Home কক্সবাজার কক্সবাজার জেলার চার আসনে ৩০ প্রার্থীর মনোনয়ন বৈধ : যেসব কারণে বাতিল...

কক্সবাজার জেলার চার আসনে ৩০ প্রার্থীর মনোনয়ন বৈধ : যেসব কারণে বাতিল ৪ প্রার্থীর মনোনয়ন

275
SHARE

কক্সবাংলা রিপোর্ট(২ ডিসেম্বর) :: মনোনয়নপত্র বাছাইয়ে কক্সবাজার জেলার ৪টি সংসদীয় আসনের মধ্যে ৪ জনের মনোনয়নপত্র বাতিল করেছে জেলা রিটানিং অফিসার। এছাড়া বৈধ হিসেবে ঘোষণা করা হয়েছে ৩০ প্রার্থীকে।

রোববার (২ নভেম্বর) সকাল থেকে বিকাল পর্যন্ত জেলা রিটানিং কর্মকর্তা ও জেলা প্রশাসকের হিল ডাউন সার্কিট হাউসে মনোনয়নপত্র বাছাই করা হয়।

মনোনয়নপত্র যাচাই–বাছাইয়ের নির্ধারিত দিনে মনোনয়ন পত্রের ব্যাপারে শুনানীতে পক্ষ-বিপক্ষের বক্তব্য শোনেন রিটার্নিং কর্মকর্তা মো: কামাল হোসেন। পরে ৩০ জনের প্রার্থীতা বৈধ ও ৪ জনকে বাতিল করেন।

জেলা নির্বাচন কমিশনের কার্যালয় থেকে জানা যায়, একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে অংশ নিতে এবার কক্সবাজার জেলার ৪টি আসন থেকে ৩৪ জনের মনোনয়ন জমাদেন। কক্সবাজার-২ আসনে ১২ প্রার্থীর মধ্যে ২, কক্সবাজার-৩ আসনে ৬ প্রার্থীর মধ্যে ১ ও কক্সবাজার-৪ আসনে ৮ প্রার্থীর মধ্যে ১ জনের মনোনয়ন বাতিল করা হয়।

তবে কক্সবাজার-১ (চকরিয়া-পেকুয়) আসনে কোন প্রার্থীরই মনোনয়ন পত্র বাতিল হয়নি। এ আসনে বৈধ রয়েছেন বিএনপি’র প্রার্থী ও সাবেক এমপি অ্যাডভোকেট হাসিনা আহমদ, চকরিয়া উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি আলহাজ্ব জাফর আলম, জেলা জাতীয় পার্টির সভাপতি ও বর্তমান এমপি হাজী মো.ইলিয়াছ, জেলা ওয়ার্কার্স পার্টিও সভাপতি হাজী আবু মো.বশিরুল আলম,স্বতন্ত্র প্রার্থী তানিয়া আফরিন,ইসলামী আন্দোলনের প্রার্থী আলী আজগর, গণঐক্যের প্রার্থী মুহাম্মদ ফয়সাল ও স্বতন্ত্র প্রার্থী বদিউল আলম সহ মোট ৮ জন।

কক্সবাজার-২ (মহেশকালী-কুতুবদিয়া) আসনে মনোনয়ন বাতিল হওয়া প্রার্থীর মধ্যে রয়েছেন জাতীয় পার্টির মো: মহিবুল্লাহ ও আবু বকর ছিদ্দিক। মো: মহিবুল্লাহ হলফনামায় আয়কর ও শিক্ষা সনদে গরমিল থাকায় তার মনোনয়ন বাতিল ঘোষণা করা হয়। এছাড়া মোট ভোটারের ১ শতাংশের স্বাক্ষরে গড়মিল থাকায় স্বতন্ত্র প্রার্থী আবু বকর ছিদ্দিকের মনোনয়নপত্রও বাতিল হয়।

এ আসনে বৈধরা হলেন আওয়ামী লীগ প্রার্থী ও বর্তমান এমপি আশেক উল্লাহ রফিক,বিএনপি প্রার্থী ও সাবেক এমপি আলমগীর মো: শাহফুজুল্লাহ ফরিদ, গণফ্রন্টের প্রার্থী আনসারুল করিম, সাবেক এমপি ও জামায়াত নেতা হামিদুর রহমান আযাদ, ইসলামী ফ্রন্টের প্রার্থী আবু ইউসুফ মুহাম্মদ মনজুর আহমদ, ইসলামী আন্দোলনের প্রার্থী জসীম উদ্দিন, বিকল্প ধারার প্রার্থী শাহেদ সরওয়ার, জাসদের প্রার্থী এ এম মাসুদুল ইসলাম মাসুদ,এনডিএম’র প্রার্থী মো. শহিদুল্লাহ ও স্বতন্ত্র প্রার্থী জিয়াউর রহমান

কক্সবাজার-৩ আসনে(সদর-রামু) আসনে কক্সবাজার পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি নজিবুল ইসলামের মনোনয়নপত্র বাতিল করা হয়। মনোনয়নপত্রে তিনি আওয়ামী লীগের প্রার্থী দাবি করলেও দলীয় মনোনয়ন জমা না দেয়ায় তার মনোনয়নপত্রটি বাতিল ঘোষণা করা হয়। এ আসনে বৈধরা হলেন আওয়ামী লীগ প্রার্থী ও বর্তমান এমপি সাইমুম সরোয়ার কমল, বিএনপি প্রার্থী ও সাবেক এমপি লুৎফর রহমান কাজল, জাতীয় পার্টি মফিজুর রহমান, ইসলামী আন্দোলনের প্রার্থী মোহাম্মদ আমিন ও
স্বতন্ত্র প্রার্থী মো. হাছন।

কক্সবাজার-৪(উখিয়া-টেকনাফ) আসনে স্বতন্ত্র প্রার্থী উখিয়া উপজেলার পালংখালী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান এম গফুর উদ্দীন চৌধুরীকে ১ শতাংশ ভোটারের স্বাক্ষরে গড়মিল থাকায় মনোনয়নপত্র বাতিল করা হয়। এ আসনে বৈধরা হলেন আওয়ামী লীগ প্রার্থী ও বর্তমান এমপি আব্দুর রহমান বদির স্ত্রী শাহীন আকতার,বিএনপি প্রার্থী ও সাবেক এমপি শাহজাহান চৌধূরী, জাতীয় পার্টির প্রার্থী আবুল মনজুর, ইসলামী আন্দোলনের প্রার্থী মোহাম্মদ শোয়াইব, ইসলামী ঐক্যজোটের প্রার্থী রবিউল হাসান, গণঐক্যের প্রার্থী সাইফুদ্দিন খালেদ ও স্বতন্ত্র প্রার্থী মোহাম্মদ সালাউদ্দিন।

সবচেয়ে বেশি মনোনয়নপত্র বাতিল হয় কক্সবাজার-২ আসনে। এ আসনে মোট ১২ জনের মধ্যে ২জনের মনোনয়নপত্র বাতিল ঘোষণা করা হয়।

এদিকে রিটার্ণিং অফিসার মো: কামাল হোসেন জানিয়েছেন মনোনয়ন বাতিল হওয়া প্রার্থীরা ইচ্ছে করলে আপিল করতে পারবেন।

এর আগে ইসি সচিব হেলালুদ্দীন আহমদ বলেন, রিটার্নিং কর্মকর্তার মনপুত না হলে সংক্ষুব্ধরা আপিল কর্তৃপক্ষের কাছে আপিল করতে পারবেন। সেখানেও যদি তিনি সন্তুষ্ট না হন তাহলে সংক্ষুব্ধ ব্যক্তি আদালতেও যেতে পারবেন।

প্রসঙ্গত,কক্সবাজার জেলার ৪টি পৌরসভা ও ৭১ ইউনিয়নের ৫১২ ভোটকেন্দ্রে মোট ভোটার সংখ্যা ১৩ লাখ ৬৫ হাজার ২০৪ জন। সেখানে ৭ লাখ ৭ হাজার ৮৩১ জন পুরুষ এবং ৬ লাখ ৫৭ হাজার ৩৭৩ জন মহিলা। ভোট কক্ষের সংখ্যা ২ হাজার ৭৩৮টি।

নির্বাচন কমিশন ঘোষিত তফসিল অনুযায়ী,আগামী ৩০ ডিসেম্বর একাদশ সংসদ নির্বাচনের ভোট। এ নির্বাচনে মনোনয়নপত্র দাখিলের শেষ দিন ছিল ২৮ নভেম্বর। প্রার্থিতা প্রত্যাহার ৯ ডিসেম্বর আর প্রতীক বরাদ্দ ১০ ডিসেম্বর।

 

SHARE