Home আন্তর্জাতিক যুক্তরাষ্ট্র থেকে ১৫ বিলিয়ন ডলারের মিসাইল প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা কিনছে সৌদি আরব

যুক্তরাষ্ট্র থেকে ১৫ বিলিয়ন ডলারের মিসাইল প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা কিনছে সৌদি আরব

73
SHARE
FILE PHOTO - A Terminal High Altitude Area Defense (THAAD) interceptor is launched during a successful intercept test, in this undated handout photo provided by the U.S. Department of Defense, Missile Defense Agency. U.S. Department of Defense, Missile Defense Agency/Handout via Reuters/File PhotoATTENTION EDITORS - FOR EDITORIAL USE ONLY. NOT FOR SALE FOR MARKETING OR ADVERTISING CAMPAIGNS. THIS IMAGE HAS BEEN SUPPLIED BY A THIRD PARTY. IT IS DISTRIBUTED, EXACTLY AS RECEIVED BY REUTERS, AS A SERVICE TO CLIENTS. - RTX2O4QL

কক্সবাংলা ডটকম(২৯ নভেম্বর) :: যুক্তরাষ্ট্রের অস্ত্র নির্মাতা প্রতিষ্ঠান থেকে লকহেড মার্টিন থেকে মিসাইল প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা কিনতে চুক্তি স্বাক্ষর করেছে সৌদি আরব। এক লাখ ২৫ হাজার ৮৫০ কোটি টাকার (১৫ বিলিয়ন ডলার) ওই চুক্তি স্বাক্ষর হয়েছে বলে বুধবার জানিয়েছেন মার্কিন পররাষ্ট্র দফতরের এক মুখপাত্র।

ব্রিটিশ বার্তা সংস্থা রয়টার্স জানিয়েছে, এই চুক্তি স্বাক্ষর করতে বিগত কয়েক সপ্তাহ মার্কিন প্রশাসনের তরফ থেকে ব্যাপক লবিং করা হয়। এমনকি চুক্তি স্বাক্ষরে চাপ দিতে গত অক্টোবরে সৌদি বাদশাহকে ব্যক্তিগতভাবে ফোন করেন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প।

মার্কিন পররাষ্ট্র দফতর জানিয়েছে, গত সোমবার ৪৪টি টার্মিনাল হাই অ্যাল্টিটিউড এরিয়া ডিফেন্স (থাড) লাঞ্চার, মিসাইল এবং এসংক্রান্ত সরঞ্জাম ক্রয়ের অফার লেটার ও গ্রহণ করার নথিতে সৌদি এবং মার্কিন কর্মকর্তারা স্বাক্ষর করেন।

২০১৬ সাল থেকে থাড চুক্তি স্বাক্ষরের আলোচনা চলছে আর এখন তা সম্পূর্ণ হয়েছে বলে জানিয়েছেন মার্কিন পররাষ্ট্র দফতরের মুখপাত্র। ২০১৭ সালে মার্কিন সিনেটের অনুমোদন পায় এই অস্ত্র বিক্রয় চুক্তি।

গত বছর সৌদি আরবের সঙ্গে ১১০ বিলিয়ন মার্কিন ডলারের অস্ত্র প্যাকেজের মূল চুক্তি টিকিয়ে রাখতে বিগত কয়েক সপ্তাহে একযোগে কাজ শুরু করেছে ট্রাম্প প্রশাসন ও প্রতিরক্ষা শিল্প। সাংবাদিক জামাল খাশোগি হত্যায় সম্পৃক্ত থাকার অভিযোগে সৌদি নেতৃত্ব সমালোচনার মুখে পড়ার পর এই প্রচেষ্টা জোরালো করা হয়।

থাড মিসাইল ডিফেন্স প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা ক্রয় নিয়ে আলোচনা করতে অক্টোবরের শেষ দিকে সৌদি বাদশাহকে ফোন করেন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। ওই সময়ে এক সৌদি কর্মকর্তা রয়টার্সকে জানান, চলতি বছরের শেষ নাগাদ এই চুক্তি চূড়ান্ত হতে পারে।

মার্কিন পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র বলেছেন, এই চুক্তি ‘ইরানি শাসক ও ইরান সমর্থিত উগ্রবাদী গোষ্ঠীর কাছ থেকে আসা হুমকি থেকে সৌদি আরব ও উপসাগরীয় অঞ্চলকে দীঘর্ মেয়াদে রক্ষা করবে’।

SHARE