Home কক্সবাজার কক্সবাজারে শরনার্থী ক্যাম্প পরিদর্শনকালে ব্রিটিশ পররাষ্ট্রমন্ত্রী : রোহিঙ্গা ইস্যূতে শেখ হাসিনার প্রশংসা

কক্সবাজারে শরনার্থী ক্যাম্প পরিদর্শনকালে ব্রিটিশ পররাষ্ট্রমন্ত্রী : রোহিঙ্গা ইস্যূতে শেখ হাসিনার প্রশংসা

45
SHARE

শহিদুল ইসলাম,উখিয়া(১০ ফেব্রুয়ারি) :: মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যে জাতিগত সহিংসতার ঘটনায় রোহিঙ্গা পালিয়ে এসে বাংলাদেশে আশ্রয় নেয়া রোহিঙ্গাদের অবস্থা পর্যবেক্ষণ করেছেন ব্রিটিশ পররাষ্ট্র মন্ত্রী বরিস জনসন ।

শনিবার দুপুর দেড়টার কক্সবাজারের উখিয়ার কুতুপালং ট্রানজিট ক্যাম্প পরিদর্শনকালে দ্রুত রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনের ওপর গুরুত্বারোপ করে তিনি বলেন,প্রত্যাবাসন প্রক্রিয়ায় বিলম্ব হলে রোহিঙ্গা ইস্যুতে আরও জটিলতা সৃষ্টি হতে পারে।

তিনি আরো বলেন,রোহিঙ্গা সমস্যাকে ১৯৪৮ সালে ফিলিস্তিনে ঘটে যাওয়া অনুরুপ ছয় লাখ লোক বাস্তুচ্যুত হয়েছিল।রোহিঙ্গাদের জীবন বাচাঁতে তাদের পাশে দাঁড়ানো এবং মযার্দার সঙ্গে তাদেরকে দেশে ফিরিয়ে নিতে শেখ হাসিনার অবস্থানের প্রশংসা করেন ব্রিটিশ পররাষ্ট্র মন্ত্রী।

এছাড়া তিনি উখিয়ার বালুখালী-১ নং ক্যাম্পে অবস্থানরত আন্তর্জাতিক অভিবাসন সংস্থার পরিচালনাকারী হাসপাতালের বিভিন্ন কাযক্রম ঘুরে দেখেন।

এরপর তিনি বালুখালী-২ ময়নার ঘোনা ক্যাম্পে যান।।সেখানে তিনি ক্যাম্পে অবস্থানরত রোহিঙ্গাদের সঙ্গে কথা বলেন এবং তাদের কাছ থেকে মিয়ানমারের সেনাবাহিনীর নির্যাতনের নির্মম কাহিনী শুনেন।এসময় তিনি নির্যাতিত রোহিঙ্গাদের সান্তনা দিয়ে নারী-পূরুষ ও শিশুদের সাথে কিছু সময় অতিবাহিত করেন।

এসময় তার সাথে ছিলেন পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম,ব্রিটিশ হাইকমিশনার অ্যালিসন ব্লেইক,কুতুপালং শরনার্থী ক্যাম্পের ইনচার্জ রেজাউল করিম,উখিয়া সাকের্ল চাইলাউ মারমা,উখিয়া উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভুমি)একরামুল ছিদ্দিক।

বিকাল সাড়ে তিনটার দিকে ঢাকার উদ্দেশ্যে কক্সবাজার ক্যাম্প ত্যাগ করেন দুইদিনের সফরে বাংলাদেশে আসা ব্রিটিশ পররাষ্ট্র মন্ত্রী বরিস জনসন।

প্রসঙ্গত,২০১৭ সালের ২৫ আগস্টের পর থেকে মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যে জাতিগত সহিংসতার ঘটনায় সাড়ে ১০ লাখ রোহিঙ্গা পালিয়ে এসে বাংলাদেশে আশ্রয় নিয়েছে।আর এই রোহিঙ্গা সংকট নিয়ে জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদে যুক্তরাজ্য ও ফ্রান্স যৌথভাবে প্রস্তাব উত্থাপন করেছিল।

SHARE