Home খেলা দক্ষিণ আফ্রিকার মাটিতে ওয়াড’র পর টি-টোয়েন্টি সিরিজও জিতল টিম ইন্ডিয়া

দক্ষিণ আফ্রিকার মাটিতে ওয়াড’র পর টি-টোয়েন্টি সিরিজও জিতল টিম ইন্ডিয়া

106
SHARE
Cape Town : Indian cricketers celebrate a wicket during the third and final T20 cricket match between South Africa and India in Cape Town, South Africa, Saturday, Feb. 24, 2018. AP/PTI(AP2_25_2018_000003B)

কক্সবাংলা ডটকম(২৫ ফেব্রুয়ারী) :: নিউল্যান্ডসে রুদ্ধশ্বাস সিরিজ নির্ণায়ক ম্যাচে ৭ রানে জিতল ‘মেন ইন ব্লু’৷ দক্ষিণ আফ্রিকার মাটিতে ওয়াড সিরিজের পর টি-টোয়েন্টি সিরিজেও প্রোটিয়াদের বিধ্বস্ত করে জয় ছিনিয়ে নিল টিম ইন্ডিয়া৷

এর আগে সেঞ্চুরিয়নে ৫-১ এ ওয়ান ডে সিরিজ জিতে নিয়ে ইতিহাস লিখেছিলেন বিরাট বিগ্রেড এদিন কেপ টাউনে সেই ইতিহাসের এক নতুন অধ্যায় যোগ করলেন ‘হিট ম্যান’ রোহিত শর্মা৷ সিরিজের ফাইনাল ম্যাচটিতে শিখর ও রায়নার ব্যাটে ভর করে প্রোটিয়াদের সামনে ১৭৩ রানের লক্ষ্য রাখে ‘মেন ইন ব্লু’৷ শেষ ওভার পর্যন্ত টানটান ম্যাচে ৬ উইকেটে ১৬৫ রান তোলে প্রোটিয়ারা৷

শুধু ভারতের ছেলেরাই নয় দক্ষিণ আফ্রিকার মাটিতে ওয়াড ডে ও টি-টোয়েটি সিরিজ জিতে নিয়ে অনন্য নজির গড়েছেন ‘উইমেন ইন ব্লু’৷ কেপ টাউনে রোহিতদের ম্যাচ শুরুর আগেই হরমনপ্রিত কৌররা টি-টোয়েন্টি সিরিজ জিতে নিয়ে খুশির খবর দিয়েছিলেন৷ পরে ‘মেন ইন ব্লু’র জিত সেই খুশিকে দ্বিগুন করে৷

তৃতীয় ও শেষ টি-টোয়েন্টিতে টস জিতে ফিল্ডিং করতে নামে দক্ষিণ আফ্রিকা। কোহলির অনুপস্থিতিতে দলের নেতৃত্ব নিয়ে রোহিত শর্মা ব্যাট হাতে মাত্র ১১ রান করে আউট হন। ১৪ রানে প্রথম উইকেট হারানো ভারত ঘুরে দাঁড়ায় শিখর ধাওয়ান ও সুরেশ রায়নার ৬৫ রানের জুটিতে। ২৭ বলে ৫ চার ও ১ ছয়ে ৪৩ রান করেন রায়না।

ধাওয়ান রান আউট হলে হাফসেঞ্চুরি না হওয়ার আক্ষেপে পুড়তে হয় তাকে। ৪০ বলে ৪৭ রান করে দলকে ভালো একটা অবস্থানে রেখে যান। আর কেউ বলার মতো ইনিংস না খেললেও ভারত সম্মানজনক স্কোর করে।

জয়ের লক্ষ্যে খেলতে নেমে দক্ষিণ আফ্রিকা ভারতীয় সিমারদের নিয়ন্ত্রিত বোলিংয়ে পেরে ওঠেননি। ভুবনেশ্বর কুমার, শারদুল ঠাকুর ও জশপ্রীত বুমরাহর বলে পাওয়ার প্লেতে ১ উইকেটে কেবল ২৫ রান তোলে স্বাগতিকরা।

প্রয়োজনীয় রান রেট না তোলার সঙ্গে উইকেট হারানোর আক্ষেপেও পুড়তে হয়েছে প্রোটিয়াদের। তবে মাঝামাঝি সময়ে অধিনায়ক জেপি দুমিনি ও ডেথ ওভারে ক্রিস্টিয়ান জঙ্কারের ব্যাটে ম্যাচে ফেরার ইঙ্গিত দেয় তারা।

৪১ বলে ২ চার ও ৩ ছয়ে ৫৫ রান করে আউট হন দুমিনি। এরপর জঙ্কারের ব্যাটে শেষ ওভারে রোমাঞ্চকর লড়াইয়ের আভাস দেয় ম্যাচটি। ওই ওভারে ১৯ রান দরকার ছিল স্বাগতিকদের। ফেরহান বেহারডিয়েনের সঙ্গে শেষ ওভারে কেবল ১১ রান তুলতে পেরেছেন তিনি স্কোরবোর্ডে।

শেষ বলে ৪৯ রান করে আউট হন অভিষিক্ত জঙ্কার। ২৪ বলে ৫ চার ও ২ ছয় ছিল তার ইনিংসে।

কেপ টাউনের ম্যাচটিতে ২৭ বলে ৪৪ রান করে প্লেয়ার অব দ্য ম্যাচ হয়েছেন সুরেশ রায়না৷ টি-টোয়েন্টি সিরিজে অনবদ্য বোলিংয়ের জন্য প্লেয়ার অব দ্য সিরিজ হয়েছেন ভুবনেশ্বর কুমার৷

SHARE