Home আন্তর্জাতিক ভারতকে ‘গ্রিগোরোভিচ’-শ্রেণির উন্নত ফ্রিগেট প্রযুক্তি হস্তান্তর করতে যাচ্ছে রাশিয়া

ভারতকে ‘গ্রিগোরোভিচ’-শ্রেণির উন্নত ফ্রিগেট প্রযুক্তি হস্তান্তর করতে যাচ্ছে রাশিয়া

118
SHARE

কক্সবাংলা ডটকম(২৩ নভেম্বর) :: সামরিক শক্তিতে আরও শক্তিমান হয়ে উঠছে ভারত। গত অক্টোবরে এস-৪০০ নামের উন্নত প্রযুক্তির প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা কেনার জন্যে রাশিয়ার সঙ্গে চুক্তি করার পর দক্ষিণ এশিয়ার এই জনবহুল দেশটি এবার পেতে যাচ্ছে দুটি উন্নত প্রযুক্তির রুশ রণতরী।

সম্প্রতি, ভারতীয় সংবাদমাধ্যম হিন্দুস্তান টাইমস জানায়, রাশিয়ার রাষ্ট্রায়ত্ত অস্ত্র রপ্তানিকারক প্রতিষ্ঠান রোসোবোরোন এক্সপোর্ট এবং ভারতের গোয়া শিপইয়ার্ড লিমিটেড ৫০০ মিলিয়ন ডলারের একটি চুক্তি সই করেছে। চুক্তি অনুযায়ী রাশিয়ার সহযোগিতায় গোয়ায় তৈরি হবে দুটি স্টিলথ ফ্রিগেট।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে দেশ দুটির কর্মকর্তারা সংবাদমাধ্যমটিকে জানান, এই চুক্তির মাধ্যমে রাশিয়া তার দীর্ঘদিনের বন্ধু রাষ্ট্র ভারতের কাছে ‘গ্রিগোরোভিচ’-শ্রেণির উন্নত ফ্রিগেট প্রযুক্তি হস্তান্তর করতে যাচ্ছে।

তারা আরও জানান, রণতরী দুটি গোয়া শিপইয়ার্ডে তৈরি করার পর তা ভারতের কাছে হস্তান্তর করা হবে ২০২৭ সালে।

এদিকে, মাত্র কয়েক সপ্তাহ আগে দেশ দুটি এক বিলিয়ন ডলারের একটি অস্ত্র চুক্তি করে যার মাধ্যমে ভারত পরাশক্তি রাশিয়ার কাছ থেকে দুটি যুদ্ধজাহাজ কিনতে পারবে। সেই রণতরী দুটি এখন তৈরি হচ্ছে রাশিয়ার কালিনিনগ্রাদ প্রদেশে অবস্থিত ইয়ান্তার শিপইয়ার্ডে। এগুলো আগামী ২০২২ বা ২০২৩ সালে ভারতের হাতে এসে পৌঁছাবে বলে আশা করা হচ্ছে।

নতুন দুটি স্টিলথ ফ্রিগেট সম্পর্কে একজন ভারতীয় কর্মকর্তা বলেন, “রাশিয়ার সঙ্গে ৫০০ মিলিয়ন ডলারের চুক্তি হলেও যুদ্ধজাহাজ তৈরিতে খরচ হবে আরও বেশি। যে টাকার চুক্তি হয়েছে তা রুশদেরকেই দিতে হবে জাহাজের নকশা, প্রযুক্তি, বিশেষজ্ঞ ও মালামাল কেনার খরচ বাবদ। বাকি যা খরচ হবে তার হিসাব এখনো করা হয়নি।”

উল্লেখ্য, ২০১৬ সালে ভারত সরকার রাশিয়া থেকে চারটি রণতরী কেনার জন্যে চুক্তি করে। ভারতের নৌবাহিনীর হাতে এখন রয়েছে ছয়টি স্টিলথ ফ্রিগেট- তিনটি তালওয়ার শ্রেণির এবং তিনটি তেগ শ্রেণির। এগুলো ২০০৩ ও ২০১৩ সালে রাশিয়া থেকে কেনা হয়েছিলো।

ভারতের নৌবাহিনীর সাবেক প্রধান অ্যাডমিরাল অরুণ প্রকাশ গণমাধ্যমকে বলেন, “আমাদের হাতে এখন ১০টি স্টিলথ যুদ্ধজাহাজ থাকবে। এটি একটি বিশাল ব্যাপার। নতুন ফ্রিগেট যুক্ত হলে বাহিনীর ক্ষমতা আরও বেড়ে যাবে।”

SHARE