Home কক্সবাজার ঈদগাঁও-ইসলামাবাদে ড্রেজার মেশিন দিয়ে বালি উত্তোলন থামছেনা

ঈদগাঁও-ইসলামাবাদে ড্রেজার মেশিন দিয়ে বালি উত্তোলন থামছেনা

34
SHARE

এম আবু হেনা সাগর,ঈদগাঁও(৫ ডিসেম্বর) :: কক্সবাজার সদরের ঈদগাঁও আর ইসলামাবাদে শক্তিশালী ড্রেজার মেশিনের সাহায্যে বালি উত্তোলন অব্যাহত রয়েছে। এসব দেখার কেউ না থাকায় হতাশ হয়ে পড়েছে সচেতন এলাকা বাসী।

তবে এলাকাবাসীর পক্ষ থেকে আবেদন দায়েরের দুই মাস পার হলেও ড্রেজার মেশিন দিয়ে বালু উত্তোলন কোনভাবেই থামছেনা,বরং উত্তোলন করা হচ্ছে ব্যাপক হারে। এতে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ নীরব দর্শকের ভূমিকায় রয়েছে।

লিখিত আবেদনের সূত্র মতে,ইসলামাবাদ ৯নং ওর্য়াড় গজালিয়া এলাকায় ঈদগাঁও নদীর পাশ্বে প্রায় ড্রেজার মেশিন বসিয়ে দীর্ঘকাল ধরে বালি উত্তোলন করে চলছে। যার ফলে একদিকে নদীর পাড় ঝুঁকিপূণ হয়ে ভেঙ্গে যাওয়ার উপক্রম শুরু হয়েছে,

অন্য দিকে বালি বিভিন্ন জায়গায় সরবরাহে প্রতি নিয়ত শত শত ভারী যানবাহন বেপরোয়া ভাবে চলাচল করছে। গ্রামের কাঁচা রাস্তা দিয়ে ভারী যানবাহন চলাচলের কারনে বর্তমানে সড়কটি নষ্টের দিকে ধাবিত হচ্ছে এবং সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়,মাদ্রাসাসহ বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্টানগামী অসংখ্য শিক্ষার্থীদের জন্য চলাফেরায় মারাত্বক ভাবে হুমকিতে পরিনত হয়ে পড়েছে।

এছাড়াও এসব ভারী যানবাহন চলাচলের কারনে সড়কটি ছোট ছোট যান চলাচলের ক্ষেত্রেও অযোগ্য হয়ে পড়েছে। যাতে করে এলাকার সাধারন লোকজন জেলা সদরের বৃহৎ বানিজ্যিক উপশহর ঈদগাঁও বাজারে প্রয়োজনীয় কাজেকর্মে ছোট পরিবহন নিয়ে আসা যাওয়া করতে নিদারুন কষ্ট পাচ্ছে।

এমনকি অদূর ভবিষ্যতে এ গ্রামীন সড়কটিতে  যদি বেপরোয়া ভারী যানবাহন চলাচলে অব্যাহত থাকে,তাহলে সড়কটি ব্যাপক হারে নষ্টের পাশা পাশি মূমূর্ষ রোগী,শিক্ষার্থীসহ এলাকাবাসীকে চলাচলে নানাভাবে কষ্ট পেতে হবে। এমনকি  এলাকার প্রভাবশালী মহল কতৃক ড্রেজার মেশিন দিয়ে দিবালোকে বালু উত্তোলন বন্ধ করতে কতৃপক্ষের জরুরী হস্তক্ষেপ কামনা করেন এলাকাবাসী।

বিগত ৩০ সেম্প্টম্বর জেলা প্রশাসক বরাবরে লিখিত আবেদন দাখিল করে গ্রামবাসী। এই আবেদনে অর্ধ শতাধিক এলাকাবাসীর স্বাক্ষর রয়েছে।

ইসলামাবাদ ইউপি চেয়ারম্যান নুর ছিদ্দিক জানান, মেশিন বসিয়ে বালু উত্তোলন,গ্রামের কাঁচা রাস্তা দিয়ে শতশত ভারী যানবাহন চলাচল বন্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহনে জেলা প্রশাসক বরাবরে লিখিত আবেদন দাখিল করার সত্যতা নিশ্চিত করার পাশাপাশি বালু উত্তোলন বন্ধের দাবীতে জেলা প্রশাসক, ইউএনও এবং পরিবেশ অধিদপ্তরে পরিষদের পক্ষ থেকে রেজুলেশন দেওয়া হয়েছে।

ঈদগাঁও ৯নং ওর্য়াড় ভোমরিয়াঘোনার সচেতন এলাকাবাসী জেলা প্রশাসক বরাবরে আরো একটি লিখিত আবেদন দায়ের করেন। এই অভিযোগে ড্রেজার মেশিন দিয়ে অবৈধ বালি উত্তোলনের কারনে বসতভিটা,দোকানপাঠ, চলাচল রাস্তাসহ মুল্যবান জমি নদী ভাঙ্গনের করাল গ্রাস থেকে রক্ষার প্রয়োজনীর ব্যবস্থা গ্রহনের দাবী জানানো হয়।

বিগত বৎসর যাবৎ ধরে ঈদগাঁও নদীর উপর ড্রেজার মেশিনের সাহায্য বালু উত্তোলনের ফলে নদীর পাড় ভেঙ্গে বর্ষা মৌসুমে বেশ কয়েকটি বসতবাড়ী উচ্ছেদ হয়ে যায় এবং আরো কয়েকটি বসতবাড়ী হুমকির মুখে বললেই চলে।

এভাবে যদি বালু উত্তোলন কার্যক্রম অব্যাহত থাকে তাহলে নদীর উভয় পাশের বহু ঘরবাড়ী ও চলাচল রাস্তা নদী গর্ভে তলিয়ে যাবে বলেও উল্লেখ্য করা হয়। এই আবেদনেও প্রায় বহুজনের স্বাক্ষর রয়েছে।

৫ই ডিসেম্বর কক্সবাজার প্রতিদিনের ষ্টাফ রিপোটার ভোমরিয়াঘোনা-গজালিয়া এলাকায় ঘুরতে গেলে চোখে পড়ে ঈদগাঁও ভোমরিয়া ঘোনা ফরেষ্ট অফিস সংলগ্ন থেকে শুরু করে ঈদগড় সড়কের গজালিয়া পর্যন্ত ঈদগাঁও নদীতে প্রায় ১৫/২০টি ড্রেজার মেশিন বসিয়ে দেদারছে বালি উত্তোলনের চিত্র।

তবে ঈদগাঁও ঈদগড় সড়কের ভোমরিয়াঘোনা পয়েন্টের একপাশ ভেঙ্গে গেলেও সেটি বাঁশ এবং টিনের সাহায্যে আপাতত মেরামত করার চিত্রও দেখা গেছে।

এদিকে স্থানীয় মেম্বার আবদুল হাকিম মুঠো ফোনে সংযোগ না পাওয়ায় বক্তব্য নেওয়া সম্ভব হয়নি।

SHARE