Home মহাকাশ মহাকাশ কর্মসূচিতে ভারতের তহবিল সঙ্কট দূর হল

মহাকাশ কর্মসূচিতে ভারতের তহবিল সঙ্কট দূর হল

114
SHARE

কক্সবাংলা ডটকম(৯ জুন) :: ইন্ডিয়ান স্পেস রিসার্চ অর্গ্যানাইজেশন’ (ইসরো) জাতীয় গুরুত্বপূর্ণ প্রকল্পগুলোতে তহবিল সঙ্কট নিয়ে মারাত্মক উদ্বেগ প্রকাশ করার পর নরেন্দ্র মোদির নেতৃত্বাধীন সরকার মহাকাশ সংস্থাটিকে ১.৬ বিলিয়ন ডলার প্রদান করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

এর ফলে সংস্থাটি আগামী চার বছরে ৩০টি পোলার স্যাটেলাইট লাঞ্চ ভেহিক্যাল (পিএসএলভি) ও ১০টি জিওস্টেশনারি লঞ্চ ভেহিক্যাল (জিএসএলভি) মার্ক থ্রি রকেট নিক্ষেপ করতে সক্ষম হবে।

প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের উপমন্ত্রী জিতেন্দ্র সিং বলেন, তহবিল সংস্থানের ফলে অপেক্ষাকৃত ভারী উপগ্রহ উৎক্ষেপণের জন্য এখন আর বিদেশীদের মুখাপেক্ষী হয়ে থাকতে হবে না।

এই কর্মসূচির ফলে ইসরো কেবল অন্যান্য দেশের ছোট উপগ্রহই নয়, বরং চার টনের বেশি ওজনের বিদেশী উপগ্রহও উৎক্ষেপণ করতে পারবে।

সূত্র জানিয়েছে, ইসরো জিএসএলভি এমকে থ্রি প্রকল্পের উন্নয়ন ধাপ সমাপ্ত করেছে। এখন তারা ওই ধরনের উপগ্রহ কক্ষপথে উৎক্ষেপণ করতে প্রস্তুত। ২০১৮-১৯ সময়কালে ১০টি জিএসএলভি এমকে থ্রি ফ্লাইটের জন্য সংস্থাটি প্রস্তুতি নিতে পারবে।

তবে একটি সূত্র স্পুটনিককে জানায়, কর্মসূচিটির জন্য তহবিলের অতি প্রয়োজন ছিল। আধুনিক কর্মসূচি গ্রহণ করতে চলতি বছর ইসরোর প্রয়োজন প্রায় ১২০ মিলিয়ন ডলার।

ভূ-পর্যবেক্ষণ, দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা, নৌচলাচল ও মহাকাশ বিজ্ঞানের জন্য উপগ্রহ উৎক্ষেপণে ভারতের পিএসএলভি স্বয়ংসম্পূর্ণতা অর্জন করেছে।

মহাকাশ সংস্থাটি এক বিবৃতিতে জানিয়েছে, পিএসএলভি কন্টিনিউশেন প্রগ্রাম ধাপ ৬ বছরে আটটি উৎক্ষেপণের চাহিদা পূরণ করবে। সকল অপারেশনাল ফ্লাইট ২০১৯-২০২৪ মেয়াদে সম্পন্ন হবে।

পিএসএলভি কন্টিনিউশন কর্মসূচির শুরু হয়েছিল ২০০৮ সালে। ইতোমধ্যে চার ধাপের কর্মসূচি সমাপ্ত হয়েছে। পঞ্চম ধাপটি ২০১৯-২০ মেয়াদের দ্বিতীয় কোয়ার্টারে সমাপ্ত হবে। ষষ্ট ধাপটি এখনো অনুমোদিত হয়নি।

SHARE