Home অর্থনীতি ১১৫ কোটি টাকা পরিশোধ করছে না রিজেন্ট এয়ারওয়েজ

১১৫ কোটি টাকা পরিশোধ করছে না রিজেন্ট এয়ারওয়েজ

144
SHARE

কক্সবাংলা ডটকম(১১ সেপ্টেম্বর) :: দেনার দায়ে জর্জরিত হয়ে পড়ছে রিজেন্ট এয়ারওয়েজ। বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষ (বেবিচক) ও জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) বকেয়া পরিশোধ না করায় দেনার পরিমাণ বাড়ছে তাদের। আর্থিক সংকট কাটাতে নতুন বিনিয়োগ খুঁজছে এই আকাশযান প্রতিষ্ঠান।

সূত্র জানায়, বিভিন্ন চার্জ বাবদ ২০১৮ সালের জুলাই পর্যন্ত রিজেন্ট এয়ারওয়েজের কাছে ১১৫ কোটি ৫০ লাখ ৪০ হাজার ৯৮৪ দশমিক ৫৪ টাকা পাবে বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষ বেবিচক। বারবার তাগাদা দিলেও তা পরিশোধ করছে না রিজেন্ট এয়ারওয়েজ।

বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষ বেবিচকের একজন কর্মকর্তা বলেছেন, ‘বেবিচকের মাসিক সমন্বয় সভায় এয়ারলাইন্সগুলোর কাছ থেকে পাওয়া অর্থ আদায় নিয়ে আলোচনা হয়। বকেয়া আদায়ে প্রতি তিন মাস পর চিঠি দিতে বৈঠকে সিদ্ধান্ত হয়েছে। প্রয়োজনে আইনি পদক্ষেপ নেওয়া হবে।’

অন্যদিকে টিকিট বিক্রি করে যাত্রীদের কাছ থেকে নেওয়া ভ্যাটও পরিশোধ করেনি এই এয়ারলাইন্স। এই অঙ্ক ১৩ কোটি ৯৮ লাখ ৩৭ হাজার ৪০০ টাকা। রাজস্বের অর্থ পরিশোধ না করায় পরিশোধ না করায় গত জুনে প্রতিষ্ঠানটির ব্যাংক হিসাব জব্দ করেছিল ঢাকা উত্তর ভ্যাট কমিশনারেটের টঙ্গী ভ্যাট বিভাগ।

চট্টগ্রামের কাস্টমস, এক্সাইজ ও ভ্যাট কমিশনারেটে রিজেন্টের ৯ কোটি ৫৫ লাখ ৩৪ হাজার ৮৫০ কোটি টাকা বকেয়া রয়েছে।

এ প্রসঙ্গে কাস্টমস, এক্সাইজ ও ভ্যাট কমিশনারেট চট্টগ্রামের কমিশনার সৈয়দ গোলাম কিবরিয়া বলেন, ‘যাত্রীদের কাছ থেকে টিকিট বিক্রির সময় আদায়কৃত ভ্যাট পরিশোধ করেনি রিজেন্ট এয়ারওয়েজ। আমরা এই বকেয়া আদায়ে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নিচ্ছি।’

সূত্র জানায়, বিভিন্ন কারণে আর্থিক সংকটের মুখে পড়েছে রিজেন্ট এয়ারওয়েজ। এ কারণে সব কর্মীর বেতন দেওয়া হয় কয়েকটি ধাপে। প্রায় ৮০০’রও বেশি জনবল রয়েছে এ প্রতিষ্ঠানে। পাইলটের সংখ্যা ৬৪ জন। বেশ কয়েকজন পাইলট চাকরি ছেড়ে গেলেও নতুন করে পাইলট নিয়োগ দিচ্ছে না এয়ারলাইন্সটি। সম্প্রতি একটি বোয়িং ৭৩৭-৭০০ বিমান সি-চেকে থাকায় আরও বেশি সংকটের মুখে পড়েছে এই এয়ারলাইন্স।

সূত্র জানায়— দেশের অভ্যন্তরে চট্টগ্রাম, কক্সবাজার, যশোর, সৈয়দপুর এবং আন্তর্জাতিক রুট ব্যাংকক, দাম্মাম, দোহা, কাঠমান্ডু, কলকাতা, কুয়ালালামপুর, মাস্কট ও সিঙ্গাপুরে যাত্রী পরিবহন করতো রিজেন্ট এয়ারওয়েজ। সম্প্রতি সংকটের কারণে যশোর, সৈয়দপুর, কাঠমান্ডু ও দাম্মাম রুটে তাদের ফ্লাইট বন্ধ হয়ে গেছে।

জানা গেছে, হাবিব গ্রুপের মাধ্যমে পরিচালিত হচ্ছে রিজেন্ট এয়ারওয়েজ। সংকট কাটিয়ে উঠতে নতুনভাবে বিনিয়োগের চেষ্টা করছে এই এয়ারলাইন্স। এ কারণে নতুন বিনিয়োগকারীও খুঁজছে তারা। তবে বিনিয়োগকারী না পাওয়ায় সংকট কাটেনি তাদের।

রিজেন্ট এয়ারওয়েজ আনুষ্ঠানিকভাবে যাত্রা শুরু করে ২০১০ সালের ১০ নভেম্বর। বর্তমানে তাদের বহরে রয়েছে ৮টি বিমান। এর মধ্যে ২টি ড্যাশ-৮ কিউ ৩০০ বিমান, ২টি বোয়িং ৭৩৭-৭০০ বিমান ও ৪টি বোয়িং ৭৩৭- ৮০০ বিমান রয়েছে।

এ প্রসঙ্গে রিজেন্ট এয়ারওয়েজের চিফ অপারেশন অফিসার (সিওও) আশীষ রায় চৌধুরী  বলেন, ‘এনবিআরেরর পাওয়া টাকা পরিশোধ করা শুরু করেছি। বেবিচকের পাওনা পরিশোধ করা হবে। বেবিচকে মূল দেনার চেয়ে সুদের পরিমাণ বেশি, এটি মওকুফ করতে বেবিচকের কাছে আবেদন করেছি। এ বিষয়ে সমাধান হলেও দেনা পরিশোধ করা হবে।’

এ এয়ারলাইন্সের সিওও’র ভাষ্য, ‘দেশি এয়ারলাইন্সগুলোর প্রতিযোগিতায় টিকে থাকা কঠিন হয়ে পড়েছে। আন্তর্জাতিক বাজারের তুলনায় দেশে জ্বালানি তেলের দাম বেশি। বেবিচকে ল্যান্ডিং আর পাকিং চার্জ ছাড়াও অন্যান্য চার্জ অনেক বেশি। এ বিষয়ে সমাধান না হলে দেশি এয়ারলাইন্সগুলো টিকতে পারবে না।’

SHARE