রবিবার ২৪শে জানুয়ারি, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ১০ই মাঘ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

শিরোনাম

রবিবার ২৪শে জানুয়ারি, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

শিরোনাম

চিরনিদ্রায় শায়িত ম্যারাডোনা : ভাইরাসভীতিকেও হারিয়ে দিল আর্জেন্টাইনরা

শুক্রবার, ২৭ নভেম্বর ২০২০
130 ভিউ
চিরনিদ্রায় শায়িত ম্যারাডোনা : ভাইরাসভীতিকেও হারিয়ে দিল আর্জেন্টাইনরা

কক্সবাংলা ডটকম ::  দিনভর লাখো ভক্ত পরিবেষ্টিত ফুটবল কিংবদন্তি ম্যারাডোনার শেষকৃত্যে অংশ নিলেন কেবল ২০/২৫ জনের মতো বন্ধু ও স্বজন। একেবারেই পরিজন ঘেরা ছিল সমাহিত করার সেই আয়োজন।

বিবিসি জানায়, বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় আর্জেন্টিনার রাজধানী বুয়েন্স আয়ার্সের বেল্লা ভিস্তায় বাবা-মায়ের সমাধির পাশেই সমাহিত করা হয় এই ফুটবল ইশ্বরকে। এর আগে প্রেসিডেনশিয়াল প্যালেস কাসা রোসাদায় ম্যারাডোনার কফিনটি রাখা হয় ভক্তদের শেষ শ্রদ্ধা জানানোর জন্য।

করোনা সংক্রমণের শঙ্কা উপেক্ষা করে লাখো ভক্ত সমবেত হয়েছিলেন শেষবারের মতো প্রিয় ফুটবলারের কফিন স্পর্শের আশায়। অভ্যাগতদের সবারই চোখে জল, হাতে ফুল। কারও পরনে ছিল ১০ নম্বর জার্সি নয় ম্যারাডোনার ছবি সম্বলিত পোশাক। কেউ দূর থেকেই প্রিয় মানুষটির হাওয়ায় ছুড়ে দিয়েছেন চুমু।

এদিকে লাখো ভক্তকে সামলাতে রীতিমতো হিমশিম খেতে হয়েছে আর্জেন্টাইন পুলিশকে। প্রেসিডেন্ট প্যালেস অভিমুখে এক কিলোমিটারের চেয়ে বেশি লম্বা লাইনের ভক্তদের ঠেকাতে পুলিশ এক পর্‍যায়ে রাবার বুলেট ও টিয়ার গ্যাসও ছুড়েছে। তবু সামলানো যায়নি ভক্তদের।

উল্লেখ্য, আর্জেন্টাইন ফুটবল ঈশ্বর ডিয়েগো ম্যারাডোনা বুধবার হৃদযন্ত্রের ক্রিয়া বন্ধ হয়ে না ফেরার দেশে চলে যান। ১৯৮৬ সালে আর্জেন্টিনাকে প্রায় একাই বিশ্বকাপ জেতানো এই কিংবদন্তির মাত্র দুই সপ্তাহ আগেই মস্তিষ্কে অস্ত্রোপচার হয়েছিল। হাসপাতাল ছেড়ে ফিরেছিলেন নিজ বাড়িতে। কে জানতো, পৃথিবীতে তার জন্য অপেক্ষা করছিল আর কয়েকটা দিন। মাত্র ৬০ ‍বছর বয়সে কোটি ফুটবলভক্তকে কাঁদিয়ে অন্য পারের বাসিন্দা হলেন বাঁ পায়ে অসংখ্য মুহূর্তের জন্ম দেওয়া ফুটবল ঈশ্বর।

এ মাসের শুরুতে মস্তিষ্কে রক্তক্ষরণের জন্য অস্ত্রোপচার করাতে হয় সাবেক নাপোলি ও বোকা জুনিয়র্স তারকাকে। প্রথম দিকে দ্রুত হাসপাতাল ছেড়ে যাওয়ার কথা ছিল তার। কিন্তু অ্যালকোহল আসক্তির কারণে নানা জটিলতা দেখা দেওয়ায় অনেক বেশি সময় সেখানে থাকতে হয়। যদিও তার চিকিৎসকদের অভিযোগ ছিল, জীবনের প্রতিটি সময় নিয়মকে বুড়ো আঙুল দেখিয়ে নিজের স্বভাবসুলভ আচরণে মগ্ন থাকা ম্যারাডোনা হাসপাতালে থাকতে চাননি। চিকিৎসকের নিষেধের পরও হাসপাতাল ‍ছাড়তে উঠেপড়ে লেগেছিলেন তিনি।

ভাইরাসভীতিকেও হারিয়ে দিল আর্জেন্টাইনরা

করোনাভাইরাসের আঘাতে পুরো বিশ্ব যখন বিপর্যস্ত তখন ম্যারাডোনার বিদায় যেনো আর্জেন্টাইনদের ভালোবাসার কাছে মরণভয় তুচ্ছ করে দিলো। কিংবদন্তিকে শেষ শ্রদ্ধা জানাতে বুয়েন্স আইরেসের রাস্তায় নেমে পড়েন হাজার হাজার আর্জেন্টাইন।

হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে বুধবার মারা যান ফুটবল ইতিহাসের অন্যতম সেরা খেলোয়াড় ম্যারাডোনা। ভক্তদের কাছে যার পরিচয় ‘ফুটবল ঈশ্বর।’ বৃহস্পতিবার কাসা রোসাদার প্রেসিডেন্সিয়াল ভবনে রাখা হয় মৃতদেহ। তাকে শেষবারের মতো শ্রদ্ধা জানাতে সেখানে হাজির হন ভক্তরা।

আর্জেন্টিনায় করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন প্রায় এক কোটি ৪০ লাখ মানুষ। মারা গেছেন ৩৭ হাজারের বেশি। দেশটির সরকার গত মার্চে কঠোর লকডাউন দেয় এবং শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ও ভ্রমণে কড়া বিধিনিষেধ আরোপ করে।

প্রাসাদের প্রবেশপথের মুখে স্যানিটাইজারসহ নানান সরঞ্জাম রাখে কর্তৃপক্ষ। সেখানে লোকজন মিছিল করছিল, অনেক সমর্থক প্রবেশপথের সামনে ভিড় করেন। কেউ কেউ আবার মাস্ক ছাড়াই গান গাইছিলেন এবং পান করছিলেন।

এখান থেকে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়ার শঙ্কা করছেন আর্জেন্টিনার চিকিৎসকরা। তারা বলছেন, ম্যারাডোনার চলে যাওয়া নিশ্চয়ই কষ্টের, তিনি আমাদের আইডল। কিন্তু স্বাস্থ্যের ঝুঁকিও তো অনেক বেশি।

‘মারাদোনা ১০’ লেখা জার্সিতে মাঠে নামলেন নাপোলি ফুটবলাররা

ফুটবলের রাজপুত্র দিয়েগো মারাদোনার মৃত্যুতে শোকে মূহ্যমান ফুটবল বিশ্ব। চোখের কোনে জল নিয়ে বৃহস্পতিবার আর্জেন্তাইন কিংবদন্তির শেষযাত্রায় সামিল হয়েছেন হাজার হাজার অনুরাগী। দিয়েগোর মৃত্যুসংবাদে যেমন কান্নায় ভেঙে পড়েছে বুয়েনস আয়রস, একই চিত্র ধরা পড়েছে তাঁর সেকেন্ড হোম ন্যাপেলসে। যেখানে ঘরে ঘরে ঈশ্বর রূপে পূজিত হন ফুটবল ঈশ্বর দিয়েগো আর্মান্দো মারাদোনা।

তবে ‘দ্য শো মাস্ট গোজ অন’। ফুটবল ঈশ্বরের স্মৃতিতে নীরবতা পালনের মধ্যে দিয়ে ফুটবল চলছে গোটা বিশ্বজুড়ে। কারণ ফুটবলই বোধহয় দিয়েগোকে সম্মান জানানোর শ্রেষ্ঠ মাধ্যম। ঘরের ছেলেকে হারানোর বেদনাকে সঙ্গী করেই এদিন ইউরোপা লিগে মাঠে নেমেছিল দিয়েগোর ক্লাব নাপোলিও। এই ক্লাবকে বিশ্বের দরবারে যে প্রতিষ্ঠা করেছিলেন মারাদোনাই। ১৯৮৭ এবং ১৯৯০ ইতালির এই ক্লাবকে কার্যত একার কাঁধে ইতালি সেরা করেছিলেন আর্জেন্তাইন ফুটবল মায়েস্ত্রো। তাই মারাদোনাকে সম্মান জানিয়ে বৃহস্পতিবার এক অভিনব উদ্যোগ গ্রহণ করল নাপোলি ফুটবল ক্লাব।

ঘরের মাঠ স্তাদিও সান পাওলো স্টেডিয়ামে এদিন দিয়েগোকে সম্মান জানিয়ে নাপোলির এগারোজন ফুটবলার মাঠে নামলেন ‘মারাদোনা ১০’ লেখা জার্সি গায়ে চাপিয়ে। ফুটবল ঈশ্বরকে সম্মান জানানোর জন্য এর চেয়ে অভিনব পন্থা বোধহয় আর হতে পারত না। ক্রোয়েশিয়ার ফুটবল ক্লাব রিজেকার বিরুদ্ধে এদিন বাকায়োকো, কৌলিবালি প্রত্যেকের জার্সির পিছনে লেখা ছিল ‘মারাদোনা ১০’। দিয়েগোর স্মৃতির উদ্দেশ্যে নীরবতা পালনের মধ্যে দিয়েই শুরু হয় ম্যাচ। ক্রোয়েশিয়ার দলটির বিরুদ্ধে ২-০ ব্যবধানে ম্যাচ জেতে নাপোলি। ইতিমধ্যেই সান পাওলো স্টেডিয়ামকে সদ্য প্রয়াত মারাদোনার নামে নামাঙ্কিত করার কথা ঘোষণা করেছেন ন্যাপেলসের মেয়র।

উল্লেখ্য, তিন দশকেরও বেশি সময় আগে যার হাত ধরে প্রথম ইতালি সেরা হয়েছিল শহরের ক্লাব (নাপোলি), সেই দিয়েগোর চলে যাওয়া ন্যাপেলসের মানুষের কাছে স্বজন হারানোর বেদনার থেকে কোনও অংশে কম নয়। ১৯৮৪ বার্সেলোনা ছেড়ে ন্যাপেলসে আগমণ ঘটেছিল বছর তেইশের মারাদোনার। নাপোলি তখন ছন্দহীন, দেশের প্রিমিয়র ডিভিশন ফুটবল লিগে টিকে থাকার জন্য আপ্রাণ চেষ্টা চালাচ্ছে। দিয়েগো আসতেই যেন কোনও এক জাদুকাঠির ছোঁয়ায় বদলে গিয়েছিল সবকিছু।

আর্জেন্তিনাকে বিশ্বকাপ এনে দেওয়ার পরের বছরেই মারাদোনা ইতালি সেরা করেছিলেন নাপোলিকে। ১৯৯০ আবার সেরা নাপোলি। মাঝে ১৯৮৮-৮৯ উয়েফা কাপ ঘরে এসেছিল ইতালির ক্লাবটির। ব্যস মারাদোনার হাত ধরে ওইটুকুই। এরপর থেকে আজও নাপোলি তাঁর হৃত সম্মান পুনরুদ্ধারের লক্ষ্যে।

Stadio San Paolo
People gathered outside the Stadio San Paolo on Wednesday night
Mourners in Naples
There are numerous murals and paintings of Maradona in Naples
Stadio San Paolo lit up
The stadium was illuminated on Wednesday following Maradona’s death
A visibly upset woman sat looking at tributes to Diego Maradona outside the San Paolo stadium
Fans continued to visit the San Paolo stadium on Thursday to pay their respects before the game
Tributes left in memory of Diego Maradona outside the San Paolo stadium
More tributes were left outside the San Paolo stadium before Thursday’s game
Napoli and Rijeka players observe a minute's silence in memory of Diego Maradona at the San Paolo stadium
There was an image of Diego Maradona on the video screen at the San Paolo stadium while the players warmed up and during a minute’s silence
Napoli players wearing shirts with 'Maradona 10' on the back before their Europa League match with Rijeka
Before the game all the Napoli players wore shirts with ‘Maradona 10’ on the back

 

130 ভিউ

Posted ১২:৩৫ অপরাহ্ণ | শুক্রবার, ২৭ নভেম্বর ২০২০

coxbangla.com |

এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

এ বিভাগের আরও খবর

Archive Calendar

রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি
 
১০১১১২১৩১৪১৫১৬
১৭১৮১৯২০২১২২২৩
২৪২৫২৬২৭২৮২৯৩০
৩১  

Editor & Publisher

Chanchal Dash Gupta

Member : coxsbazar press club & coxsbazar journalist union (cbuj)
cell: 01558-310550 or 01736-202922
mail: chanchalcox@gmail.com
Office : coxsbazar press club building(1st floor),shaheed sharanee road,cox’sbazar municipalty
coxsbazar-4700
Bangladesh
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন

ABOUT US :

coxbangla.com is a dedicated 24x7 news website which is published 2010 in coxbazar city. coxbangla is the news plus right and true information. Be informed be truthful are the only right way. Because you have the right. So coxbangla always offiers the latest news coxbazar, national and international news on current offers, politics, economic, entertainment, sports, health, science, defence & technology, space, history, lifestyle, tourism, food etc in Bengali.

design and development by : webnewsdesign.com