Home স্বাস্থ্য ডায়াবেটিস কী আর এর লক্ষণগুলোই কী কী

ডায়াবেটিস কী আর এর লক্ষণগুলোই কী কী

120
SHARE

কক্সবাংলা ডটকম(১৫ জুলাই) :: আপনার চিকিৎসক যদি আপনাকে বলেন যে আপনার প্রি-ডায়াবেটিস রয়েছে, তাহলে নিরাশ হবেন না। প্রথমেই দরকার নিজের শারীরিক অবস্থা সম্পর্কে ভালোভাবে জানা এবং সে অনুযায়ী যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণ করা।

ব্যবস্থা নেওয়ার আগে জানতে হবে প্রি ডায়াবেটিস কী আর এর লক্ষণগুলোই বা কী কী?

প্রি-ডায়াবেটিস আসলে কি?

যখন কিছু না খেয়ে রক্ত পরীক্ষা করলেও রক্তে গ্লুকোজের মাত্রা স্বাভাবিকের চেয়ে বেশি কিন্তু ডায়াবেটিসের মাত্রার চেয়ে কম দেখায় তখন তাকে বলে প্রি-ডায়াবেটিস। অনেক ক্ষেত্রেই পরে দু ঘণ্টার একটি গ্লুকোজ টলারেন্স পরীক্ষা করা হয় নিশ্চিত হবার জন্য যে ডায়াবেটিসের লক্ষণ আসলেই আছে কিনা।

যদি এই পরীক্ষায় সাধারণত বেরিয়ে আসে যে, যাকে পরীক্ষা করা হয়েছে তার শরীরে গ্লুকোজের মাত্রা ঠিক রাখতে খুব সমস্যা হচ্ছে। তার মানে তিনি ভবিষ্যতে ডায়াবেটিস আক্রান্ত হবার ঝুঁকিতে আছেন। তবে সুখবর হলো, বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই জীবনযাত্রায় পরিবর্তন এনে এই ঝুঁকি এড়ানো সম্ভব।

প্রি-ডায়াবেটিসের লক্ষণ কি কি?

অনেক সময় এর কোনো লক্ষণই আগে থেকে দেখা যায় না। তবে টাইপ টু ডায়াবেটিসের লক্ষণগুলোর একটি হলো শরীরের কিছু কিছু অংশে ত্বকের রঙ গাঢ় হতে শুরু হওয়া, চিকিৎসা বিজ্ঞানের ভাষায় এর নাম একান্থোসিস নিগ্রিকান্স। এসব এলাকার মধ্যে আছে গলা, বগল, কনুই, হাঁটু, আঙ্গুলের গাঁট ইত্যাদি। তাই এসব এলাকার ত্বকের রঙে পরিবর্তন আসলে সাথে সাথেই চিকিৎসকের পরামশর্ নিন।

আর যদি আপনার রক্তে গ্লুকোজের মাত্রা বেশ কিছুদিন ধরেই বেশী থাকে এবং আপনার টাইপ টু ডায়াবেটিস হয়েছে এরকমটা মনে হয় তাহলে এই লক্ষণগুলো দেখা যাবে: তৃষ্ণা বেড়ে যাওয়া, বার বার প্রস্রাবের বেগ আসা, ক্লান্তি, চোখে ঝাপসা দেখা,

প্রি-ডায়াবেটিস থেকে টাইপ টু ডায়াবেটিসের দিকে যাবার সম্ভাবনা কতটুকু?

যাদের প্রি-ডায়াবেটিস আছে তাদের টাইপ টু ডায়াবেটিস হবার ঝুঁকি খুব বেশি থাকলেও সেটা একেবারে নিশ্চিত নয়। কারণ বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই এই ঝুঁকি কাটিয়ে ওঠা সম্ভব।

জেনে নিন টাইপ টু ডায়াবেটিস এড়াবেন কীভাবে-

-টাইপ টু ডায়াবেটিসের রোগীরা তাদের রোগ নিয়ন্ত্রণে রাখতে যেসব নিয়ম মেনে চলেন সেসব নিয়ম মানা, সে ধরনের খাওয়া দাওয়া করার মাধ্যমেই আসলে প্রি-ডায়াবেটিসের রোগীরা টাইপ টু ডায়াবেটিস এড়াতে পারেন।

-প্রি-ডায়াবেটিস থেকে টাইপ টু ডায়াবেটিস হবেই এমন কোনো কথা নেই। স্বাস্থ্যকর খাবার খাওয়া, ওজন নিয়ন্ত্রণে আনা, নিয়মিত ব্যায়ামের অভ্যাস গড়ে তোলা আর কর্মক্ষম থাকাই হলো ডায়াবেটিসের ঝুঁকি কমানোর মূলমন্ত্র।

-যাদের প্রি-ডায়াবেটিস এবং টাইপ টু ডায়াবেটিস আছে তারা যে অন্যদের মতো স্বাভাবিক খাবার খেতেই পারবে না, তা কিন্তু নয়। খাবারে পর্যাপ্ত স্বাস্থ্যকর শর্করা, তেল, আমিষ আছে এটা নিশ্চিত করাটাই মূল ব্যাপার। গ্লুকোজের মাত্রা কমিয়ে রাখার জন্য সঠিক ধরনের খাবার একসঙ্গে খাওয়াটাই কৌশল। একবারে অনেক না খেয়ে সারাদিনে একটু একটু করে খেতে হবে কয়েকবার।

প্রি-ডায়াবেটিস হলো আসলে দেহকে সুস্থ রাখার শেষ সতর্কতা বার্তা। স্বাস্থ্য সচেতন হয়ে খাবার আর ওজন নিয়ন্ত্রণে আনতে পারলেই রোগমুক্ত ভবিষ্যৎ নিশ্চিত করা যায়।

SHARE