Home কক্সবাজার কক্সবাজারে আওয়ামী লীগের মিছিলে যাওয়ায় সৈনিকলীগ সভাপতিকে বেঁধে নির্যাতন

কক্সবাজারে আওয়ামী লীগের মিছিলে যাওয়ায় সৈনিকলীগ সভাপতিকে বেঁধে নির্যাতন

88
SHARE

শাহিদ মোস্তফা শাহিদ,সদর(৯ ফেব্রুয়ারী) :: সাবেক প্রধানমন্ত্রী বিএনপি চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে জিয়া অফারেন্স ট্রাস্টের টাকা দূর্ণীতি মামলার রায়কে কেন্দ্র করে কেউ যাতে নাশকতা মুলক কর্মকান্ড করতে না পারে সে বিষয়ে আওয়ামীলীগের কেন্দ্র ঘোষিত কর্মসুচির আলোকে রাজপথে অবস্থান ও মিছিলে যাওয়ার অপবাধে বঙ্গবন্ধু সৈনিক লীগের ইউনিয়ন সভাপতিকে বেঁধে রেখে নির্যাতনের অভিযোগ পাওয়া গেছে।

ঘটনাটি এলাকায় ব্যাপক চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে। বেঁধে রাখার ছবিটি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়লে সর্বত্রে নিন্দার ঝড় উঠে। জড়িতদের আটক করে আইনের আওতায় আনতে প্রশাসনের হস্থক্ষেপ কামনা করেন এলাকাবাসী ও দলীয় নেতাকর্মীরা।

৯ ফেব্রুয়ারী দুপুর ১ টার দিকে ঘটনাটি ঘটে কক্সবাজার সদরের চৌফলদন্ডী ইউনিয়নের নতুন মহাল হিন্দু পাড়স্থ মসজিদের সামনে।

নির্যাতনের শিকার একই এলাকার মৃত আবদু করিমের পুত্র ছৈয়দ নুর জানান, ঘটনার সময় মসজিদ থেকে জুমার নামাজ আদায় করে বাড়ি ফেরার পথে স্থানীয় নুরুল ইসলামের পুত্র কামরুল ইসলাম প্রকাশ রুবেলের নেতৃত্বে আরো কয়েকজন চিহ্নিত ব্যক্তি কোনকিছু বুঝে উঠার আগে আওয়ামীলীগের নামে গালিগালাজ করে টানা হেঁছড়া পূর্বক দোকানের খুঁটির সাথে রশি দিয়ে বেঁধে শারিরীক ভাবে নির্যাতন ও পকেটে থাকা নগদ ১০ হাজার টাকা ছিনিয়ে নেয়।

এমনকি ভবিষ্যতে আওয়ামীলীগ না করার হুমকিসহ কোথাও অভিযোগ করা হলে জানে মেরে ফেলারও হুঁশিয়ারী উচ্চারণ করেন। পরে স্থানীয়রা এসে তাকে উদ্ধার করে প্রাথমিক চিকিৎসালয়ে পাঠায়।

এদিকে এলাকাবাসীর সাথে কথা বলে জানা যায়, অভিযুক্ত রুবেলের সাথে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেইসবুকে অপ প্রচার চালায় সৌদি আরবে অবস্থানরত ছৈয়দ নুরের পুত্র হারুনর রশিদ। স্থানীয়দের ধারণা, তাকে না পেয়ে তার বৃদ্ধ বাবার উপর এমন ঘটনা ঘটিয়েছে।

স্থানীয় এমইউপি ও প্যানেল চেয়ারম্যান ফরিদুল আলম বেঁধে রেখে নির্যাতনের বিষয়টি অত্যন্ত অমানবিক ও ন্যাক্কারজনক বলে দোষীদের শাস্তি দাবী করেন। ঈদগাঁও পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের ইনচার্জ মিনহাজ মাহমুদ ভুঁইয়া জড়িতদের আটক পূর্বক আইনের আওতায় আনা হবে বলে জানান।

জানা গেছে নির্যাতিত ছৈয়দনুর বঙ্গবন্ধু সৈনিক লীগ চৌফলদন্ডী ইউনিয়ন শাখার সভাপতি এবং আওয়ামীলীগ পাগল একজন কর্মী। রাজনীতি করতে গিয়ে অনেকবার গুলিবিদ্ধ হয়েছিল বলে জানান তার রাজনৈতিক সহযোদ্ধারা।

কক্সবাজার সদর উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক মাহমুদুল করিম মাদু এ ঘটনার তীব্র নিন্দা জানিয়ে জড়িতদের আটক করতে প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করেন।

SHARE