Home মহাকাশ পৃথিবীতে তিন জাতির এলিয়েনের প্রভাব আছে !

পৃথিবীতে তিন জাতির এলিয়েনের প্রভাব আছে !

113
SHARE

কক্সবাংলা ডটকম(৭ জুন) :: মহাকাশে পৃথিবী বাদে সত্যিই কি কোনো গ্রহে বুদ্ধিমান প্রাণী আছে? তারা কি আমাদের এই গ্রহে কখনও এসেছে?  মেক্সিকোর রজওয়েলে রহস্যজনক ঘটনার পর পেরিয়ে গেছে ৭১ বছর।

এরও বহু আগে থেকেই আকাশে অজানা যান দেখার দাবি করেছেন অনেকে। তবে ১৯৪৭ সালের ঘটনাটি ছিল সবচেয়ে বেশি আলোচিত। সে সময় স্থানীয় সংবাদমাধ্যম এমনকি মার্কিন কর্তৃপক্ষের তরফেও স্বীকার করা হয়েছিল ভিনগ্রহের যানের বিধ্বস্তের কথা।

বহু মানুষ পরে কৌতুহলী হয়ে রজওয়েলের ঘটনা সম্পর্কে তদন্ত চালিয়েছেন। অনেকে হতাশ হলেও কারও কারও ভাগ্যের শিকে ছিড়েছিল। দুর্ঘটনাস্থলের বেশ কিছু প্রত্যক্ষদর্শী পরবর্তীতে মুখ খুলেছিলেন। মৃত্যুর আগে তাদের কেউ কেউ বলে গিয়েছিলেন, শক্তিমান দেশটি চায় না বিষয়টি বিশ্ববাসী জেনে যাক।

তাদের দাবি ছিল, মার্কিন কর্তৃপক্ষের চাপের কারণেই সারা জীবন একটি সত্যকে তারা আড়াল করে গেছেন। অনেকেই হয়তো গেছেন, তবে কেউ কেউ ছিলেন ব্যতিক্রম।

তাদের কল্যাণেই পরবর্তীতে সিআইএ’সহ বিশ্বের অনেক গোয়েন্দা সংস্থাই ইউএফও এবং এলিয়েন প্রসঙ্গে মুখ খুলতে বাধ্য হয়। জানায়, দুনিয়ায় অনেক রহস্যই রয়েছে যার সমাধান জানে না কথিত এই উন্নত সভ্যতা।

এলিয়েন (alien) কিংবা ইউএফও (unidentified flying object) নিয়ে শক্তিমান দেশগুলোর আগ্রহেও যে কমতি নেই তা ক্রমেই প্রকাশ পাচ্ছে। বেরিয়ে আসছে ভিনগ্রহে বাসের উপযোগী গ্রহের সঙ্গে যোগাযোগে যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য, রাশিয়া, চীন, ভারতসহ ইউরোপের দেশগুলোর নানা গোপন পরিকল্পনার কথা।

শক্তিমান দেশগুলো এসব বিষয় গোপনীয়তার চাদরে ঢেকে রাখলেও এলিয়েন বিশ্বাসীদের কল্যাণে প্রায়ই তা প্রকাশ পেয়ে যায়। যেমন ১৯৯৫ সালের একটি ভিডিও ফাঁস হওয়ার পর আলোচনার জন্ম দিয়েছে।

এলিয়েন বিশ্বাসীদের বর্ণনায় উঠে এসেছে, নেভাডায় অবস্থিত মার্কিন বিমান বাহিনীর গোপন ঘাঁটি এরিয়া 51 থেকে ভিডিও এসেছে। সেখানে পরীক্ষায় থাকা একটি ধূসর বর্ণের এলিয়েনকে দেখা যায়। এলিয়েন বিশ্বাসীরা যাকে গ্রে এলিয়েন বলে থাকে।

বিশ্বাসীদের দাবি, যুগে যুগে পৃথিবীতে নানা জাত ও ধর্ম-বর্ণের এলিয়েনের আবির্ভাব ঘটেছে। এদের মধ্যে পৃথিবীতে তিন জাতির এলিয়েনের প্রভাব সবচেয়ে বেশি। ১. আনুনাকি ২. গ্রে বা গ্রেস এবং ৩. রেপটালিয়ান।

এলিয়েন বিশ্বাসীদের দাবি, যুক্তরাষ্ট্রের রজওয়েল শহরে যাদের নভোযান বিধ্বস্ত হয়েছিল তারা গ্রে জাতির। পরবর্তীতে মার্কিন সেনাবাহিনী বিধ্বস্ত যান থেকে হতাহত গ্রেস’দের নিয়ে পরীক্ষা চালায়। তারই কিছু ভিডিও ও ছবি পরবর্তীতে ফাঁস হয়ে যায়।

তবে সাম্প্রতিক ফাঁস হওয়া ভিডিও’টি সেই সময়ের কিনা তা পরিষ্কার নয়। তবে ভিডিও’তে পরিষ্কার বোঝা যাচ্ছিল, গবেষকদের পরীক্ষার মাঝে আহত এলিয়েনটি সেই সময় প্রচণ্ড শ্বাসকষ্টে ছিল।

ভিডিও

SHARE