Home কক্সবাজার পেকুয়ায় গৃহবধূর রহস্যজনক মৃত্যূ

পেকুয়ায় গৃহবধূর রহস্যজনক মৃত্যূ

178
SHARE
নাজিম উদ্দিন,পেকুয়া(৮ মে) :: পেকুয়ায় এক গৃহবধূর রহস্যজনক মৃত্যূ হয়েছে। তবে গৃহবধূকে শারীরিক নির্যাতনের অভিযোগ উঠলেও পেকুয়া থানা পুলিশ ঝুলন্ত অবস্থায় ওই মহিলার মৃতদেহ উদ্ধার করেছে। সুরতহাল রিপোর্টসহ ময়না তদন্তের জন্য লাশ কক্সবাজার সদর হাসপাতাল মর্গে প্রেরন করে।৮ মে সকালে উপজেলার টইটং ইউনিয়নের ধনিয়াকাটা পূর্বপাড়ায় এ ঘটনা ঘটে। নিহত গৃহবধূর নাম জেয়াসমিন আক্তার(২৮)। তিনি ওই এলাকার প্রবাসী সেলিম উদ্দিন প্রকাশ খোকনের স্ত্রী।

পেকুয়া থানা পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে। তবে শাশুড়ী নমিলা খাতুন সটকে পড়ে।

স্থানীয় সুত্র জানায়, ওই দিন সকালে মালয়েশিয়া প্রবাসী সেলিম উদ্দিনের স্ত্রীর ঝুলন্ত লাশ দেখতে পান তার শাশুড়ী। গলায় রশি পেঁিচয়ে বসতবাড়ির ছালের তীরে ওই নারী আত্মহত্যা করে। প্রতিবেশীরা জানায়, ওই দিন ওই গৃহবধূর ৫ বছর বয়সী ছেলে শরীফ ও ৪ বছর বয়সী মেয়ে শরীফা আরবী পড়তে পাশর্^বর্তী মক্তবে যায়। মাদ্রাসা ছুটি শেষে তারা বাড়িতে ফিরছিলেন।

এ সময় মাকে ঘরের দরজা খুলতে চিৎকার করছিল। কিছুক্ষন দরজা না খুলায় দাদী নমিলা খাতুন পাশর্^বর্তী অপর বাড়ি থেকে ওই স্থানে যায়। এ সময় তারা যৌথভাবে শোরচিৎকার করে দরজা খুলতে প্রানপন চেষ্টা চালায়। এক পর্যায়ে দরজা ভেঙ্গে তারা বাড়ির ভিতর প্রবেশ করে। এ সময় ঝুলন্ত অবস্থায় জেয়াসমিন আক্তারের মরদেহ দেখতে পান।

জীবনআরা, মুতাহেরা, হাসান আলী, আবুল কাসেম সহ স্থানীয়রা জানায়, কি কারনে আত্মহত্যা করেছে সেটি নিশ্চিত হওয়া যায়নি। স্বামী মালয়েশিয়ায় থাকে। শাশুড়ী আলাদা। তবে টাকা পাঠায় শাশুড়ীর কাছে। এ নিয়ে স্বামীর সাথে কলহ ছিল।

মুঠোফোনে অনেকবার বাড়াবাড়ি হয়েছে। গলায় ফাঁস লাগানো অবস্থায় উদ্ধার করা হয়েছে। ভিতরে হুক লাগানো ছিল।

পেকুয়া থানার এস,আই বিপুল চন্দ্র রায় জানায়, প্রাথমিকভাবে গলায় ফাঁস লাগানো অবস্থায় উদ্ধার করা হয়েছে। সঠিক কারন নির্নয়ে লাশ মর্গে পাঠানো হয়েছে।

SHARE