Home কক্সবাজার টেকনাফে বন্দুকযুদ্ধে ওয়ার্ড কাউন্সিলর একরাম নিহত

টেকনাফে বন্দুকযুদ্ধে ওয়ার্ড কাউন্সিলর একরাম নিহত

282
SHARE

কক্সবাংলা রিপোর্ট(২৬ মে) :: কক্সবাজারের টেকনাফ থানার নোয়াখালীপাড়া এলাকায় র‌্যাব-৭ এর একটি দলের সঙ্গে মাদক ব্যবসায়ীদের বন্দুকযুদ্ধে যুবলীগের আহব্বায়ক তালিকাভুক্ত ‘ইয়াবা ব্যবসায়ী’ ও টেকনাফ পৌরসভার ৩নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর একরামুল হক(৪৬) নিহত হয়েছে।

শনিবার (২৬ মে) দিবাগত রাত সাড়ে ১২টার দিকে টেকনাফ উপজেলা সদর ইউনিয়নের নোয়াখালী পাড়া এলাকার মেরিন ড্রাইভ সড়কের পাশে এ ঘটনা ঘটে।। আর দেশব্যাপী চলমান মাদক ও ইয়াবা বিরোধী অভিযানে কক্সবাজার জেলায় ৬ জন বন্দুকযুদ্ধে নিহত হলেন।

কক্সবাজারস্থ র‌্যাব-৭ এর কোম্পানি কমান্ডার মেজর রুহুল আমিন জানান,শনিকার রাত সাড়ে ১২ টার দিকে টেকনাফের নোয়াখালীপাড়া এলাকায় মাদক ব্যবসায়ীদের সঙ্গে র‌্যাবের গুলিবিনিময় হয়।পরে সেখান থেকে তালিকাভুক্ত শীর্ষ মাদক ব্যবসায়ী ও টেকনাফের ওয়ার্ড কাউন্সিলর একরামুল হকের মরদেহ উদ্ধার হয়।

এ ব্যাপারে টেকনাফ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা রঞ্জিত কুমার বড়ুয়া জানান, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রণালয় ও মাদক দ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদফতরের তালিকাভুক্ত মাদক ব্যবসায়ী ও টেকনাফ পৌরসভার তিন নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর মো. একরামুল হক (৪৬) এর গুলিবিদ্ধ মরদেহ ছাড়াও ঘটনাস্থল থেকে ১০ হাজার ইয়াবা, একটি বিদেশি পিস্তল, একটি ওয়ান শুটার গান, ছয় রাউন্ড গুলি ও গুলির পাঁচটি খালি খোসা উদ্ধার করেছে র‌্যাব। নিহত একরামুল হকের বিরুদ্ধে থানায় মাদকসহ একাধিক মামলা রয়েছে।

প্রসঙ্গত, দেশব্যাপী চলমান মাদক ও ইয়াবা বিরোধী অভিযানে কক্সবাজার জেলার ৬ জনের মৃত্যূ হল।এদের মধ্যে গত শুক্রবার সকাল ৯টায় ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত হন এমপি বদির বেয়াই ও টেকনাফের কথিত ‘ইয়াবা ডন’ এবং ইউনিয়ন পরিষদ সদস্য আকতার কামাল (৪১)।জানা গেছে নিহত আকতার কামাল এমপি বদির বড় বোন শামসুন্নাহারের দেবর ও টেকনাফের সাবরাং ইউনিয়নের ২নং ওয়ার্ডের সদস্য এবং একই এলাকার মৃত নজির হোসেনের ছেলে।

এর আগে গত ২৪মে বৃহস্পতিবার সকালে কক্সবাজারে শহরের কলাতলী এলাকা থেকে ইয়াবা ও অস্ত্রসহ গুলিবিদ্ধ অবস্থায় মোহাম্মদ হাসান (৩৬) নামে এক মাদক ব্যবসায়ীর লাশ উদ্ধার করে পুলিশ।সে শহরের কলাতলী আদর্শগ্রাম এলাকার খুইল্ল্যা মিয়ার ছেলে। একইদিন মহেশখালীতে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ ইয়াবা ব্যবসায়ী মোস্তাক মিয়া (৩২)নামে আরও এক ইয়াবা ব্যবসায়ী নিহত হয়। নিহত মোস্তাক বড় মহেশখালী ইউনিয়নের মুন্সিরড়েইল গ্রামের আনোয়ার পাশার ছেলে।

এছাড়াও ২৫মে টেকনাফের দুই ইয়াবা ব্যবসায়ী হ্নীলা পশ্চিম সিকদারপাড়ার মৃত মৌলভী দীল মোহাম্মদের বড় ছেলে ইসমাঈল (৪৩) এবং মৃত মোহাম্মদ হোসেন মেম্বারের ছেলে ওসমান।(৩৭) নেত্রকোনায় পুলিশের সাথে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত হয়। তবে তারা নেত্রকোনায় কিভাবে গেল এবং কিভাবে মারা গেল এ ব্যাপারে পরিবার এবং পুলিশ কিছুই জানেনা। আর নিহতদের ব্যাপারে টেকনাফ থানার পক্ষ থেকে কোন তথ্য পাওয়া য়ায়নি।

SHARE