মঙ্গলবার ৭ই ফেব্রুয়ারি, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ | ২৪শে মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

শিরোনাম

মঙ্গলবার ৭ই ফেব্রুয়ারি, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ

শিরোনাম

পুঁজিবাজারে সূচক সামান্য বাড়লেও সর্বনিম্ন দরে নেই ক্রেতা!

বুধবার, ৩০ নভেম্বর ২০২২
56 ভিউ
পুঁজিবাজারে সূচক সামান্য বাড়লেও সর্বনিম্ন দরে নেই ক্রেতা!

কক্সবাংলা ডটকম(২৯ নভেম্বর) :: সপ্তাহের তৃতীয় কার্যদিবস মঙ্গলবার (২৯ নভেম্বর) সূচক বৃদ্ধির মধ্য দিয়ে দেশের শেয়ারবাজারে লেনদেন হয়েছে। এদিন দেশের প্রধান শেয়ারবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) প্রধান সূচক বেড়েছে ১৪.৫১ পয়েন্ট। তবে অপর শেয়ারবাজার চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জের (সিএসই) সূচক কমেছে ১০ পয়েন্ট। এতে করে আজ দেশের দুই শেয়ারবাজারই বিপরীতমূখী আচরণ করেছে।ডিএসইতে সূচক ও অধিকাংশ কোম্পানির শেয়ারের দাম বাড়লেও কমেছে লেনদেনের পরিমাণ। ফলে সোমবার (২৮ নভেম্বর) সূচক পতনের পর আজ মঙ্গলবার সূচক বাড়ল। তবে তার আগে প্রথম কর্মদিবসও সূচকের উত্থান হয়েছিল। এ নিয়ে চলতি সপ্তাহের তিন কর্মদিবসের মধ্যে দুদিন সূচকের উত্থান হলো।

এদিন পুঁজিবাজার পতনের উপক্রম হয়েও শেষ পর্যন্ত সূচকে ১৪ পয়েন্ট যোগ হলেও খাদের কিনারে দাঁড়িয়েছে পুঁজিবাজার। তিন সপ্তাহ ধরে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ বা ডিএসইতে লেনদেন কমে দেড় বছরের সর্বনিম্ন অবস্থানে চলে এসেছে।

গত আট কর্মদিবসের মধ্যে চার দিনই লেনদেন হলো ৩০০ কোটি টাকার ঘরে। বাকি চার দিনের মধ্যে তিন দিন ৪০০ কোটি ও এক দিন ৫০০ কোটি টাকার বেশি লেনদেন হয়েছে।

পুঁজিবাজারের বর্তমান পরিস্থিতি থেকে উত্তরণে লক্ষ্যে আগের দিন সোমবার ডিএসই ও ডিএসই ব্রোকার্স অ্যাসোসিয়েশনের মধ্যে বৈঠক হয়। সেখান সিদ্ধান্ত হয়, বাজারের উন্নয়নে নিয়ন্ত্রক সংস্থা বিএসইসি ও সরকারের নীতি নির্ধারণী পর্যায়ের সঙ্গে আলোচনা করা হবে।

ওইদিন ডিএসই থেকে সংবাদ বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে এ খবর জানানোর পরেও তা বিনিয়োগকারীদের আশাবাদী করতে পারেনি।

মঙ্গলবার হাতবদল হয়েছে ৩৩৪ কোটি ৩ লাখ ৭৪ হাজার টাকা। এর চেয়ে কম লেনদেন হয়েছে গত বৃহস্পতিবার। সেদিন হাতবদল হয়েছিল ৩২৩ কোটি ৮০ লাখ ২৮ হাজার টাকা, যা গত দেড় বছরে সর্বনিম্ন।

এর চেয়ে কম লেনদেন হয় ২০২১ সালের ৪ এপ্রিল। এর পরদিন থেকে করোনার দ্বিতীয় ঢেউয়ের কারণে চলাচলে বিধিনিষেধ বা লকডাউনের ঘোষণা ছিল।

ওইদিন হাতবদল হয়েছিল ২৩৬ কোটি ৬০ লাখ ৭৪ হাজার টাকার শেয়ার। তবে লকডাউনেও লেনদেন চলবে, এই বিষয়ে আনুষ্ঠানিক ঘোষণা আসার পরদিন থেকেই ঘুরে দাঁড়ায় বাজার।

এরপর ৩০০ কোটি টাকার ঘরে লেনদেন হয়েছে হাতে গোনা কয়েকদিন। কিন্তু বৃহস্পতিবার ও মঙ্গলবারের চেয়ে কম লেনদেন সেবারও হয়নি।

এমনকি গত ২৪ অক্টোবর কারিগরি ত্রুটিতে কয়েক ঘণ্টা লেনদেন বন্ধ থাকার দিনও মঙ্গলবারের চেয়ে বেশি ছিল লেনদেন। সেদিন হাতবদল হয় ৩৩৪ কোটি ৭৬ লাখ ৭৩ হাজার টাকা।

পুঁজিবাজারে উত্থানের এক পর্যায়ে লেনদেন ছাড়িয়ে যায় ৩ হাজার কোটি টাকার ঘর। তবে গত বছরের সেপ্টেম্বরের দ্বিতীয় সপ্তাহ থেকে যে দর সংশোধন শুরু হয়, তা আর শেষ হওয়ার নাম নেই।

পুঁজিবাজারে এখনকার আতঙ্কের কারণ বিশ্ব অর্থনীতিতে মন্দার আশঙ্কার মধ্যে দেশের অর্থনৈতিক চাপ। এখন সব শেয়ারের সর্বনিম্ন মূল্য বেঁধে দেয়া আছে, এ কারণে প্রায় আড়াইশর মতো কোম্পানির শেয়ারের দর কমছে না। কিন্তু এই সর্বনিম্ন দরে ক্রেতাও নেই।

দরপতনের তুলনায় দরবৃদ্ধি চার গুণের বেশি হলেও ফ্লোর প্রাইসে পড়ে রয়েছে দুই শতাধিক কোম্পানি।

যে ৩৭০টি কোম্পানির লেনদেন হয়েছে, তার মধ্যে দরপতন হয়েছে ১৪টির, বিপরীতে দরবৃদ্ধি হয়েছে ৬৩টির। আর আগের দরে লেনদেন হয়েছে ২৪০টি কোম্পানির, যার দুই-একটি বাদে প্রায় সবই ফ্লোর প্রাইসে গড়াগড়ি খাচ্ছে।

দরবৃদ্ধির সংখ্যা বেশি হওয়ায় ডিএসইর সূচক বেড়েছে, যদিও দিনের শুরুর দিকে পতনের আশঙ্কা তৈরি হয়েছিল। বেলা ১১টা ৪৮ মিনিটেও আগের দিনের চেয়ে ২০ পয়েন্ট কমে গিয়েছিল সূচক। সেখান থেকে ধারাবাহিকভাবে দর বেড়ে দিন শেষে ১৪ পয়েন্ট যোগ হয়ে প্রধান সূচক ডিএসইএক্স অবস্থান ৬ হাজার ২১২ পয়েন্টে।

সূচক বাড়লেও মঙ্গলবার ৭৩টি কোম্পানির একটি শেয়ারও হাতবদল হয়নি। বিপুল সংখ্যক বিক্রয়াদেশের বিপরীতে নগণ্য ক্রেতা ছিল দেড় শতাধিক কোম্পানির। এমন ১৫০টি কোম্পানির শেয়ার লেনদেন হয়েছে এক হাজারের নিচে।

১ কোটি টাকার বেশি লেনদেন হয়েছে মাত্র ৪৯টি শেয়ারের। এই লেনদেনের পরিমাণ ২৩৮ কোটি ১ লাখ ৩৯ হাজার টাকা। বাকি ২৬৮টি কোম্পানিতেও ১০০ কোটি টাকা লেনদেন করতে পারেনি। হাতবদল হয়েছে মাত্র ৯৬ কোটি ২ লাখ ৩৫ হাজার টাকা।

লেনদেনর বিষয়ে ট্রেজার সিকিউরিটিজের শীর্ষ কর্মকর্তা মোস্তফা মাহবুব উল্লাহ বলেন, ‘ফান্ড ইউজ করছেন না বিনিয়োগকারীরা। যারা শেয়ার বিক্রি করে ক্যাশ করতে পেরেছিলেন, তারা সবাই সাইডলাইনে রয়েছেন, বাজার পর্যবেক্ষণ করছেন। আর যারা ক্যাশ করতে পারেননি, ফ্লোর প্রাইসে বা লোকসানের কারণে আটকে আছেন।

‘বিনিয়োগে না যাওয়ার পেছনে একটি আশঙ্কা কাজ করছে, তা হলো- বর্তমান অবস্থা থেকে বাজার যদি ঊর্ধ্বমুখী না হয়, আর নীতিনির্ধারকরা যদি ফ্লোর প্রাইস তুলে দেন, তাহলে পতনের আশঙ্কা করছেন বিনিয়োগকারীরা। ফলে তারা নিষ্ক্রিয় থাকছেন।’

সূচকে প্রভাব যাদের

সবচেয়ে বেশি ৮ দশমিক ২৩ পয়েন্ট সূচক বাড়িয়েছে বিকন ফার্মা। এদিন শেয়ারটির দর বেড়েছে ৫ দশমিক ২৬ শতাংশ।

বেক্সিমকো ফার্মার দর ১ দশমিক ৮৫ শতাংশ বাড়ায় সূচক বেড়েছে ২ দশমিক ৯৬ পয়েন্ট।

সি-পার্ল সূচকে যোগ করেছে ২ দশমিক ৩৫ পয়েন্ট। কোম্পানির দর বেড়েছে ৪ দশমিক ৪৯ শতাংশ।

এর বাইরে সূচকে পয়েন্ট যোগ করেছে লাফার্জ হোলসিম বাংলাদেশ, ওরিয়ন ফার্মা, বাংলাদেশ শিপিং করপোরেশন, ইউনিক হোটেল অ্যান্ড রিসোর্ট, ইস্টার্ন হাউজিং, অলিম্পিক ইন্ডাস্ট্রিজ ও শাহজালাল ইসলামী ব্যাংক।

সব মিলিয়ে এই ১০টি কোম্পানি সূচক বাড়িয়েছে ২০ দশমিক ৮৬ পয়েন্ট।

বিপরীতে সবচেয়ে বেশি ৬ দশমিক ১০ পয়েন্ট সূচক কমিয়েছে স্কয়ার ফার্মা। কোম্পানির দর কমেছে ১ দশমিক ৩২ শতাংশ।

ওরিয়ন ইনফিউশনের ৭ দশমিক ৫০ শতাংশ দরপতনে সূচক কমেছে ২ দশমিক ১৩ পয়েন্ট।

সোনালী পেপারের কারণে সূচক হারিয়েছে ১ দশমিক ৬১ পয়েন্ট। এদিন কোম্পানির শেয়ারদর কমেছে ২ দশমিক ৯০ শতাংশ।

এ ছাড়াও নাভানা ফার্মা, ইসলামী ব্যাংক, বসুন্ধরা পেপার, কোহিনূর কেমিক্যাল, যমুনা অয়েল, সিনোবাংলা ও প্রগতি লাইফ ইন্স্যুরেন্সের দরপতনে সূচক কমেছে।

সব মিলিয়ে এই ১০টি কোম্পানি সূচক কমিয়েছে ১৪ দশমিক ২৬ পয়েন্ট।

দরবৃদ্ধির শীর্ষ ১০

সবচেয়ে বেশি ৯ দশমিক ৬৬ শতাংশ দর বেড়ে অ্যাডভেন্ট ফার্মার শেয়ার লেনদেন হয়েছে ২৬ টাকা ১০ পয়সায়, যা আগের দিন ছিল ২৩ টাকা ৮০ পয়সায়।

এরপরেই ৮ দশমিক ৭৪ শতাংশ বেড়ে জুট স্পিনার্সের শেয়ার লেনদেন হয়েছে ২৩১ টাকা ২০ পয়সায়, যা আগের দিন ছিল ২১২ টাকা ৬০ পয়সা।

তালিকার তৃতীয় স্থানে ছিল মেট্রো স্পিনিং। ৬ দশমিক ২৬ শতাংশ দর বেড়ে শেয়ারটি হাতবদল হয়েছে ৪৫ টাকা ৬০ পয়সায়। আগের দিনের দর ছিল ৪৩ টাকা ১০ পয়সা।

এ ছাড়া রূপালী লাইফ ইন্স্যুরেন্স, বিকন ফার্মা ও সেনা কল্যাণ ইন্স্যুরেন্সের দর বেড়েছে ৫ শতাংশের ওপরে। আর ইস্টার্ন হাউজিং, চার্টার্ড লাইফ ইন্স্যুরেন্স, বিডি ওয়েল্ডিং ও সি-পার্লের দর বেড়েছে ৪ শতাংশের বেশি।

দরপতনের শীর্ষ ১০

সবচেয়ে বেশি ৭ দশমিক ৪৯ শতাংশ দর কমেছে ওরিয়ন ইনফিউশনের। প্রতিটি শেয়ার লেনদেন হয়েছে ৫২৪ টাকা ৪০ পয়সায়, যা আগের দিন ছিল ৫৬৬ টাকা ৯০ পয়সা।

দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ৭ দশমিক ৩০ শতাংশ দর কমে সিনোবাংলা ইন্ডাস্ট্রিজের শেয়ার লেনদেন হয়েছে ৬২ টাকা ২০ পয়সায়। আগের দিনের দর ছিল ৬৭ টাকা ১০ পয়সা।

এরপরই দর কমেছে নাভানা ফার্মার। ৫ দশমিক ৮২ শতাংশ কমে শেয়ারটি লেনদেন হয়েছে ৯০ টাকা ৬০ পয়সায়। যা আগের দিন ছিল ৯৬ টাকা ২০ পয়সা।

এ ছাড়া তালিকায় পরের স্থানে ছিল সোনালী পেপার, বসুন্ধরা পেপার, প্রগতি লাইফ ইন্স্যুরেন্স, কোহিনূর কেমিক্যাল, স্কয়ার ফার্মা, ইসলামী ব্যাংক ও যমুনা অয়েল।

56 ভিউ

Posted ১২:৪৪ পূর্বাহ্ণ | বুধবার, ৩০ নভেম্বর ২০২২

coxbangla.com |

এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

এ বিভাগের আরও খবর

Editor & Publisher

Chanchal Dash Gupta

Member : coxsbazar press club & coxsbazar journalist union (cbuj)
cell: 01558-310550 or 01736-202922
mail: chanchalcox@gmail.com
Office : coxsbazar press club building(1st floor),shaheed sharanee road,cox’sbazar municipalty
coxsbazar-4700
Bangladesh
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন

ABOUT US :

coxbangla.com is a dedicated 24x7 news website which is published 2010 in coxbazar city. coxbangla is the news plus right and true information. Be informed be truthful are the only right way. Because you have the right. So coxbangla always offiers the latest news coxbazar, national and international news on current offers, politics, economic, entertainment, sports, health, science, defence & technology, space, history, lifestyle, tourism, food etc in Bengali.

design and development by : webnewsdesign.com