মঙ্গলবার ২১শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ৬ই আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

শিরোনাম

মঙ্গলবার ২১শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

শিরোনাম

তালেবানদের পুনরুত্থান : আফগানিস্তান নিয়ে পরাশক্তিগুলোর নতুন সমীকরণ

শনিবার, ৩১ জুলাই ২০২১
89 ভিউ
তালেবানদের পুনরুত্থান : আফগানিস্তান নিয়ে পরাশক্তিগুলোর নতুন সমীকরণ

কক্সবাংলা ডটকম :: তালেবানদের পুনরুত্থান আফগানিস্তানকে আবার বিশ্ব রাজনীতির কেন্দ্রে নিয়ে আসছে। পরাশক্তিগুলোর নতুন সমীকরণ তৈরি হচ্ছে। ভারত, চীন, রাশিয়াসহ কয়েকটি শক্তিশালী দেশকে নতুন করে হিসাব-নিকাশ কষতে হচ্ছে।

দুই দশক পর আফগানিস্তান থেকে সেনা প্রত্যাহারের ঘোষণা দিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র। ইতোমধ্যে দেশটিতে নিজেদের প্রধান বিমান ঘাঁটি থেকে সেনা সরিয়ে নিয়েছে তারা। এর পরপরই আফগানিস্তানের বিভিন্ন অঞ্চলের দখল নেয়া শুরু করেছে কট্টর ধর্মীয় গোষ্ঠী তালেবান।

দেশটিতে তালেবান ক্ষমতায় এলে সংকটে পড়তে পারে কিছু দেশের স্বার্থ। তালেবানের ক্ষমতা দখলের সম্ভাবনা যত বাড়ছে, গোষ্ঠীটির সঙ্গে নানা দরকষাকষি ও বোঝাপড়া করে নিতে চাইছে বৈশ্বিক ও আঞ্চলিক পরাশক্তিগুলো।

দুশ্চিন্তায় ভারত

আফগানিস্তানের হেরাত প্রদেশে হারি নদীর ওপর থাকা সালমা ড্যাম ছিল দেশটিতে ভারতের সবচেয়ে বড় প্রকল্প। এটি নতুন করে তৈরির পর নাম দেয়া হয়েছিল ভারত-আফগানিস্তান মৈত্রী সেতু। ২০১৬ সালে বাঁধটি উদ্বোধন করেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি।

৬ জুলাই বাঁধটিতে হামলা চালিয়ে ১৬ নিরাপত্তা কর্মীকে হত্যা করেছে কট্টর ধর্মীয় গোষ্ঠীটি।

এ ঘটনার কয়েক দিন পরেই কান্দাহার শহরের ভারতীয় কনস্যুলেটে কর্মরত কূটনীতিকদের দিল্লিতে ফিরিয়ে আনে ভারত ।

আফগান-ভারত সম্পর্কের প্রতীক হিসেবে বিবেচিত ওই বাঁধে হামলার পর তালেবানের উদ্দেশ্য নিয়ে মধ্যে শঙ্কিত দেশটি।

বিশ বছর আগে ২০০১ সালে যুক্তরাষ্ট্রের সামরিক অভিযানে তালেবান ক্ষমতা থেকে উৎখাত হওয়ার পর আফগানিস্তানে প্রভাব-প্রতিপত্তি বাড়াতে সবচেয়ে তৎপর হয়েছিল ভারত।

৩১ আগস্টের মধ্যে আফগানিস্তান থেকে নিজেদের সব সেনা প্রত্যাহারের ঘোষণা দিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র। এর মধ্যেই দেশের ৮৫ শতাংশ এলাকা নিজেদের কবজায় নেয়ার ঘোষণা দিয়েছে তালেবান।

জুন মাসে ফাঁস হওয়া যুক্তরাষ্ট্রের গোয়েন্দা প্রতিবেদন অনুযায়ী, সেনা প্রত্যাহারের ছয় মাসের মধ্যে বর্তমান কাবুল সরকারের পতন হতে পারে।

এমন পরিস্থিতিতে তালেবানের উত্থান ভারতকে দুশ্চিন্তায় ফেলেছে, কেননা আঞ্চলিক শক্তিগুলোর মধ্যে আফগানিস্তানে সবচেয়ে বেশি স্বার্থ ভারতের।

বিবিসি বাংলার এক প্রতিবেদন অনুযায়ী, আফগানিস্তানে প্রভাব বিস্তারে গত দুই দশকে প্রায় ৪০০ সামাজিক-অর্থনৈতিক এবং বড় বড় অবকাঠামো প্রকল্পে ৩০০ কোটি ডলারেও বেশি বিনিয়োগ করেছে ভারত। শিক্ষা, স্বাস্থ্য, ক্রীড়া, সাংস্কৃতিক উন্নয়নে ডজন ডজন প্রকল্প ছাড়াও দিলারাম-জারাঞ্জ মহাসড়ক নামে ২১৮ কিমি দীর্ঘ গুরুত্বপূর্ণ একটি সড়ক তৈরি করে দিয়েছে দেশটি। কাবুলে নতুন আফগান পার্লামেন্ট ভবনটিও তৈরি করেছে তারা।

মধ্য এশিয়ার বাজারে ঢোকার জন্য ভারতের জন্য আফগানিস্তানকে দরকার। আফগানিস্তানের ভেতর দিয়ে ইরান ও মধ্য এশিয়ার সঙ্গে দুটো পাইপলাইন তৈরির পরিকল্পনা রয়েছে দেশটির।

এছাড়া কাশ্মীর নিয়ে পাকিস্তানের সঙ্গে এবং লাদাখ নিয়ে চীনের সাথে বিপজ্জনক দ্বন্দ্ব রয়েছে ভারতের। এখন তালেবান ক্ষমতা দখলের পর আফগানিস্তান শত্রু রাষ্ট্রে পরিণত হলে ভারতের জন্য সেটি বড়রকমের দুঃস্বপ্নে পরিণত হবে।

কেননা এর আগে আফগানিস্তান থেকে মুজাহিদরা এসে কাশ্মীরের স্বাধীনতাকামীদের সঙ্গে যোগ দিয়েছিল। তালেবান ক্ষমতায় এলে বা তাদের প্রভাব বাড়লে এ ঘটনার পুনরাবৃত্তি হতে পারে।

তালেবান ক্ষমতায় আসলে ভারতের এসব স্বার্থ ও সংকটের কী হবে এমন চিন্তায় পড়েছে দেশটি।

তালেবানের উত্থানের সম্ভাবনায় অন্য সব আঞ্চলিক পরাশক্তি গোষ্ঠীটির সঙ্গে নানা দেনদরবারে গেলেও ভারত বিষয়টিকে এড়িয়ে আসছিল। এর অন্যতম কারণ ছিল বর্তমান আফগান সরকারের সঙ্গে ভারতের সম্পর্ক ও তালেবানের পাকিস্তান ঘনিষ্ঠতা।

বিশ্ব পরাশক্তিদের আগ্রহের কেন্দ্রে তালেবান

আফগানিস্তানের হেরাতে সালমা জলবিদ্যুৎ প্রকল্প পরিদর্শনে ২০১৬ সালে দেশটি সফর করেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। ছবি: এএফপি

তবে শেষ মুহূর্তে ভারতও তালেবানের সঙ্গে এক ধরনের সমঝোতায় আসতে চাইছে বলে ইঙ্গিত দিয়েছে বেশ কয়েকটি গণমাধ্যম।

২১ জুন ভারতীয় সংবাদমাধ্যম দ্য হিন্দু তাদের এক প্রতিবেদনে জানিয়েছে কাতারের রাজধানী দোহায় তালিবানের সঙ্গে বৈঠক করেছেন ভারতীয় কর্মকর্তারা। বিষয়টি সংবাদমাধ্যমটিকে নিশ্চিত করেন কাউন্টার টেরোরিজম অ্যান্ড রেডিয়েশন অফ কনফ্লিক্ট রেজুলেশনে কাতারের বিশেষ দূত মুতলাক বিন মাজেদ আল কাহতানি।

তবে বিষয়টি আনুষ্ঠানিকভাবে কোনো মন্তব্য করতে রাজি হয়নি ভারত।

জুলাইয়ের প্রথম সপ্তাহেও মস্কো যাওয়ার পথে ইরানের তেহরানে নামেন দেশটির পররাষ্ট্রমন্ত্রী এস জয়শঙ্কর। তিনি যখন ওইসব দেশের রাজধানীতে যান, তখন সেখানে তালেবান নেতারাও ছিলেন। ধারণা করা হচ্ছে, তালেবানের ক্ষমতা দখলের বিষয়ে সন্দিহান থাকার চেয়ে গোষ্ঠীটির সঙ্গে এবার সরাসরি আলোচনায় যেতে চাইছে ভারত।

২৯ জুন তালেবানের সঙ্গে ঘনিষ্ঠ পাকিস্তানের সাংবাদিক সামি ইউসুফজাই এক টুইট বার্তায় বলেন, ‘তালেবান সূত্র নিশ্চিত করেছে তালেবান নেতা মোল্লা বারাদার ও খায়রুল্লাহ শেখ দিলওয়ারের সঙ্গে বৈঠক হয়েছে ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী এস জয়শঙ্করের। যেখানে তালেবান নেতারা তাকে ভরসা দিয়েছেন, ভারতের সঙ্গে তাদের সম্পর্ক পাকিস্তানের ইচ্ছামতো হবে না।’

চীনতালেবান সুসম্পর্ক

আফগানিস্তানের প্রধান কয়েকটি শহর দখলের পর বুধবার প্রথমবারের মতো তালেবানের কোনো শীর্ষ নেতা হিসেবে চীন সফর করেছেন দলটির সহপ্রতিষ্ঠাতা মোল্লা আবদুল ঘানি বারাদার।

দেশটির উত্তরাঞ্চলের শহর তিয়ানজিনে চীনা পররাষ্ট্রমন্ত্রী ওয়াং য়ির সঙ্গে অনুষ্ঠিত ওই বৈঠকে ঘানি বারাদারের নেতৃত্বে নয় সদস্যের একটি প্রতিনিধি দল অংশ নেন।

এ সময় ওয়াং য়ি বলেন, ‘তালেবান আফগানিস্তানের প্রধান রাজনৈতিক ও সামরিক শক্তি। দেশের শান্তি, সংহতি ও পুনর্গঠন প্রক্রিয়াতেও গোষ্ঠীটি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে।’

আফগানিস্তানের সঙ্গে প্রতিবেশী চীনের প্রায় ৮০ কিলোমিটার সীমান্ত রয়েছে। ওয়াখান করিডর নামে ওই অঞ্চলটি পড়েছে চীনের উইঘুর মুসলমান অধ্যুষিত শিনজিয়াং প্রদেশের সঙ্গে। অভিযোগ রয়েছে, উইঘুরদের বিভিন্ন ক্যাম্পে আটকে রেখে নিপীড়ন চালাচ্ছে চীন। এর পরিপ্রেক্ষিতে শিনজিয়াংয়ের স্বাধীনতার দাবিতে সশস্ত্র লড়াই চালিয়ে আসছে ইস্ট তুর্কিস্তান ইসলামিক মুভমেন্ট (ইটিআইএম)।

চীনের ভয়, তালেবান ক্ষমতা দখল করলে আরও নির্বিঘ্নে ওয়াখান করিডর ব্যবহার করতে পারবে ইটিআইএম যোদ্ধারা।

বুধবারের বৈঠকের পর তালেবান নেতা মোল্লা বারাদার প্রতিশ্রুতি দেন, আফগানিস্তানের মাটি ব্যবহার করে চীনের বিরুদ্ধে কাউকে তৎপরতা চালাতে দেবে না তালেবান।

চীনের রাষ্ট্র নিয়ন্ত্রিত গণমাধ্যম গ্লোবাল টাইমসের সম্পাদক হু জিজিন এক নিবন্ধে লিখেছেন, তালেবানকে আর সন্ত্রাসী সংগঠন বলে না যুক্তরাষ্ট্র। সম্প্রতি যুক্তরাজ্যের প্রতিরক্ষামন্ত্রী বেন ওয়ালেস বলেছেন, তালেবান আফগানিস্তানের ক্ষমতায় আসলে তাদের সঙ্গে কাজ করবে দেশটি। এমন মুহূর্তে চীন যদি তালেবানের দিক থেকে মুখ ফিরিয়ে থাকে, তাহলে সেটি হবে নিজেই কূটনৈতিক ফাঁদে পড়ার মতো ঘটনা।

বিশ্ব পরাশক্তিদের আগ্রহের কেন্দ্রে তালেবান
বুধবার চীনের তিনজিয়ান শহরে এক বৈঠকের আগে তালেবান নেতা মোল্লা আব্দুল ঘানি বারাদারকে স্বাগত জানাচ্ছেন চীনের পররাষ্ট্রমন্ত্রী ওয়াং য়ি। ছবি: এএফপি

যুক্তরাষ্ট্র ভিত্তিক থিংক ট্যাংক র‍্যান্ড করপোরেশনের বিশ্লেষক ডেরেক গ্রসম্যান ফরেন পলিসিতে প্রকাশিত এক নিবন্ধে লিখেছেন, যুক্তরাষ্ট্র পরবর্তী আফগানিস্তানে আরেকটি কারণে নিজের অবস্থান সংহত করতে চাইছে চীন। সেটি হলো দেশটির পর্বতাঞ্চলে মাটির নিচে থাকা ট্রিলিয়ন ডলারের খনিজ সম্পদ। চীন এই খনিজ সম্পদ উত্তোলন করতে চায়।

এছাড়া আফগানিস্তানের রাজধানী কাবুল থেকে পাকিস্তানের পেশওয়ার শহর পর্যন্ত সড়ক নির্মাণ প্রকল্পের সঙ্গে জড়িত রয়েছে চীন। এটি চীন ও পাকিস্তানকে যুক্ত করবে। এর ফলে চীনের উচ্চাভিলাষী প্রকল্প ‘বেল্ট অ্যান্ড রোড’ উদ্যোগের সঙ্গেও যুক্ত হবে কাবুল।

আফগানিস্তানে এসব সুবিধা পাওয়ার আগে দেশটিতে শান্তিপূর্ণ অবস্থা বজায় রাখার বিষয়ে মনোযোগী হতে হবে চীনকে। আফগান সরকারের সঙ্গে চীনের প্রতিদ্বন্দ্বী ভারতের সুসম্পর্ক রয়েছে। এমন প্রেক্ষাপটে তালেবানের ক্ষমতা দখলের সম্ভাবনা যত জোরালো হচ্ছে, আফগানিস্তানে চীনের জন্য সুখবরও তত বাড়ছে।

বিবিসি বাংলাকে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে কুয়ালালামপুরের মালয় বিশ্ববিদ্যালয়ের ইন্সটিটিউট অব চায়নার অধ্যাপক ড. সৈয়দ মাহমুদ আলী বলেন, ‘আফগানিস্তানে সরাসরি অর্থনৈতিক এবং ব্যবসায়িক স্বার্থ হাসিলের চেয়ে আফগানিস্তানের স্থিতিশীলতা এখন চীনের কাছে অনেক বেশি গুরুত্বপূর্ণ।

রাশিয়ার উদ্বেগ

তালেবানের ক্ষমতা দখল নিয়ে উদ্বেগে রয়েছে রাশিয়াও। নব্বইয়ের দশকে তালেবানের প্রতিষ্ঠার অনেক আগেই এর অনেক সদস্য আফগানিস্তানে সোভিয়েত আগ্রাসনের বিরুদ্ধে লড়েছিলেন। সেই সূত্রেও রাশিয়ার সঙ্গে এক ধরনের ঐতিহাসিক বিরোধ রয়েছে গোষ্ঠীটির।

১ জুলাই কাবুলের পাশের বাগরামের প্রধান বিমান ঘাঁটি থেকে নিজেদের সেনা প্রত্যাহার করে যুক্তরাষ্ট্র। এর তিন দিন পর ৪ জুলাই তালেবানের হামলার ভয়ে সীমান্ত পেরিয়ে তাজিকিস্তানে চলে যায় আফগান নিরাপত্তা বাহিনীর প্রায় ১ হাজার সদস্য।

তাজিকিস্তান সীমান্ত সংলগ্ন উত্তরাঞ্চলীয় প্রদেশ বাদাখশানের অন্তত ছয়টি প্রধান জেলা দখল করেছে তালেবান।

তাজিকিস্তানের দুশানবেতে রাশিয়ার সামরিক ঘাঁটি থাকায় এ ঘটনায় উদ্বিগ্ন দেশটি নিজেদের দক্ষিণ সীমান্তে নিরাপত্তা জোরদারের জন্য ২০ হাজার সেনা মোতায়েন করেছে।

বিশ্ব পরাশক্তিদের আগ্রহের কেন্দ্রে তালেবান
মস্কোতে রাশিয়ার বিশেষ দূতের সঙ্গে দেখা করার আগে তালেবান নেতারা।

৮ জুলাই মস্কোতে আফগানিস্তানে রাশিয়ার বিশেষ দূত জামির কুবালোভের সঙ্গে দেখা করে তালেবানের একটি প্রতিনিধি দল। রাশিয়ার পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের বিবৃতিতে জানানো হয়, উত্তর আফগানিস্তানে সংঘাত বাড়ার ঘটনায় উদ্বেগ জানিয়েছেন কুবালোভ। একই সঙ্গে এই সংঘাত যেন আফগানিস্তানের বাইরেও ছড়িয়ে না পড়ে সে বিষয়ে তালেবানের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন তিনি।

বৈঠকে তালেবানের প্রতিনিধি দল জানায়, তারা আফগানিস্তানের সঙ্গে মধ্য এশিয়ার দেশগুলোর সীমান্তকে অস্থির করে হয়ে উঠতে দেবে না। একই সঙ্গে জঙ্গী সংগঠন ইসলামিক স্টেট আফগানিস্তানে যাতে ঘাঁটি গাড়তে না পারে রাশিয়াকে সেই প্রতিশ্রুতিও দিয়েছে গোষ্ঠীটি।

পশ্চিমা দেশগুলোর অবস্থান

এদিকে ১৩ জুলাই ডেইলি টেলিগ্রাফকে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে যুক্তরাজ্যের পররাষ্ট্র মন্ত্রী বেন ওয়ালেস বলেন, তালেবানরা আফগানিস্তানের ক্ষমতায় আসলে তাদের সঙ্গে কাজ করবে যুক্তরাজ্য। তবে তালেবান মানবাধিকার লঙ্ঘনের সঙ্গে জড়িত হলে এই সিদ্ধান্তের পরিবর্তন হতে পারে বলেও জানান তিনি।

বেন ওয়ালেস বলেন, ‘তালেবান যা চায় সেটি হলো আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি। জাতি গঠনের জন্য তাদের টাকা ও সহায়তা দরকার। সন্ত্রাসী তকমা থাকলে সেটি তারা করতে পারবে না।’

যুক্তরাজ্যের পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘শান্তি প্রক্রিয়ায় আপনি সহযোগী না হলে বিচ্ছিন্নতার ভয় রয়েছে। এটি তাদেরকে সেখানেই নিয়ে যাবে, এর আগে তারা (তালেবান) যা ছিল।’

এদিকে আফগানিস্তান থেকে ন্যাটোভুক্ত দেশগুলোর সব সেনা সেপ্টেম্বরে চলে যাওয়ার ঘোষণার পরও কাবুলের প্রধান বিমানবন্দর পাহারায় নিজেদের কয়েকজন সেনা রেখে যাওয়ার পরিকল্পনা করছে তুরস্ক। এ ঘটনায় ক্ষুব্ধ তালেবান দেশটিকে সতর্ক করে দিয়েছে।

তুরস্কের এ পরিকল্পনার বিষয়ে তালেবান এক বিবৃতিতে বলেছে, ‘ইসলামিক আমিরাত অফ আফগানিস্তান তুরস্কের এ সিদ্ধান্তের নিন্দা জানাচ্ছে। তুরস্কের কর্মকর্তারা তাদের সিদ্ধান্ত পুনর্বিবেচনায় ব্যর্থ হলে এবং আমাদের দেশ দখলের প্রক্রিয়া জারি রাখলে ইসলামিক আমিরাত তাদের বিরুদ্ধে অবস্থান নেবে।’

বিশ্ব পরাশক্তিদের আগ্রহের কেন্দ্রে তালেবান
কাবুলে আফগান শিশুদের চকোলেট দিচ্ছেন তুরস্কের এক সেনা। ছবি: এএফপি

তালেবান আরও জানিয়েছে, এ ক্ষেত্রে পরিণতির দায় তাদের নিতে হবে, যারা আফগানিস্তানের অভ্যন্তরীণ বিষয়ে হস্তক্ষেপ করবে।

এমন বিবৃতির পর আফগানিস্তানে তালেবানের কর্মকাণ্ডের ওপর সতর্ক দৃষ্টি রাখছে তুরস্ক।

মঙ্গলবার গণমাধ্যমের সামনে দেয়া এক বক্তব্যে তালেবানের সঙ্গে আলোচনা করতে চান বলে জানিয়েছেন তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়েপ এরদোয়ান।

বিমানবন্দরে নিজেদের সেনা রাখার বিষয়টি টেনে তিনি বলেন, ‘তালেবান যেভাবে যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে আলোচনায় বসেছে, তারা তুরস্কের সঙ্গে একই বিষয় নিয়ে আরও সহজে আলোচনা করতে পারে।’

সেনা প্রত্যাহারের বিষয়ে গত বছরের ফেব্রুয়ারিতে তালেবানের সঙ্গে চুক্তি করে যুক্তরাষ্ট্র। এতে যুক্তরাষ্ট্রের নিরাপত্তার জন্য কোনো হুমকি যাতে তৈরি না হয় সে বিষয়ে খেয়াল রাখতে সম্মত হয়েছে তালেবান। এর আগে যুক্তরাষ্ট্র তালেবানকে সন্ত্রাসী সংগঠন বলে আসলেও নতুন চুক্তিপত্রের কোথাও গোষ্ঠীটিকে ‘সন্ত্রাসী’ সংগঠন হিসেবে উল্লেখ করা হয়নি। চুক্তিপত্রে শান্তিপূর্ণ সংলাপের ভেতর দিয়ে আফগানিস্তানে যেই সরকার গঠন করুক না কেন, এ বিষয়ে হস্তক্ষেপ না করারও অঙ্গীকার করেছে যুক্তরাষ্ট্র। পুরো ঘটনাকে যুক্তরাষ্ট্রের পরাজয় ও নিজেদের বিজয় হিসেবে দেখছে তালেবান নেতারা।

বিশ্ব পরাশক্তিদের আগ্রহের কেন্দ্রে তালেবান
আফগানিস্তানের জালালাবাদ শহরের রাস্তায় কয়েকজন তালেবান যোদ্ধা। ছবি: এএফপি

ভারতে দুই দিনের সফরে এসে বুধবার যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্র মন্ত্রী অ্যান্টনি ব্লিংকেন জানান, আফগানিস্তানে স্থায়ী শান্তি প্রতিষ্ঠা করতে আলোচনার শান্তিপূর্ণ পথেই এগোতে চায় যুক্তরাষ্ট্র।

এক যৌথ সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেন, ‘তালেবান বহুদিন ধরেই আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি চাইছে। চাইছে তাদের ওপর থেকে নিষেধাজ্ঞা তুলে নেয়া হোক, তাদের নেতারা যেন দুনিয়ায় অবাধে ঘুরে বেড়াতে পারেন।

‘কিন্তু আফগানিস্তানে জোর করে ক্ষমতা দখল করতে গেলে বা নিজেদের লোকদের ওপর অত্যাচার করে সে লক্ষ্য পূরণ হবে না।’

ব্লিংকেন বলেন, ‘এটা ঠিক যে গত সপ্তাহে আমরা বেশ কয়েকটি জেলা সদরে তালেবানের অগ্রযাত্রা দেখেছি। প্রাদেশিক কয়েকটি রাজধানীও তারা কবজা করতে চাইছে। যে সব এলাকা তারা দখল করেছে, সেখানে নির্যাতন চালানোরও খবর আসছে, যেগুলো সত্যিই বিচলিত করার মতো।

২০০১ সালের ১১ সেপ্টেম্বর টুইন টাওয়ারে হামলা চালানো জঙ্গি সংগঠন আল-কায়েদার সঙ্গে তালেবানের সম্পর্কের জেরে আফগানিস্তানে সে সময় সামরিক অভিযান চালায় যুক্তরাষ্ট্রের নেতৃত্বাধীন ন্যাটোভুক্ত দেশগুলো।

বিশ্ব পরাশক্তিদের আগ্রহের কেন্দ্রে তালেবান
আফগানিস্তানের রাজধানী কাবুলের একটি মসজিদ প্রাঙ্গণ। ছবি:এএফপি

মিত্র বাহিনীর সম্মিলিত অভিযানে ওই বছরই আফগানিস্তানের ক্ষমতা থেকে তালেবানকে উৎখাত করা হয়। তালেবান উৎখাত হলেও আফগানিস্তানে দীর্ঘ প্রায় ২০ বছর অবস্থান করে যুক্তরাষ্ট্র ও এর মিত্র ন্যাটোভুক্ত দেশের সেনারা। চলতি বছরের ১১ সেপ্টেম্বরের আগেই আফগানিস্তান থেকে সব সেনা সরাতে নিজেদের সেনাবাহিনীকে নির্দেশ দেন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন। এপ্রিলে বাইডেনের ওই ঘোষণার পর ন্যাটোর অন্য সদস্যরাষ্ট্রগুলোও আফগানিস্তান থেকে তাদের সেনা প্রত্যাহারের কথা বলে এবং ধীরে ধীরে দক্ষিণ এশিয়ার দেশটি থেকে বিদেশি সেনা সরতে শুরু করে।

এর ধারাবাহিকতায় ১ জুলাই বিদেশি সেনাদের গুরুত্বপূর্ণ বাগরাম বিমানঘাঁটি ছেড়ে যায় যুক্তরাষ্ট্র ও মিত্র বাহিনী। তবে সেপ্টেম্বর নয়, ৩১ আগস্টের মধ্যেই আফগানিস্তান থেকে নিজেদের সব সেনা প্রত্যাহারের এরই মধ্যে ঘোষণা দিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র।

89 ভিউ

Posted ৭:৪৩ অপরাহ্ণ | শনিবার, ৩১ জুলাই ২০২১

coxbangla.com |

এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

এ বিভাগের আরও খবর

Archive Calendar

রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি
 
১০১১
১২১৩১৪১৫১৬১৭১৮
১৯২০২১২২২৩২৪২৫
২৬২৭২৮২৯৩০  

Editor & Publisher

Chanchal Dash Gupta

Member : coxsbazar press club & coxsbazar journalist union (cbuj)
cell: 01558-310550 or 01736-202922
mail: chanchalcox@gmail.com
Office : coxsbazar press club building(1st floor),shaheed sharanee road,cox’sbazar municipalty
coxsbazar-4700
Bangladesh
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন

ABOUT US :

coxbangla.com is a dedicated 24x7 news website which is published 2010 in coxbazar city. coxbangla is the news plus right and true information. Be informed be truthful are the only right way. Because you have the right. So coxbangla always offiers the latest news coxbazar, national and international news on current offers, politics, economic, entertainment, sports, health, science, defence & technology, space, history, lifestyle, tourism, food etc in Bengali.

design and development by : webnewsdesign.com