Home কক্সবাজার চকরিয়ায় দশদিনে ৩১ জন মাদক বিক্রেতা গ্রেপ্তার : ১৫জনের কারাদন্ড

চকরিয়ায় দশদিনে ৩১ জন মাদক বিক্রেতা গ্রেপ্তার : ১৫জনের কারাদন্ড

162
SHARE

এম.জিয়াবুল হক,চকরিয়া(২৪ মে) :: প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কঠোর নির্দেশনার অংশহিসেবে কক্সবাজার জেলা পুলিশ সুপার ড.একেএম ইকবাল হোসেন এর নির্দেশে চকরিয়া উপজেলার ১৮টি ইউনিয়ন ও একটি পৌরসভা এলাকায় এবার মাদক নির্মুলে শুদ্ধি অভিযানে নেমেছে চকরিয়া থানা পুলিশ।

থানার ওসি বখতিয়ার চৌধুরীর নেতৃত্বে পুলিশের অন্তত আটটি পৃথকদল ১৫ মে রাত থেকে বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা পর্যন্ত টানা দশদিনে উপজেলার বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালিয়ে অন্তত ৩১জন পেশাদার মাদক ব্যবসায়ীকে গ্রেফতার করেছে।

থানা পুলিশ জানিয়েছে, গ্রেফতারকৃতদের বিরুদ্ধে ইতোমধ্যে চকরিয়া থানায় রুজু করা হয়েছে ১৬টি মামলা। অপরদিকে গ্রেফতারকৃতদের মধ্যে ১৫জনকে উপজেলা ভ্রাম্যমান আদালতের ম্যাজিষ্ট্রেট ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা নুরউদ্দিন মুহাম্মদ শিবলী নোমান এবং নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট সহকারি কমিশনার (ভুমি) খোন্দকার ইফতেখার উদ্দিন আরাফাত বিভিন্ন মেয়াদে বিনাশ্রম কারাদন্ডের আদেশ দিয়ে জেলহাজতে পাঠিয়েছে।

মাদক নির্মুলে শুরু হওয়া অভিযানে সিনিয়র সহকারি পুলিশ সুপার (চকরিয়া সার্কেল) কাজী মতিউল ইসলাম ও চকরিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো.বখতিয়ার উদ্দিন চৌধুরীর নেতৃত্বে পুলিশের আটটি টিমে রয়েছেন থানার ওসি (তদন্ত) মো ইয়াছির আরাফাত, এসআই আমিনুল ইসলাম, এসআই আবদুল খালেক, এসআই আলমগীর আলম, এসআই সুকান্ত চৌধুরী, এসআই অপু বড়–য়া, এসআই এনামুল হক, এসআই অরুণ কুমার চাকমা, এসআই জুয়েল চৌধুরী, এসআই রুহল আমিন ও এটি এসআই আবদুল হাকিম এবং এএসআই শাহাদাত হোসেন, এএসআই জুয়েল রায়, এএসআই পলাশ বডুয়া, এএসআই কামাল, এএসআই নুরে আলম, নারী পুলিশ কর্মকর্তা এএসআই মিটু রানী পাল সহ পুলিশের অন্তত শতাধিক সদস্য।

চকরিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো.বখতিয়ার উদ্দিন চৌধুরী বলেন, চকরিয়া উপজেলার ১৮টি ইউনিয়ন ও একটি পৌরসভার বিভিন্ন ওয়ার্ডে মাদকসহ সব ধরণের অপরাধ নির্মুলে পুলিশ কঠোরভাবে কাজ করে আসছেন। ফলে অন্য কোন অঞ্চলের তুলনায় চকরিয়া জনপদে মাদকের অবাধ বিকিকিনি নেই। তবে কিছু কিছু এলাকায় খুচরা পরিসরে মাদক বিক্রি করে আসছেন অপেক্ষাকৃত ছোট ছোট মাদক ব্যবসায়ীরা।

ওসি বলেন, সরকার প্রধানের কঠোর নির্দেশনার আলোকে জেলা পুলিশ সুপারের নির্দেশে চকরিয়া থানা পুলিশ উপজেলাকে মাদকমুক্ত করার সিদ্বান্ত নিয়েছে। সেই আলোকে ইতোমধ্যে চকরিয়া থানা পুলিশ মাদক নির্মুল অভিযান শুরু করেছে। গত দশদিনে উপজেলার বিভিন্ন অঞ্চল থেকে অন্তত ৩১জন মাদক বিক্রেতাকে গ্রেফতার করা হয়েছে। তাদের মধ্যে ১৫জনকে উপজেলা ভ্রাম্যমান আদালত বিভিন্ন মেয়াদে বিনাশ্রম কারাদন্ড দিয়ে ইতোমধ্যে জেলহাজতে পাঠিয়েছে।

চকরিয়া থানা পুলিশের তথ্যমতে জানা গেছে, ইতোমধ্যে পুলিশের অভিযানে চকরিয়া পৌরসভার চিরিংগা ভরামুহুরী হিন্দু পাড়া এলাকা থেকে দেশীয় চোলাই মদ ও মদ তৈরির সরঞ্জাম বিমল কর (৪০), পান্না কর (৩৫) ও কমল কর (৩৬) নামের তিনজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। তাদের বিরুদ্ধে থানার এসআই রুহুল আমিন বাদী হয়ে মামলা নং ৫৩/২৮২ দায়ের করা হয়েছে।

উপজেলার ড়ুলহাজারা রংমহলস্থ হাতি ফকির পাড়া এলাকায় অভিযান চালিয়ে খুচরা ইয়াবা বিক্রেতা মো.রুবেল (২১) গ্রেফতার করা হয়েছে। রুবেল ওই এলাকার বদিউল আলমের ছেলে। তার বিরুদ্ধে থানার এসআই আবদুল খালেক বাদী হয়ে মামলা নং ৫৫/২৮৪ দায়ের করেছেন। উপজেলার সুরাজপুর মানিকপুর ইউনিয়নের ৭নং ওয়ার্ড সুরাজপুর এলাকায় অভিযান চালিয়ে নুরুল আমিন প্রকাশ মনুর আলম (৪৮) এবং রামু ঈদগড় এলাকার মৃত সৈয়দ আহমদের ছেলে আবদুর রহিম (৩৫) কে গ্রেফতার করা হয়েছে। তাদের বিরুদ্ধে এসআই অপু বড়–য়া বাদী হয়ে থানায় মামলা নং ৬৬/২৯৫ দায়ের করেছেন। উপজেলার বদরখালী ইউনিয়নের বাজারপাড়া এলাকার মাদক বিক্রেতা হাসিনা বেগমকে (৩২) গ্রেফতার (৩২) ও তার স্বামী মোহাম্মদ কালু (৩৫) কে আসামি করে এসআই অরুন কুমার চাকমা বাদী হয়ে থানায় মামলা নং ৬৭/২৯৬ দায়ের করেছেন।

চকরিয়া পৌরসভার ৮নং ওয়ার্ডের মাস্টারপাড়া গ্রামের মৃত কামাল মেস্ত্রীর ছেলে ফরিদুল আলম (প্রকাশ ফরিদ) কে ইয়াবাসহ গ্রেফতার করে তার বিরুদ্ধে এসআই জুয়েল চৌধুরী বাদী হয়ে থানায় মামলা নং ৬৮/২৯৭ করেছেন। উপজেলার বিএমচর ইউনিয়নের ৮নং ওয়ার্ডের পূর্বপাহাড়িয়া পাড়া গ্রামের মৃত ছিদ্দিক আহমদের ছেলে শাহাব উদ্দিন (৫৫) কে মাদকসহ গ্রেফতার করে তার বিরুদ্ধে এসআই সুকান্ত চৌধুরী বাদী হয়ে মামলা নং ৭০/২৯৯ দায়ের করা হয়েছে। উপজেলার ডুলাহাজারা রংমহল এলাকা থেকে ফয়েজুর রহমানের ছেলে নুরুল আবছার (৩০) কে আটক করে তার বিরুদ্ধে এসআই এনামুল হক বাদী হয়ে থানায় মামলা নং ৭১/৩০০ দায়ের করা হয়েছে।

অপরদিকে পুলিশের অভিযানে চকরিয়াস্থ মহাসড়কে ইয়াবাসহ আবদুল্লাহ আল ফয়সাল (১৯) পিতা মো: শামীম হোসেন, সাং উপশহর সেক্টর-২, ইন্ডিয়ান হাইকমিশনার কার্যালয় উত্তরা ঢাকাকে গ্রেফতার করেন। তার বিরুদ্ধে এটিএসআই আবদুল হাকিম বাদী হয়ে থানায় মামলা নং ৬৯/২৯৮ দায়ের করেছেন। উপজেলার খুটাখালী গর্জনতলী এলাকা থেকে সুনা মিয়ার ছেলে মো: আবদুস শুক্কুরকে গ্রেফতার করে তার বিরুদ্ধে থানায় মাদকদ্রব্য আইনে মামলা করা হয়েছে। চকরিয়া হাইওয়ে মহাসড়কে অভিযান চালিয়ে পিরোজপুর জেলার রজব আলীর ছেলে আলী আজগর (১৯) কে গ্রেফতার করে তার বিরুদ্ধে থানায় মাদকদ্রব্য আইনে মামলা করা হয়েছে।

উপজেলার কাকারা ইউনিয়নের মাইজকাকারা গ্রামে অভিযান চালিয়ে মাদক ব্যবসায়ী জড়িত মৃত ছিদ্দিক আহমদের ছেলে মো: কাজল (৪৫) কে গ্রেফতার করে তার বিরুদ্ধে এসআই অপু বড়–য়া বাদি হয়ে মামলা নং ৬২/২৯১ দায়ের করেছেন। উপজেলার ফাসিয়াখালী ইউনিয়নের ৯নং ওয়ার্ড ছাইরাখালী গ্রামে জাতের আলমের ছেলে খুচরা ইয়াবা বিক্রেতা হাবিবুর রহমান (২৭) কে গ্রেফতার করে তার বিরুদ্ধে এসআই অপু বড়–য়া বাদী হয়ে মামলা নং ৫৭/২৮৬ দায়ের করেছে। চকরিয়া পৌরসভার সোসাইটি পাড়া গ্রামের মৃত মেহের আলীর ছেলে খুচরা ইয়াবা বিক্রেতা মো: খোকন (৪৭) কে গ্রেফতার করে তার বিরুদ্ধে থানায় মামলা নং ৪৯/২৭৮ দায়ের করা হয়েছে। পৌরসভা ১নং ওয়ার্ডের ঘনশ্যামবাজার এলাকার নজির আহমদের ছেলে আবুল কালাম (৪৮) কে মাদকসহ গ্রেফতার করে তার বিরুদ্ধে এসআই অপু বড়–য়া বাদী হয়ে মামলা নং ৫২/২৮১ দায়ের করেছেন।

কক্সবাজার-চট্টগ্রাম মহাসড়কে গাড়ী তল্লাসী চালিয়ে মো: আনোয়ার হোসেন (৪৫) পিতা মৃত মীর হোসেন সাং জগন্নাতপুর চৌদ্দগ্রাম কুমিল্লাকে গ্রেপ্তার করেন। তার বিরুদ্ধে এসআই মিজানুর রহমান বাদী হয়ে থানায় মামলা নং ৪৮/২৭৭ দায়ের করেন। উপজেলার ডুলাহাজারা ইউনিয়নের মালুমঘাট রিংভং দক্ষিণ পাহাড় এলাকায় অভিযান চালিয়ে আবদুল গফুরের ছেলে মো: জসিম (৩২) কে গ্রেফতার করে তার বিরুদ্ধে এসআই রুহুল আমিন বাদী হয়ে মামলা নং ৪৭/১৭৬ দায়ের করেছে। চকরিয়া পৌরসভার ৮নম্বর ওয়ার্ডের সোসাইটি পাড়ায় অভিযান চালিয়ে আবুল হোসেনের ছেলে মো: নুরুল হক কে মাদকসহ গ্রেফতার করে তার বিরুদ্ধে এসআই অপু বড়–য়া বাদী হয়ে থানায় মামলা নং ৪৬/২৭৫ দায়ের করা হয়েছে।

চকরিয়া থানার ওসি বখতিয়ার উদ্দিন চৌধুরী বলেন, পুলিশের অভিযানে গ্রেফতারকৃত এসব মাদক বিক্রেতাদের বিরুদ্ধে ১৯৯০ সনের মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রন আইনের সংশোধিত ২০০৪ এর ১৯ (১) টেবিল-৯ (ক) ধারা মোতাবেক অবৈধ মাদকদ্রব্য হেফাজতে রাখার অপরাধে মামলা গুলো রের্কড করা হয়েছে। ধারাবাহিক অভিযানের মাধ্যমে চকরিয়া উপজেলার প্রতিটি জনপদ থেকে মাদকের শিখর মুলোৎপাদনে বড় ধরণের পরিকল্পনা রয়েছে পুলিশের।

SHARE