শনিবার ২৩শে জানুয়ারি, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ৯ই মাঘ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

শিরোনাম

শনিবার ২৩শে জানুয়ারি, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

শিরোনাম

পুলিশকে জনবান্ধব করতে সময়োপযোগী পদক্ষেপ নিয়েছে সরকার : প্রধানমন্ত্রী

রবিবার, ০৫ জানুয়ারি ২০২০
48 ভিউ
পুলিশকে জনবান্ধব করতে সময়োপযোগী পদক্ষেপ নিয়েছে সরকার : প্রধানমন্ত্রী

কক্সবাংলা ডটকম(৫ জানুয়ারী) :: প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, জনগণের কাঙ্ক্ষিত সেবা নিশ্চিত করার জন্য পুলিশকে আধুনিক এবং জনবান্ধব হিসেবে গড়তে সময়োপযোগী পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে সরকার। জনগণ যেন পুলিশ বাহিনীর কাছ থেকে কাঙ্ক্ষিত সেবা পায়।

রোববার সকালে রাজধানীর রাজারবাগ পুলিশ লাইন প্যারেড গ্রাউন্ডে ‘পুলিশ সপ্তাহ-২০২০’ উদযাপন উপলক্ষে আয়োজিত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির ভাষণে এসব কথা বলেন তিনি।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, আইন-শৃঙ্খলা খাতে বরাদ্দকৃত অর্থকে আমরা ব্যয় হিসেবে নেই না। আমরা মনে করি, জনগণের স্বার্থে জনগণের কল্যাণে এটা আমাদের এক ধরনের বিনিয়োগ। কাজেই সেদিকে লক্ষ্য রেখেই আমরা পুলিশ বাহিনীকে আধুনিক সাজে সজ্জিত এবং আধুনিক প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করে জনগণের সেবা যাতে নিশ্চিত করতে পারি, তার জন্য যথাযথ পদক্ষেপ নেয়া হচ্ছে।

শেখ হাসিনা বলেন, যার ফলে পুলিশের মাঝেও গুণগত পরিবর্তন এসেছে। মানুষের আস্থা ও বিশ্বাস অর্জন করতে সক্ষম হয়েছে। আমরা চাই, আমাদের পুলিশ বাহিনী জনবান্ধব হবে।

প্রধানমন্ত্রী পুলিশ সপ্তাহ উপলক্ষে সারাদেশের বিভিন্ন পুলিশ ইউনিটের সদস্যদের সমন্বয়ে গঠিত নয়নাভিরাম প্যারেড পরিদর্শন ও অভিবাদন গ্রহণ করেন।

অনুষ্ঠানে ১১৮ জন পুলিশ সদস্যের মাঝে বাংলাদেশ পুলিশ পদক, পুলিশ পদক সেবা, রাষ্ট্রপতি পুলিশ পদক এবং রাষ্ট্রপতি পুলিশ পদক সেবায় ভূষিতদের মাঝে পদক বিতরণ করেন তিনি।

পুলিশ বাহিনীর সদস্যদের অসীম সাহসিকতা ও বীরত্বপূর্ণ কাজের স্বীকৃতিস্বরূপ ১৪ জনকে ‘বাংলাদেশ পুলিশ পদক (বিপিএম)’, ২০ জনকে ‘রাষ্ট্রপতির পুলিশ পদক (পিপিএম)’ এবং গুরুত্বপূর্ণ মামলার রহস্য উদ্ঘাটন, অপরাধ নিয়ন্ত্রণ, দক্ষতা, কর্তব্যনিষ্ঠা, সততা ও শৃঙ্খলামূলক আচরণের মাধ্যমে প্রশংসনীয় অবদানের জন্য ২৮ জনকে ‘বাংলাদেশ পুলিশ পদক (বিপিএম)- সেবা’ এবং ৫৬ জনকে ‘রাষ্ট্রপতির পুলিশ পদক (পিপিএম)- সেবা’ প্রদান করা হয়।

বিপিএম মরহুম মো. আকতার হোসেন (মরণোত্তর) এর পক্ষে তার সহধর্মিণী এবং দায়িত্ব পালনের সময় দুর্বৃত্তদের গুলিতে আহত এএসআই নান্নু মিয়া হুইল চেয়ারে বসে প্রধানমন্ত্রীর কাছ থেকে পদক গ্রহণ করেন।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল এবং পুলিশের আইজিপি ড. মোহাম্মদ জাভেদ পাটোয়ারী ও অতিরিক্ত আইজিপি (প্রশাসন) মো. মইনুর রহমান চৌধুরী এ সময় উপস্থিত ছিলেন।

মন্ত্রিপরিষদ সদস্য, এমপি, ঊর্ধ্বতন সরকারি কর্মকর্তারা, বিভিন্ন পেশাজীবী সংস্থা ও সুশীল সমাজের প্রতিনিধি, সিনিয়র পুলিশ সদস্য এবং তাদের পরিবারের সদস্যসহ আমন্ত্রিত অতিথিরা অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ করেন।

শেখ হাসিনা বলেন, পুলিশ বাহিনীকে জনগণের পুলিশ হিসেবেই নিজেদেরকে প্রতিষ্ঠা করতে হবে। জনগণের আস্থা ও বিশ্বাস অর্জনের মধ্য দিয়ে যেকোনো অপরাধ দমন করা সহজ এবং সেই দৃষ্টিকোণ থেকে আপনারা কাজ করবেন সেটাই আশা করি।

বর্তমানে দেশে অনুকূল পরিবেশ বজায় থাকায় বিনিয়োগ আসছে উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী একে অব্যাহত রাখার ওপরও গুরুত্বারোপ করেন।

তিনি বলেন, দেশি-বিদেশি বিনিয়োগ আসছে। এই বিনিয়োগ যাতে কোনোভাবে ব্যাহত না হয় এবং দেশের অর্থনৈতিক যাত্রা যেন অব্যাহত থাকে সেটাই লক্ষ্য।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, যেকোনো দুর্যোগে জনগণের পাশে দাঁড়ায় পুলিশ। কাজেই যেকোনো প্রয়োজনে পুলিশ বাহিনীর পাশে দাঁড়ানোটা কর্তব্য বলে মনে করি।

‘মুজিববর্ষের অঙ্গীকার পুলিশ হবে জনতার’ এ প্রতিপাদ্য নিয়ে প্রতিবারের ন্যায় এবারো বিপুল উৎসাহ উদ্দীপনা এবং আনন্দ-মুখর পরিবেশে পাঁচ দিনব্যাপী পুলিশ সপ্তাহ-২০২০ উদযাপিত হচ্ছে। চলবে আগামী ১০ জানুয়ারি পর্যন্ত।

 পুলিশ পদক পেলেন যারা

পুলিশ সপ্তাহ উপলক্ষে সেবা, সাহসিকতা ও বীরত্বপূর্ণ ভূমিকার জন্য প্রতিবছরের মতো এবারও চার ক্যাটাগরিতে পুলিশ পদক পেয়েছেন ১১৮ জন।  রোববার (৫ জানুয়ারি) রাজারবাগ পুলিশ লাইনস প্যারেড গ্রাউন্ডে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তাদের মাঝে পদক প্রদান করেন।

২০১৯ সালে পুলিশ বাহিনীর সদস্যগণের সাহসিকতা ও বীরত্বপূর্ণ কাজের স্বীকৃতি স্বরূপ ১৪ জন পুলিশ সদস্যকে ‘বাংলাদেশ পুলিশ পদক (বিপিএম)’, ২০ জনকে ‘রাষ্ট্রপতির পুলিশ পদক (পিপিএম)’ এবং গুরুত্বপূর্ণ মামলার রহস্য উদঘাটন, অপরাধ নিয়ন্ত্রণ, দক্ষতা, কর্তব্যনিষ্ঠা, সততা ও শৃঙ্খলামূলক আচরণের মাধ্যমে অবদানের জন্য ২৮ পুলিশ সদস্যকে ‘বাংলাদেশ পুলিশ পদক (বিপিএম)-সেবা’ এবং ৫৬ জনকে ‘রাষ্ট্রপতির পুলিশ পদক (পিপিএম)- সেবা’ প্রদান করেছেন প্রধানমন্ত্রী।

এবছর বিপিএম (মরণোত্তর) পদক পেয়েছেন হাইওয়ে পুলিশ কুমিল্লা রিজিওয়েন এএসআই মরহুম মো. আক্তার হোসেন।

বিপিএম (সাহসিকতা) পদক পেয়েছেন ১৪ জন

র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন- র‌্যাব এর মহাপরিচালক অতিরিক্ত আইজিপি ড. বেনজীর আহমেদ (বার), মোহাম্মদপুর র‌্যাব-২ সিপিসি-৩ এর কোম্পানি কমান্ডার পুলিশ সুপার মুহম্মদ মহিউদ্দিন ফারুকী, ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা উত্তর বিভাগের উপ-পুলিশ কমিশনার মশিউর রহমান, পুলিশ হেডকোয়ার্টার্সে পুলিশ সুপার মীর আবু তৌহিদ, ডিএমপির কাউন্টার টেরোরিজম ইউনিটের (সিটিটিসি) অতিরিক্ত উপ-পুলিশ কমিশনার (পুলিশ সুপার পদে পদোন্নতিপ্রাপ্ত) মোহাম্মদ সাইফুল ইসলাম, ডিএমপির কাউন্টার টেরোরিজম ইউনিটের (সিটিটিসি) অতিরিক্ত উপ-পুলিশ কমিশনার এস এম নাজমুল হক, অতিরিক্ত উপ-পুলিশ কমিশনার রহমত উল্লাহ চৌধুরী, অতিরিক্ত উপ-পুলিশ কমিশনার আহসান হাবীব, অতিরিক্ত উপ-পুলিশ কমিশনার তৌহিদুল ইসলাম, পুলিশ পরিদর্শক (শহর ও যানবাহন) মেজবাহ উদ্দিন আহম্মেদ, র‌্যাব ফোর্সেস সদর দপ্তরের সার্জেন্ট মো. শহীদুল ইসলাম, বগুড়া শেরপুর থানার এএসআই নান্নু মিয়া ও উত্তরা র‌্যাব-১ এর সৈনিক মো. রাকিব হোসেন।

বিপিএম (সেবা) পদক পেলেন ২৮ জন

পিবিআই এর ডিআইজি বনজ কুমার মজুমদার, খুলনা রেঞ্চের ডিআইজি ড. খ. মহিদ উদ্দিন, র‌্যাব ফোর্সেস সদর দপ্তরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক কর্নেল তোফায়েল মোস্তফা সরোয়ার, পুলিশ হেডকোয়ার্টার্সের অতিরিক্ত ডিআইজি মো. মাহবুবুর রহমান ভূঁইয়া, র‌্যাব ফোর্সেস সদর দপ্তরের লে. কর্নেল মীর আসাদুল আলম, ইন্টেলিজেন্স উইংয়ের পরিচালক লে. কর্নেল মাহাবুব আলম, নৌ পুলিশের পুলিশ সুপার শফিকুল ইসলাম, ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের গোয়েন্দা বিভাগের উপ- পুলিশ কমিশনার জামিল হাসান, স্পেশাল ব্রাঞ্চের বিশেষ পুলিশ সুপার হাসিবুল আলম, পুলিশ হেডকোয়ার্টার্সের এআইজি এ এফ এম আনজুমান কালাম, এআইজি তামান্না ইয়াসমীন, এআইজি মোহাম্মদ নাসিরুল ইসলাম, এআইজি মিলন মাহমুদ বিপিএম, কক্সবাজার জেলার পুলিশ সুপার এ বি এম মাসুদ হোসেনম, বিশেষ পুলিশ (এসবি) সুপার জেরিন আখতার, বিশেষ পুলিশ সুপার মো. জাহিদুর রহমান, ডিএমপি ডিবি দক্ষিণের অতিরিক্ত উপ-পুলিশ কমিশনার (পুলিশ সুপার পদে পদোন্নতিপ্রাপ্ত) রাজীব আল মাসুদ, কাউন্টার টেরোরিজম ইউনিটের অতিরিক্ত উপ-পুলিশ কমিশনার (পুলিশ সুপার পদে পদোন্নতিপ্রাপ্ত) মিশুক চাকমা, অতিরিক্ত উপ-পুলিশ কমিশনার মাহফুজা লিজা, পুলিশ হেডকোয়ার্টার্সের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. নুরুল হুদা আশরাফী, স্পেশাল ব্রাঞ্চের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার নজরুল ইসলাম মিয়া, কাউন্টার টেরোরিজম ইউনিটের সহকারী পুলিশ কমিশনার অহিদুজ্জামান নুর, বিপিএম, সহকারী পুলিশ কমিশনার ধ্রুব জ্যোতির্ময় গোপ, স্পেশাল ব্রাঞ্চের পুলিশ পরিদর্শক ইউনুস আলী শেখ, পিপিএম (সেবা),ডেমরা থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) রফিকুল ইসলাম, কাউন্টার টেরোরিজম ইউনিটের এসআই আশুতোষ শীল, স্পেশাল ব্রাঞ্চের এএসআই মোহাম্মদ মোহন মিয়া ও কাউন্টার টেরোরিজম ইউনিটের কনস্টেবল সালমান হাজারী।

পিপিএম (সাহসিকতা) পদক পেলেন ২০ জন

বগুড়ার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (পুলিশ সুপার পদে পদোন্নতি প্রাপ্ত) মো. আরিফুর রহমান মন্ডল, র‌্যাব ফোর্সেস সদর দপ্তরের উপ-পরিচালক মেজর এস এম সুদীপ্ত শাহীন, ইন্টেলিজেন্স উইংয়ের মেজর শাহীন আজাদ, বরিশাল র‌্যাব-৮ এর মেজর খান সজিবুল ইসলাম, পুলিশ হেডকোয়ার্টার্সের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার শাহ নেওয়াজ রাজু, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. নুরে আলম, নারায়ণগঞ্জ র‌্যাব-১১ এর অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. আলেপ উদ্দিন, কাউন্টার টেরোরিজম ইউনিটের সিনিয়র সহকারী পুলিশ কমিশনার আতিকুর রহমান চৌধুরী, চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশ’র বোম্ব ডিসপোজাল ইউনিটের ইনচার্জ রাজেস বড়ুয়া, চট্টগ্রাম রাউজান থানার অফিসার ইনচার্জ মোহাম্মদ কেপায়েত উল্লাহ, পুলিশ হেডকোয়ার্টার্সের এসআই মো. সোহাগ মিয়া, শ্যামপুর থানার এসআই সোহাগ চৌধুরী, মানিকগঞ্জ সিংগাইর থানার এসআই মো. আল মামুন, টাঙ্গাইল দেলদুয়াল থানার এসআই মো. হারুন অর রশিদ, বগুড়া জেলা গোয়েন্দা শাখার এসআই মো. জুলহাজ উদ্দিন বিপিএম, কিশোরগঞ্জ তাড়াইল থানার এসআই রাজীব আহম্মেদ, ডিএমপি’র ওয়ারী বিভাগের শ্যামপুর থানার এএসআই মাসুম বিল্লাহ, কাউন্টার টেরোরিজম ইউনিটের এএসআই সোলাইমান হোসেন, রাজশাহী মেট্রোপলিটন পুলিশের এএসআই মো. মাইনুল ইসলাম  ও কাউন্টার টেরোরিজম ইউনিটের নায়েক মোহাম্মদ রাসেল মিয়া।

পিপিএম (সেবা) পদক পেলেন ৫৬ জন

র‌্যাব ফোর্সেস সদর দপ্তরের খুলনা র‌্যাব-৬ এর অধিনায়ক লে. কর্নেল সৈয়দ মোহাম্মদ নূরুস সালেহীন ইউসুফ, কক্সবাজার র‌্যাব -১৫ এর অধিনায়ক উইং কমান্ডার আজিম আহমেদ, উত্তরা ১১ আর্মড পুলিশ ব্যাটালিয়ানের অধিনায়ক (পুলিশ সুপার) শাহীনা আমীন, ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের উপ-পুলিশ কমিশনার শ্যামল কুমার মুখার্জী, গাজীপুর মেট্রোপলিটন পুলিশ’র উপ-পুলিশ কমিশনার কে. এম. আরিফুল হক, ডিএমপির ওয়ারী বিভাগের অতিরিক্ত উপ-পুলিশ কমিশনার (পুলিশ সুপার পদে পদোন্নতিপ্রাপ্ত) শাহ ইফতেখার আহমেদ, নারায়ণগঞ্জ জেলার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (পুলিশ সুপার পদে পদোন্নতি প্রাপ্ত) মোহাম্মদ মনিরুল ইসলাম, গাজীপুর মেট্রোপলিটন পুলিশের অতিরিক্ত উপ-পুলিশ কমিশনার (পুলিশ সুপার পদে পদোন্নতিপ্রাপ্ত) মো. মনজুর রহমান, র‌্যাব ফোর্সেস সদর দপ্তরের ইন্টেলিজেন্স উইংয়ের মেজর মো. মনিরুল ইসলাম, ইবি ও ইন্টেলিজেন্স উইংয়ের মেজর মাহমুদ হাসান তারিক, পিবিআই যশোর জেলার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার এম. কে. এইচ. জাহাঙ্গীর হোসেন, ডিএমপির অতিরিক্ত উপ-পুলিশ কমিশনার আর এম ফয়জুর রহমান, পিবিআই ফেনী জেলার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোহাম্মদ মনিরুজ্জামান, পুলিশ হেডকোয়ার্টার্স এর অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. মাসুদ আলম, পিরোজপুর জেলার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোল্লা আজাদ হোসেন, চট্টগ্রাম জেলার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. মশিউদ্দৌলা রেজা, গোপালগঞ্জ সদর সার্কেলের  অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোহাম্মদ ছানোয়ার হোসেন, সিআইডির অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মু. জালাল উদ্দিন ফাহিম, হবিগঞ্জ সদর সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. রবিউল ইসলাম, ডিএমপির অতিরিক্ত উপ-পুলিশ কমিশনার আরিফুল ইসলাম, ডিবি পূর্ব বিভাগের অতিরিক্ত উপ-পুলিশ কমিশনার আতিকুল ইসলাম, র‌্যাব ফোর্সেস সদর দপ্তরের ইন্টেলিজেন্স উইংয়ের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সাইদ আহম্মেদ, নরসিংদী জেলার সহকারী পুলিশ সুপার (অতিরিক্ত পুলিশ সুপার পদে পদোন্নতি প্রাপ্ত) থান্দার খায়রুল হাসান, ডিএমপির মতিঝিল জোনের সহকারী পুলিশ কমিশনার জাহিদুল ইসলাম সোহাগ, এসএসএফ এর এএসপি মো. মিরাজুল ইসলাম, সিআইডির সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার জুয়েল চাকমা, উওরা র‌্যাব-১ এর সহকারী পুলিশ সুপার সালাউদ্দিন ও সহকারী পুলিশ সুপার কামরুজ্জামান।

এ তালিকায় আরো রয়েছেন বাগেরহাট জেলার পুলিশ পরিদর্শক রফিকুল ইসলাম, পুলিশ হেডকোয়ার্টার্স এর পুলিশ পরিদর্শক মো. জিয়াউর রহমান, স্পেশাল ব্রাঞ্চ এর পুলিশ পরিদর্শক মো. কাওছার আহম্মেদ, সিআইডির পুলিশ পরিদর্শক মো. ইব্রাহিম হোসেন, শাহবাগ থানার অফিসার ইনচার্জ আবুল হাসান, ডিএমপির আরওআই কাইয়ুম শেখ, গেন্ডারিয়া থানার ওসি সাজু মিয়া, চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশের কোতোয়ালি থানার অফিসার ইনচার্জ মোহাম্মদ মহসীন পিপিএম, বরিশাল মেট্রোপলিটন পুলিশের এয়ারপোর্ট থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) এইচ এম আব্দুর রহমান মুকুল, শরীয়তপুর ডামুড্যা থানার অফিসার ইনচার্জ মেহেদী হাসান, গাজীপুর জেলার পুলিশ পরিদর্শক মো. হাফিজুর রহমান ও পিবিআই ফেনী জেলার পুলিশ পরিদর্শক মোহাম্মদ শাহ আলম, বরিশাল অঞ্চলের হিজলা নৌ পুলিশ ইউনিটের পুলিশ পরিদর্শক মো. বেলাল হোসেন,  স্পেশাল ব্রাঞ্চ এর এসআই মো. মনিরুজ্জামান, চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশের ডবলমুরিং মডেল থানার এসআই মোস্তাফিজুর রহমান, রংপুর মেট্রোপলিটন পুলিশের তাজহাট থানার এসআই মো. মামুনুর রশীদ, ঢাকা জেলার গোয়েন্দা শাখার এসআই মো. বিলায়েত হোসেন, সিরাজগঞ্জ জেলা গোয়েন্দা শাখার এসআই মো. ইয়াছিন আরাফাত, চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলার নারী ও শিশু সহায়তা ডেস্কের ইনচার্জ এসআই মোছা. ইসমাতারা, বগুড়া জেলার গোয়েন্দা শাখার এসআই মো. ওয়াদুদ আলী, বগুড়া জেলা গোয়েন্দা শাখার এসআই মো. ফিরোজ সরকার, ময়মনসিংহ জেলা গোয়েন্দা শাখার এসআই মো. আক্রাম হোসেন, ঝিনাইদহ জেলার এএসআই মো. শরিফুল ইসলাম, ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার এএসআই মো. আনোয়ার হোসেন, চাপাইনবাবগঞ্জ জেলা গোয়েন্দা শাখার এএসআই বিকাশ চন্দ্র সরকার, বগুড়া জেলা গোয়েন্দা শাখার এএসআই মো. রানা হামিদ, নৌ পুলিশ ঢাকার কনস্টেবল জীবন সিকদার ও খাগড়াছড়ির মহালছড়ির ৬ এপিবিএন এর কনস্টেবল ফয়সাল আহমেদ।

48 ভিউ

Posted ৮:০২ অপরাহ্ণ | রবিবার, ০৫ জানুয়ারি ২০২০

coxbangla.com |

এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

এ বিভাগের আরও খবর

Archive Calendar

রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি
 
১০১১১২১৩১৪১৫১৬
১৭১৮১৯২০২১২২২৩
২৪২৫২৬২৭২৮২৯৩০
৩১  

Editor & Publisher

Chanchal Dash Gupta

Member : coxsbazar press club & coxsbazar journalist union (cbuj)
cell: 01558-310550 or 01736-202922
mail: chanchalcox@gmail.com
Office : coxsbazar press club building(1st floor),shaheed sharanee road,cox’sbazar municipalty
coxsbazar-4700
Bangladesh
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন

ABOUT US :

coxbangla.com is a dedicated 24x7 news website which is published 2010 in coxbazar city. coxbangla is the news plus right and true information. Be informed be truthful are the only right way. Because you have the right. So coxbangla always offiers the latest news coxbazar, national and international news on current offers, politics, economic, entertainment, sports, health, science, defence & technology, space, history, lifestyle, tourism, food etc in Bengali.

design and development by : webnewsdesign.com