Home প্রযুক্তি ফোল্ডেবল স্মার্টফোনের যুগ ফিরে আসছে

ফোল্ডেবল স্মার্টফোনের যুগ ফিরে আসছে

142
SHARE

কক্সবাংলা ডটকম(২০ মে) :: বৈশ্বিক হ্যান্ডসেট বাজার বড় ধরনের উত্থান-পতনের মধ্য দিয়ে যাচ্ছে। এখন স্মার্টফোন ডিভাইসের রমরমা ব্যবসায় অনেকটাই ভাটা পড়েছে। এর জন্য মোবাইল ডিভাইস কেন্দ্রিক উদ্ভাবন ঘাটতিকে দায়ী করা হচ্ছে। হ্যান্ডসেট ডিভাইস বাজারকে আগের অবস্থায় ফেরাতে ফোল্ডেবল স্মার্টফোনকে বিশেষ গুরুত্ব দিচ্ছে নির্মাতা প্রতিষ্ঠানগুলো।

টিথ্রি এক প্রতিবেদনে জানিয়েছে, ফোল্ডেবল স্মার্টফোনের যুগ আসছে। ডিভাইস নির্মাতারা ফোল্ডিং স্মার্টফোন নিয়ে আঁটসাঁট বেঁধে নেমেছে। এ ধরনের স্মার্টফোন আনতে পেটেন্ট আবেদনও বেড়েছে।

বহুজাতিক প্রযুক্তি কোম্পানি অ্যাপল, স্যামসাং, হুয়াওয়ে, এলজি, মটোরোলা এবং অন্যরাও ফোল্ডিং স্মার্টফোন বাজারে যথাসম্ভব দৃঢ় এবং উদ্ভাবনী অবস্থান নিশ্চিতে জোর দিচ্ছে। আগামী বছরের মধ্যে অন্তত পাঁচটি ডিভাইস নির্মাতার ফোল্ডেবল হার্ডওয়্যার সংবলিত স্মার্টফোনের প্রত্যাশা করা হচ্ছে।

স্যামসাং গ্যালাক্সি এক্স:

দক্ষিণ কোরিয়াভিত্তিক স্যামসাং ফোল্ডেবল স্মার্টফোন আনতে চূড়ান্ত পর্যায়ে পৌঁছেছে। এরই মধ্যে প্রতিষ্ঠানটির ফোল্ডেবল স্মার্টফোনের একটি অফিশিয়াল টিজার প্রকাশ পেয়েছে। আগামী বছরই এ ডিভাইস উন্মোচন করা হবে। বৈশ্বিক স্মার্টফোন বাজারে আসন্ন গ্যালাক্সি এক্স ফোল্ডেবল হ্যান্ডসেটটি ব্যাপক সাড়া ফেলবে বলে মনে করা হচ্ছে।

টিথ্রির তথ্যমতে, গ্যালাক্সি এক্সে দুটি নয়, তিনটি ডিসপ্লে থাকবে। এর সুবাদে ডিভাইসটি স্মার্টফোনের পাশাপাশি ট্যাবলেট ডিভাইস হিসেবেও ব্যবহার করা যাবে। এর সম্মুখে ৩ দশমিক ৫ ইঞ্চির দুটি স্ক্রিন থাকবে, যা আনফোল্ড করে ৭ ইঞ্চি ট্যাবলেট ডিভাইস হিসেবে ব্যবহার করার সুবিধা মিলবে।

ডিভাইসটির ব্যাক প্যানেলে ৩ দশমিক ৫ ইঞ্চির তৃতীয় ডিসপ্লে থাকবে, ভাঁজ করা অবস্থায়ও এ স্ক্রিনে ডিভাইস অ্যাক্টিভিটি দেখা যাবে। অর্থাৎ স্যামসাংয়ের এ ডিভাইস জটিল বিভিন্ন কাজের জন্য ব্যবহার উপযোগী হবে।

২০১৯ সালের ফেব্রুয়ারিতে অনুষ্ঠিত হবে মোবাইল ওয়ার্ল্ড কংগ্রেস (এমডব্লিউসি)। গ্যালাক্সি এক্স একই মাসে কিংবা গ্যালাক্সি এস১০ স্মার্টফোনের সঙ্গে উন্মোচন করা হতে পারে।

মটোরোলা রেজার:

টিথ্রির প্রতিবেদন অনুযায়ী বর্তমানে ফোল্ডেবল ফোন আনতে কাজ করছে মটোরোলা। চীনভিত্তিক লেনোভো অধিকৃত এ ডিভাইস নির্মাতার ফোল্ডেবল স্মার্টফোন আইকনিক মটোরোলা রেজার ব্র্যান্ডিংয়ে বাজারে ছাড়া হবে। ২০১৭ সালের ফেব্রুয়ারিতে লেনোভোর প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও) ইয়াং ইউয়ানকিং এ ডিভাইসটির বিষয়ে ইঙ্গিত দিয়েছিলেন।

তিনি বলেন, নতুন প্রযুক্তি, বিশেষ করে ফোল্ডেবল স্ক্রিনের কারণে লেনোভোর নতুন স্মার্টফোনে বেশকিছু নতুন উদ্ভাবন দেখতে পারবেন গ্রাহকরা। ভোক্তা চাহিদার আলোকে প্রথম ফোল্ডেবল স্মার্টফোন উন্মোচনে জোর দেয়া হচ্ছে।

ইয়াং ইউয়ানকিংয়ের ঘোষণার পরই মটোরোলা দুই স্ক্রিনের ফোল্ডেবল ফোনের পেটেন্ট আবেদন করে, যা ফ্লিপড আউট করে ট্যাবলেট ডিভাইস হিসেবে ব্যবহার করার সুবিধা মিলবে। ডিভাইসটিতে দুটি ক্যামেরা সেন্সর থাকবে। ডিভাইসটির নকশায় কিছুটা ফ্লিপ ফোনের ছোঁয়া মিলবে।

এলজি ফোল্ডিং স্মার্টফোন:

বর্তমানে স্মার্টফোনের ফোল্ডেবল ডিসপ্লে উন্নয়নে নেতৃত্ব দিচ্ছে দক্ষিণ কোরিয়াভিত্তিক এলজি। এলজি শুধু এ ধরনের স্মার্টফোনের ডিসপ্লে উন্নয়নেই জোর দিচ্ছে না। একই সঙ্গে প্রতিষ্ঠানটি এলজি ব্র্যান্ডের ফোল্ডিং স্মার্টফোন আনতেও কাজ করছে। এছাড়া এলজি ডিসপ্লের স্ক্রিন হুয়াওয়ের মতো অন্য ব্র্যান্ডগুলোর ফোল্ডেবল স্মার্টফোনেও ব্যবহূত হবে।

চলতি বছরের জানুয়ারিতে একটি নমনীয় ডিসপ্লের ফোল্ডেবল স্মার্টফোনের পেটেন্ট আবেদন করেছে এলজি, যা মাঝ বরাবর ভাঁজ করা যাবে। এলজির ফোল্ডেবল স্মার্টফোন দুই ধরনের নকশায় বাজারজাত করা হবে।

এলজির ফোল্ডেবল স্মার্টফোনের প্রথমটির ব্যাকপ্লেটে ক্যামেরা সিস্টেম থাকবে। ডিভাইসটি ফোল্ড করা অবস্থায় এর ফ্রন্ট ডিসপ্লেতে সময় ও তারিখের মতো তথ্য প্রদর্শিত হবে। এছাড়া দ্বিতীয় ডিসপ্লেতে বিভিন্ন তথ্যের পাশাপাশি নোটিফিকেশন দেখানো হবে।

ফোল্ডেবল আইফোন:

বৈশ্বিক স্মার্টফোন বাজারের শীর্ষ দুই কোম্পানি স্যামসাং ও অ্যাপল। স্যামসাং এরই মধ্যে ফোল্ডেবল ডিভাইসের অফিশিয়াল টিজার প্রকাশ করেছে। ফোল্ডেবল ডিভাইস নিয়ে কাজ করছে মার্কিন প্রযুক্তি কোম্পানি অ্যাপলও। এ থেকে মনে করা হচ্ছে ফোল্ডেবল মোবাইল হার্ডওয়্যার শিগগিরই বাস্তবে দেখা যাবে।

২০১৭ সালের নভেম্বরে নমনীয় ডিসপ্লের একটি ইলেকট্রনিকস ডিভাইসের পেটেন্ট আবেদন করেছে অ্যাপল। তবে এখন পর্যন্ত এ ডিভাইসটির কোনো ছবি পাওয়া যায়নি। অ্যাপল বরাবরই নতুন পণ্য উন্নয়নে কঠোর গোপনীয়তা বজায় রাখে। ফোল্ডেবল আইফোনের ক্ষেত্রেও এ ঐতিহ্য ধরে রেখেছে প্রতিষ্ঠানটি। এমনকি, পেটেন্ট আবেদনেও ডিভাইসটির কোনো ডিজাইন রাখেনি প্রতিষ্ঠানটি।

হুয়াওয়ে ফোল্ডিং ফোন:

চীনভিত্তিক হুয়াওয়ে বৈশ্বিক স্মার্টফোন বাজারে ভালো সময় পার করছে। হুয়াওয়ের সিইও রিচার্ড ইয়ু গত অক্টোবরে ফ্লেক্সিবল স্মার্টফোন নিয়ে কাজ করার কথা জানিয়েছেন। সর্বশেষ গত মার্চে হুয়াওয়ের ফোল্ডেবল স্মার্টফোনের পেটেন্ট ডায়াগ্রাম প্রকাশ হয়।

হুয়াওয়ের ফোল্ডেবল স্মার্টফোনের নকশা অনেকটা বইয়ের মতো, যা ফোল্ড খুলে বৃহৎ আকৃতির ট্যাবলেট ডিভাইস হিসেবে ব্যবহারের সুবিধা মিলবে। সারফেস বুক-২-এর মতো কবজা দ্বারা এর স্ক্রিন যুক্ত থাকবে।

টিথ্রির তথ্যমতে, কয়েকটি পেটেন্ট কাঠামো দেখে মনে করা হচ্ছে ফোল্ডেবল স্মার্টফোন উন্নয়নে হিনজ বা কবজা ডিজাইন সবচেয়ে বেশি গুরুত্ব পাবে। ডিভাইসগুলো গেম চেঞ্জার হবে। কারণ ফোল্ডেবল ডিভাইসে স্মার্টফোন ও ট্যাবলেটের সব সুবিধাই মিলবে।

 টিথ্রি অবলম্বনে

SHARE