Home শীর্ষ সংবাদ রোহিঙ্গা ইস্যুতে বড় প্রতিশ্রুতির আশা বাংলাদেশের

রোহিঙ্গা ইস্যুতে বড় প্রতিশ্রুতির আশা বাংলাদেশের

66
SHARE

কক্সবাংলা ডটকম(৫ ফেব্রুয়ারী) :: চারদিনের রাষ্ট্রীয় সফরে ঢাকায় পৌঁছেছেন সুইস কনফেডারেশনের প্রেসিডেন্ট আলাঁ বেরসেত। কোনো সুইস প্রেসিডেন্টের এটাই বাংলাদেশে প্রথম আনুষ্ঠানিক সফর। সফরের দ্বিতীয় দিনে আজ দ্বিপক্ষীয় বৈঠক অনুষ্ঠিত হবে। বৈঠকে রোহিঙ্গা ইস্যুতে সুইজারল্যান্ডের কাছ থেকে কূটনৈতিক ও আর্থিকভাবে বড় প্রতিশ্রুতি আশা করছে ঢাকা।

কূটনৈতিক সূত্রগুলো জানিয়েছে, রোহিঙ্গা ইস্যুতে বাংলাদেশ সুইজারল্যান্ডের কাছ থেকে কূটনৈতিক ও আর্থিক দিক থেকে বড় কিছু প্রত্যাশা করছে।

দুই দেশের সম্পর্ককে আরো নিবিড়, অভিন্ন আন্তর্জাতিক ও আঞ্চলিক ফোরামগুলোয় একে অন্যকে সহযোগিতা, বাণিজ্য, বিনিয়োগ, জলবায়ু পরিবর্তনসহ অভিন্ন ইস্যুতে আজ দুই দেশের বৈঠকটি অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে। বৈঠক শেষে একটি যৌথ বিবৃতিও প্রকাশ করা হবে।

৫ ফেব্রুয়ারী সকাল ৯টায় সুইজারল্যান্ড থেকে আসা বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের প্রধান নির্বাহীদের সঙ্গে বৈঠক দিয়ে দিনের কর্মসূচি শুরু করবেন প্রেসিডেন্ট আলাঁ বেরসেত। এরপর ১০টার দিকে তিনি জাতীয় স্মৃতিসৌধ ও সেখান থেকে ফিরে বঙ্গবন্ধু স্মৃতি জাদুঘরে শ্রদ্ধা নিবেদন করবেন।

এরপর দুপুর ১২টায় বাংলাদেশ-সুইজারল্যান্ড বিজনেস ফোরামের বৈঠকে ব্যবসায়ীদের সঙ্গে মতবিনিময় করবেন। বাংলাদেশে এই প্রথম কোনো সফরকারী রাষ্ট্রপ্রধানের নেতৃত্বে বিজনেস ফোরামের বৈঠক অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে। এরপর বেলা ৩টায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে বৈঠক করবেন সুইস প্রেসিডেন্ট। সন্ধ্যায় বঙ্গভবনে রাষ্ট্রপতি

মো. আবদুল হামিদের সঙ্গে সাক্ষাত্ করবেন তিনি।

সফরের তৃতীয় দিন আগামীকাল সকাল ৯টায় রোহিঙ্গাদের পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণে কক্সবাজার যাবেন সুইস প্রেসিডেন্ট। রোহিঙ্গা ক্যাম্প পরিদর্শন শেষে বিকালে ঢাকা ফিরবেন। এরপর সন্ধ্যায় সুইস রাষ্ট্রদূতের বাসায় সুশীল সমাজের প্রতিনিধি ও বাংলাদেশে থাকা সুইস নাগরিকদের সঙ্গে নৈশভোজে অংশ নেবেন।

সফরের শেষ দিন বুধবার সকালে ঢাকা আর্ট সামিট পরিদর্শনের কথা রয়েছে প্রেসিডেন্ট আলাঁ বেরসেতের। সেখান থেকে সরাসরি বিমানবন্দরে যাবেন তিনি।

সুইস দূতাবাস বলছে, বিদ্যমান দ্বিপক্ষীয় সম্পর্কের ওপর জোর দেয়ার পাশাপাশি উভয় দেশ অর্থনৈতিক, উন্নয়ন ও সাংস্কৃতিক সহযোগিতা আরো জোরদার করার বিষয়ে আলোচনা করবে। এছাড়া রোহিঙ্গা সংকটে বাংলাদেশের সঙ্গে সংহতি প্রকাশ এবং বহুপক্ষীয় অঙ্গনে সহযোগিতার বিষয়গুলো আলোচনার কেন্দ্রবিন্দুতে থাকবে।

উন্নয়ন সহযোগিতায় সুইজারল্যান্ড ও বাংলাদেশের সম্পর্ক দীর্ঘদিনের। সুইস উন্নয়ন সহযোগিতার ক্ষেত্রে বাংলাদেশ অগ্রাধিকারপ্রাপ্ত দেশ। একই সময়ে দ্বিপক্ষীয় অর্থনৈতিক সম্পর্ক ক্রমেই বাড়ছে। ২০১০ সালের পর দুই দেশের মধ্যে বাণিজ্য বেড়ে দ্বিগুণ হয়েছে।

সুইজারল্যান্ড প্রেসিডেন্টের সফর নিয়ে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তা জানান, এরই মধ্যে রোহিঙ্গা সংকট সমাধানে বাংলাদেশকে দেয়া সহায়তা অব্যাহত রাখার আশ্বাস দিয়েছে সুইজারল্যান্ড। এ ইস্যুতে বিশ্বের বেশির ভাগ দেশই বাংলাদেশের সঙ্গে আছে। বাংলাদেশ চায় রোহিঙ্গাদের প্রত্যাবাসন দ্রুত শুরু করতে।

সুইস প্রেসিডেন্টের সফরের মধ্য দিয়ে রোহিঙ্গা সংকট ছাড়াও দ্বিপক্ষীয় সহযোগিতা এবং অর্থনৈতিক সহযোগিতা জোরদার হবে।

SHARE