় পিটিয়ে গুরুতর আহত করে। এ খবর ছড়িয়ে পড়লে শতশত লোকজন সেখানে জড়ো হয়। স্থানীয়রা জানায় ছত্রভঙ্গ করতে শফিউল আলম চৌধুরীর ভাড়াটে লোকজন কয়েক রাউন্ড ফাঁকা গুলি ছোঁড়ে। এ সময় দু’পক্ষের মধ্যে ব্যাপক সংঘর্ষ হয়।

 

 

আপনার মন্তব্য লিখুন...

Top
error: কপি করা নিষেধ!!