রবিবার ৩রা জুলাই, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ১৯শে আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

শিরোনাম

রবিবার ৩রা জুলাই, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ

শিরোনাম

কক্সবাজারের এলএনজি নিয়ে নতুন স্বপ্ন শিল্প খাতে

বুধবার, ২৫ এপ্রিল ২০১৮
265 ভিউ
কক্সবাজারের এলএনজি নিয়ে নতুন স্বপ্ন শিল্প খাতে

কক্সবাংলা রিপোর্ট(২৪ এপ্রিল) :: অবশেষে ২৪ এপ্রিল মঙ্গলবার দুপুর আড়াইটায়  কক্সবাজারের মহেশখালী উপকূলে বহু কাঙ্ক্ষিত এলএনজিসহ গ্যাস প্রক্রিয়াকরণ জাহাজটি এসে পৌঁছেছে। এটা আসলে একটি টার্মিনাল। এখানে আমদানি করা এলএনজি বা তরল প্রাকৃতিক গ্যাস রূপান্তর করে প্রাকৃতিক গ্যাসে পরিণত করা হবে। এরপর পাইপলাইনের মাধ্যমে তা সারাদেশে সরবরাহ করা হবে।

এটা বাংলাদেশের জন্য একটি বড় সুখবর। বহুকাল ধরেই দেশের বিদ্যুৎসহ বহু শিল্পকারখানা গ্যাসের অভাবে অচল। এখন এগুলো সচল হওয়ার সুযোগ তৈরি হলো।

বিশ্নেষকরা মনে করছেন, গ্যাসের ঘাটতি অনেকাংশেই পূরণ হবে। তবে গ্যাসের দাম দিতে হবে বেশি। এটা নিয়ে শিল্পপতিরা বেশ শঙ্কায় আছেন। তবে জ্বালানি উপদেষ্টা তৌফিক-ই-ইলাহী বীরবিক্রম নিশ্চিত করেছেন, সহনীয় হারে গ্যাসের দাম বাড়ানো হবে।

চট্টগ্রামে অবস্থানরত রূপান্তরিত প্রাকৃতিক গ্যাস কোম্পানির (আরপিজিসিএল) ব্যবস্থাপনা পরিচালক মো. কামরুজ্জামান জানান, মার্কিন কোম্পানি এক্সিলারেট এনার্জির গ্যাস প্রক্রিয়াকরণ জাহাজটি বঙ্গোপসাগরের টার্মিনালের জন্য নির্ধারিত স্থানে এসে পৌঁছেছে। ২৯ এপ্রিল জ্বালানি বিভাগের একটি প্রতিনিধি দল চট্টগ্রাম যাবে। তারা গ্রাহক পর্যায়ে এলএনজি সরবরাহের আনুষ্ঠানিক তারিখ ঘোষণা করবেন।

আশা করা হচ্ছে, আগামী মাসের মাঝামাঝি গ্রাহকরা আমদানি করা এই গ্যাস ব্যবহার করতে পারবেন। বর্তমানে দেশে গ্যাসের চাহিদা ৩৫০ কোটি ঘনফুট। সরবরাহ করা হয় ২৭০ কোটি ঘনফুট। ৮০ কোটি ঘনফুট ঘাটতি।

মহেশখালীতে মে মাস থেকেই পাওয়ার কথা ৫০ কোটি ঘনফুট, অর্থাৎ ৩০ কোটি ঘনফুট ঘাটতি থেকে যাচ্ছে। এ বছরের শেষ দিকে আরও ৫০ কোটি ঘনফুট আমদানি করা হবে বলে সরকারের পক্ষ থেকে বলা হচ্ছে। এরপর চাহিদা অনুযায়ী আরও আমদানি করা হবে।

দীর্ঘদিন ধরে সংযোগের অপেক্ষায় থাকা শিল্প উদ্যোক্তারা নতুন করে স্বপ্ন দেখতে শুরু করেছেন। অনেক শিল্পমালিক কারখানার যন্ত্রপাতি আমদানির উদ্যোগ নিয়েছেন। বিদ্যুতেও গ্যাস সরবরাহ বাড়বে। তবে আমদানি মূল্য বেশি বলে গ্যাসের জন্য গ্রাহককে বেশি মূল্য পরিশোধ করতে হবে। এরই মধ্যে গ্যাসের দাম ৭৫ শতাংশ বৃদ্ধির জন্য বাংলাদেশ এনার্জি রেগুলেটরি কমিশনে (বিইআরসি) প্রস্তাবনা পাঠিয়েছে গ্যাস বিতরণ কোম্পানিগুলো।

জানতে চাইলে এলএনজি আমদানি প্রক্রিয়ার তত্ত্বাবধানকারী রূপান্তরিত প্রাকৃতিক গ্যাস কোম্পানি আরপিজিসিএলের ব্যবস্থাপনা পরিচালক কামরুজ্জামান বলেন, এলএনজি দিয়ে প্রাথমিকভাবে চট্টগ্রামের শিল্প ও বিদ্যুৎ খাতের চাহিদা মেটানো হবে। পরে ঢাকাসহ দেশের অন্য অঞ্চলে এই গ্যাস দেওয়া হবে।

গ্যাসের চাহিদা মেটাতে ২০১০ সালে সরকার এলএনজি আমদানির উদ্যোগ নেয়। এক্সিলারেট এনার্জির সঙ্গে ২০১৬ সালে দেশের প্রথম সমুদ্রে ভাসমান এলএনজি টার্মিনাল স্থাপনে চুক্তি হয়। আট বছরের মাথায় এ উদ্যোগ বাস্তবায়ন হতে যাচ্ছে।

প্রথমে গ্যাস পাবে চট্টগ্রাম :

জানা গেছে, দৈনিক ৫০ কোটি ঘনফুট এলএনজি সরবরাহের জন্য চুক্তি হলেও অবকাঠামোগত ঘাটতির কারণে প্রাথমিক পর্যায়ে ২৫ থেকে ৩০ কোটি ঘনফুট গ্যাস দেওয়া হবে জাতীয় গ্রিডে। এখন চট্টগ্রামের গ্যাসের চাহিদা দৈনিক ৩০ কোটি ঘনফুট। সরবরাহ করা হয় ২০ কোটি ঘনফুট।

এদিকে, এলএনজি আমদানিকে ঘিরে নতুন কারখানায় গ্যাস সংযোগ দেওয়া শুরু করেছে চট্টগ্রাম অঞ্চলের গ্যাস বিতরণ কোম্পানি কর্ণফুলী। এরই মধ্যে তারা ২৬৫টি নতুন কারখানার ডিমান্ড নোট ইস্যু করেছে। এদের মধ্যে ৭১টি প্রয়োজনীয় অর্থ পরিশোধ করেছে। আরও ৩৫৬টি শিল্পের আবেদন অনুমোদনের জন্য সরকারের উচ্চ পর্যায়ে প্রস্তাব পাঠানো হয়েছে। সব মিলিয়ে চলতি বছরের শেষ নাগাদ চট্টগ্রামের চাহিদা ৪৫ কোটি ঘনফুটে পৌঁছাবে বলে আশা করছে কর্ণফুলী কর্তৃপক্ষ।

কর্ণফুলীর ব্যবস্থাপনা পরিচালক আলী মো. আল মামুন বলেন, এলএনজি এলে চট্টগ্রামের গ্যাসের ঘাটতি দূর হবে। নতুন নতুন কারখানায় গ্যাস দেওয়া সম্ভব হবে।

ইতিবাচক প্রভাব পড়বে ঢাকা ও কুমিল্লায় :

প্রথম পর্যায়ে এলএনজি চট্টগ্রাম অঞ্চলে দেওয়া হবে। পরে পাইপলাইন নির্মাণ শেষ হলে তা ঢাকাসহ দেশের অন্য অঞ্চলেও দেওয়া হবে। কারণ, এখন জাতীয় গ্রিড থেকে গড়ে ২০ কোটি ঘনফুট গ্যাস চট্টগ্রামে দেওয়া হচ্ছে। এলএনজি আসার ফলে চট্টগ্রামে দেশি গ্যাসের সরবরাহ কমিয়ে দেওয়া হবে। দেশি গ্যাস বাখরাবাদ ও তিতাস বিতরণ কোম্পানির নেটওয়ার্কে দেওয়া হবে।

জানতে চাইলে তিতাস গ্যাস কোম্পানির ব্যবস্থাপনা পরিচালক মীর মসিউর রহমান বলেন, এলএনজি না পেলেও তার সুবিধা পাব আমরা। এখন যে গ্যাস কর্ণফুলীকে দেওয়া হচ্ছে, এলএনজি আসার পর তার একটি বড় অংশ তিতাসকে দেওয়া হবে। কিছু অংশ পাবে বাখরাবাদও। ফলে ঢাকার, বিশেষ করে গাজীপুর-সাভারের শিল্পের গ্যাস সংকট অনেকটাই কেটে যাবে। সুবিধা ভোগ করবেন কুমিল্লার গ্রাহকরাও।

চট্টগ্রামের বাইরে এলএনজি সরবরাহের জন্য আনোয়ারা থেকে ফৌজদারহাট পর্যন্ত ৪২ ইঞ্চি ব্যাসের ৩০ কিলোমিটার দৈর্ঘ্যের পাইপলাইন ও ৩৬ ইঞ্চি ব্যাসের ১৮১ কিলোমিটার দৈর্ঘ্যের চট্টগ্রাম-ফেনী-বাখরাবাদ সঞ্চালন লাইন প্রকল্পের কাজ চলছে। আগামী সেপ্টেম্বরে এ প্রকল্পগুলোর কাজ শেষ হতে পারে। তখন চট্টগ্রামের বাইরে এলএনজি দেওয়া যাবে।

যেভাবে আসবে এলএনজি :

দেশের পাইপলাইনে সরবরাহ করা প্রাকৃতিক গ্যাস আর এলএনজি দুটোই একই পদার্থ। পরিবহনের সুবিধার জন্য প্রাকৃতিক গ্যাসকে তরল করা হয়, এটি এলএনজি নামে পরিচিত। মাইনাস ১৬২ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রায় প্রাকৃতিক গ্যাসকে তরল করে এলএনজিতে রূপান্তর করা হয়। এই তরল গ্যাস বিশেষভাবে নির্মিত জাহাজে করে আমদানি করা হয়। পরে উচ্চ তাপে আবার তা গ্যাসে পরিণত করে পাইপলাইনে সরবরাহ করা হয়। তখন এটিকে ‘রিগ্যাসিফাইড এলএনজি’ বা আরএলএনজি বলে। এলএনজিকে আবার গ্যাসে রূপান্তর করতে দুই ধরনের টার্মিনাল রয়েছে। একটি সমুদ্রে ভাসমান (এফএসআরইউ), অন্যটি স্থলভিত্তিক টার্মিনাল।

দেশের প্রথম এলএনজি টার্মিনালটি হচ্ছে ভাসমান। মহেশখালী দ্বীপের কাছে গভীর সমুদ্রে এই টার্মিনাল অবস্থান করবে। ওই স্থানে সাগরের গড় গভীরতা ৩২ থেকে ৩৫ মিটার। টার্মিনাল থেকে স্থলভাগের পাইপলাইনে গ্যাস দিতে সমুদ্রের তলদেশ দিয়ে ২৪ ইঞ্চি ব্যাসের ৭ দশমিক ৩৭ কিলোমিটার দৈর্ঘ্যের একটি পাইপলাইন স্থাপন করা হয়েছে। সংযোগ পয়েন্টটি মহেশখালীর কোয়ানক ইউনিয়নের ঘটিভাঙায়।

এই জাহাজটিতে এলএনজি আছে এক লাখ ৩৮ হাজার ঘনমিটার বা ২৯০ কোটি ঘনফুট। এখান থেকে দৈনিক ৫০ কোটি ঘনফুট করে গ্যাস গ্রিডে দেওয়ার কথা। এলএনজি আমদানি করা হবে মূলত কাতার থেকে। এলএনজি সরবরাহ ব্যবস্থাপনায় অংশ নিতে পাঁচটি টাগ বোট দেশে এসেছে। এর দুটি জ্বালানি ও লোকবল পরিবহনে ব্যবহূত হবে। আর তিনটি এলএনজি ভেসেলকে এলএনজি টার্মিনাল পর্যন্ত নিরাপদে পৌঁছাতে কাজ করবে।

চুক্তি অনুসারে জাহাজের মালিক এক্সিলারেটকে বছরে প্রায় ৭০০ কোটি টাকা দিতে হবে। এ ছাড়া সব ধরনের কর পেট্রোবাংলা পরিশোধ করবে। টার্মিনাল পর্যন্ত এলএনজি আনার দায়িত্ব পালন করবে পেট্রোবাংলা।

শিল্পে আশার আলো :

গ্যাসের ঘাটতির কারণে ২০১০ সালের পর শিল্পে গ্যাস সংযোগ সংকুচিত করা হয়। এ সময় অনেক শিল্প উদ্যোক্তা কারখানা স্থাপন করে গ্যাস সংযোগের আবেদন করলেও সংযোগ মেলেনি। ফলে দীর্ঘদিন ধরে কারখানা বসিয়ে রেখে তাদের ব্যাংক ঋণ পরিশোধ করতে হয়েছে। অনেকেই নতুন বিনিয়োগ করেননি। এলএনজি আমদানি ব্যবসায়ীদের মধ্যে নতুন আশার সৃষ্টি করেছে। জ্বালানি বিভাগ মনে করছে, এলএনজি আসার পর উৎপাদন বাড়বে, বাড়বে রফতানি। সার্বিক অর্থনীতির গতি আরও বৃদ্ধি পাবে।

শিল্পে নতুন সংযোগ :

জানা গেছে, জাতীয় গ্রিডে এলএনজি যুক্ত হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে বিভিন্ন গ্যাস বিতরণ কোম্পানির অধীনে আবেদন জমা থাকা দুই হাজার ৩৯০টি শিল্পকারখানায় নতুন গ্যাস সংযোগ দেওয়া হবে। সরকার ধাপে ধাপে মে থেকে অক্টোবর মাসের মধ্যে এসব কারখানায় নতুন গ্যাস সংযোগ দেবে।

বাড়বে গ্যাসের দাম :

পেট্রোবাংলা সূত্র জানায়, দেশি গ্যাসের চেয়ে এলএনজির দাম কয়েক গুণ বেশি হওয়ায় দাম বাড়ানো ছাড়া কোনো উপায় নেই। গত বছর ফেব্রুয়ারিতে গ্যাসের দাম গড়ে ২২ দশমিক ৭০ শতাংশ বাড়ানো হয়। বর্তমানে প্রতি ঘনমিটার গ্যাসের গড় মূল্য সাত টাকা ৩৫ পয়সা। এলএনজি আমদানিকে কেন্দ্র করে ছয় বিতরণ কোম্পানি গত মাসে আবার গড়ে ৭৫ শতাংশ দাম বাড়ানোর আবেদন বিইআরসিতে জমা দিয়েছে। প্রতি ইউনিট গ্যাস বিদ্যুতে ৩ দশমিক ১৬ থেকে ১০ টাকা, শিল্পে ৭ দশমিক ৭৬ থেকে ১৫ টাকা, সিএনজিতে ৪০ থেকে ৪৮ টাকা, ক্যাপটিভ পাওয়ারে ৯ দশমিক ৬২ থেকে ১৬ টাকা করার আবেদন করা হয়েছে। আবাসিকের দাম বাড়ানোর বিষয়ে কিছু বলা হয়নি। কমিশন সূত্র জানিয়েছে, মে মাসের প্রথম সপ্তাহে যে কোনো দিন এ-সংক্রান্ত গণশুনানি এবং নতুন মূল্যহার কার্যকরের ঘোষণা আসতে পারে।

পেট্রোবাংলা সূত্র জানায়, কুতুবদিয়া ও পায়রায় আরও একাধিক স্থলভিত্তিক এলএনজি টার্মিনাল স্থাপনের উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। কাতার ছাড়াও সুইজারল্যান্ড, ওমান, মালয়েশিয়া, সিঙ্গাপুর ও ইন্দোনেশিয়ার সঙ্গেও এলএনজি আনতে সমঝোতা স্মারক সই হয়েছে। সরকার ২০২৪ সালের মধ্যে দিনে ৪০০ কোটি ঘনফুট গ্যাস আমদানির পরিকল্পনা করেছে।

265 ভিউ

Posted ৩:২২ পূর্বাহ্ণ | বুধবার, ২৫ এপ্রিল ২০১৮

coxbangla.com |

এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

Archive Calendar

রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি
 
১০১১১২১৩১৪১৫১৬
১৭১৮১৯২০২১২২২৩
২৪২৫২৬২৭২৮২৯৩০
৩১  

Editor & Publisher

Chanchal Dash Gupta

Member : coxsbazar press club & coxsbazar journalist union (cbuj)
cell: 01558-310550 or 01736-202922
mail: chanchalcox@gmail.com
Office : coxsbazar press club building(1st floor),shaheed sharanee road,cox’sbazar municipalty
coxsbazar-4700
Bangladesh
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন

ABOUT US :

coxbangla.com is a dedicated 24x7 news website which is published 2010 in coxbazar city. coxbangla is the news plus right and true information. Be informed be truthful are the only right way. Because you have the right. So coxbangla always offiers the latest news coxbazar, national and international news on current offers, politics, economic, entertainment, sports, health, science, defence & technology, space, history, lifestyle, tourism, food etc in Bengali.

design and development by : webnewsdesign.com