Home আন্তর্জাতিক পাকিস্তানে জাতীয় নির্বাচন : সেনাবাহিনীর হস্তক্ষেপে জিতে যাচ্ছেন ইমরান !

পাকিস্তানে জাতীয় নির্বাচন : সেনাবাহিনীর হস্তক্ষেপে জিতে যাচ্ছেন ইমরান !

116
SHARE

কক্সবাংলা ডটকম(২৪ জুলাই) :: প্রার্থীদের সভা সমাবেশে জঙ্গি ও সন্ত্রাসী হামলা, গ্রেপ্তার আর সেনাবাহিনীর হস্তক্ষেপের অভিযোগের মধ্যে বুধবার অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে পাকিস্তানের সাধারণ নির্বাচন। দ্বিতীয়বারের মতো তত্ত্বাবধায়ক সরকারের অধীনে এই নির্বাচন হচ্ছে।

এই নির্বাচনকে ঘিরে পাকিস্তানের রাজনীতি এখন সহিংস ও উত্তপ্ত। সন্ত্রাসী হামলায় এরইমধ্যে প্রাণ হারিয়েছেন দুই প্রার্থীসহ শতাধিক। ভোটের আগেই কারাগারে পাঠানো হয়েছে সাবেক প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরীফ ও তার মেয়েকে। তারপরেও মূল প্রতিদ্বন্দ্বিতায় রয়েছে তার দল মুসলিম লীগ। ইমরান খানের তেহরিক-ই-ইনসাফের সঙ্গে লড়াই হবে মনে করছেন বিশ্লেষকরা।

বুধবার জাতীয় ও প্রাদেশিক পরিষদের ভোট হবে। ৩৪৭ আসন বিশিষ্ট পাকিস্তান জাতীয় পরিষদের ২৭২টিতে সরাসরি ভোট হবে। ৭০টি আসন রয়েছে সংরক্ষিত। এছাড়াও সিন্ধ, পাঞ্জাব, বেলুচিস্তান ও খাইবার পাকতুনখার প্রাদেশিক পরিষদ সদস্য নির্বাচনেও ভোট দেবেন দেশটির সাড়ে ১০ কোটি ভোটার। পাকিস্তানে সরকার গঠনের জন্য প্রয়োজন জাতীয় পরিষদের কমপক্ষে ১৩৭টি আসন।

নির্বাচনকে ঘিরে উত্তপ্ত দেশটির রাজনৈতিক পরিস্থিতি। প্রচারণার সময় জঙ্গি হামলায় দুইজন প্রার্থীসহ নিহত হয়েছে শতাধিক মানুষ। দুর্নীতি অভিযোগে সুপ্রিম কোর্ট অযোগ্য ঘোষণা করায় নির্বাচনে অংশ নিতে পারেননি তিনবারের প্রধানমন্ত্রী মুসলিম লীগ নেতা নওয়াজ শরীফ।

দুর্নীতির মামলায় ১০ বছরের দণ্ড নিয়ে কারাগারে রয়েছেন নওয়াজ ও তার মেয়ে। নির্বাচনে মুসলিম লীগের নেতৃত্ব দিচ্ছেন তার ছোট ভাই শাহবাজ শরীফ। পিএমএল এর অভিযোগ, সেনাবাহিনী অপ্রকাশ্যে তাদের দলের বিরুদ্ধে কাজ করছে।

বিশ্লেষকরা বলছেন, পিএমএল এর সাথে মূল লড়াই হবে সাবেক ক্রিকেটার ইমরান খানের তেহরিক-ই-ইনসাফ দলের। তিনি সেনাবহিনীর সমর্থন পাচ্ছেন বলে মনে করেন বিশ্লেষকরা। তবে তার সংখ্যাগরিষ্ঠতা পাওয়ার ক্ষেত্রে বাধা হতে পারে  সাবেক প্রধানমন্ত্রী বেনজীর ভূট্টোর ছেলে বিলাওয়াল ভুট্টোর নেতৃত্বে পাকিস্তান পিপলস পার্টি।

ইমরানকে প্রধানমন্ত্রী চাইছে সেনাবাহিনী?

এদিকে গুঞ্জন ছড়িয়েছে সাবেক প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরীফকে জেলে রেখে প্রধানমন্ত্রী হতে চলেছেন পাকিস্তান তেহরিক-ই-ইনসাফ প্রধান ও সাবেক ক্রিকেটার ইমরান খান। নির্বাচনের মাত্র একদিন আগে প্রকাশিত বেশ কয়েকটি জরিপেও ইমরান খানকেই দেশটির পরবর্তী প্রধানমন্ত্রী হিসেবে চিহ্নিত করা হচ্ছে।

সাবেক স্বৈরশাসক জেনারেল পারভেজ মুশারফ ক্ষমতা থেকে সরে গেছেন মাত্র ১০ বছর। এরইমধ্যে দুই মেয়াদের সরকার ক্ষমতায় ছিল। একবার পিপিপি ক্ষমতায় আসলেও পরবর্তীতে ক্ষমতায় আসে নওয়াজ নেতৃত্বাধীন মুসলীম লীগ। তারা ৫ বছর ক্ষমতায় থাকলেও প্রধানমন্ত্রী হিসেবে নওয়াজ মেয়াদপূর্ণ করতে পারেননি। এর আগে পিপিপি ক্ষমতায় থাকাকালেও তৎকালীন প্রধানমন্ত্রীও ৫ বছর মেয়াদপূর্ণ করতে পারেননি।

এদিকে নির্বাচনে নওয়াজ শরীফের দলকে কোণঠাসা করে রেখেছে দেশটির সেনাবাহিনী, এমন অভিযোগ দেশটির গণমাধ্যমসহ বেশ কয়েকটি গোষ্ঠীর। এরইমধ্যে ইমরান খানকে দেশটির পরবর্তী প্রধানমন্ত্রী হিসেবে বেছে নিতে নেপথ্যে কাজ করছে সেনা গোয়েন্দারা- এমন অভিযোগ এনে নওয়াজপন্থীরাও বলছেন, তারা আশা ছেড়ে দিচ্ছেন না।

নওয়াজ শরীফের দলের হাল ধরেছেন তারই ছোট ভাই শাহবাজ শরীফ। নওয়াজের কারাদণ্ড দেওয়ার ঘটনাকে রাজনৈতিক বিচার বলেও মন্তব্য করেন শাহবাজ। তবে নির্বাচনী মাঠ নওয়াজ শরীফের মতো গরম করতে পারছেন না শাহবাজ। নওয়াজ কন্যা মরিয়মও রয়েছেন জেলে। মাঠে আছেন কেবল শাহবাজ শরীফ ও মরিয়মপুত্র।

এরইমধ্যে দেশটিতে গুঞ্জন উঠেছে নির্বাচনী ম্যাকানিজমের মাধ্যম ইমরানকে জয়ী করানোর চেষ্টা করছে সেনাবাহিনী। শুধু তাই নয় নির্বাচনের ফলে দেশটিতে কোনো ধরণের সহিংসতা শুরু হলে, ক্ষমতা আবারও ক্যান্টনমেন্টে নিয়ে যেতে পারে সেনাবাহিনী। তরেব শেষ পর্যন্ত কি হচ্ছে দেশটিতে, তা বোঝা যাবে বুধবার সন্ধ্যার দিকে।

SHARE