শুক্রবার ২৭শে নভেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ | ১২ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

শিরোনাম

শুক্রবার ২৭শে নভেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ

শিরোনাম

মিয়া তানসেন : যার গানে আগুন জ্বলে উঠত !

সোমবার, ৩০ অক্টোবর ২০১৭
622 ভিউ
মিয়া তানসেন : যার গানে আগুন জ্বলে উঠত !

কক্সবাংলা ডটকম(৩০ অক্টোবর) :: ভারত উপমহাদেশের প্রথম ছয় মোগল শাসক ছিলেন শিল্পের দারুণ রকম সমঝদার। তাদের প্রত্যেকেরই মিনিয়েচার আর্টের প্রতি ছিল দুর্বার দুর্বলতা। তবে শিল্পের এ শাখাটির প্রকৃত উন্নতির জন্য প্রাথমিক পদক্ষেপ গ্রহণের কৃতিত্ব হুমায়ুনের। আর আকবর এ ঘরানার শিল্পকর্মের প্রকৃত ভিত্তি দেন প্রশিক্ষণের উদ্যোগ গ্রহণ করে। আকবরের ফতেপুর সিক্রি শহরটিই মূলত পরিণত হয় শিল্পী, বোদ্ধা আর নিপুণ কারিগরদের আখড়ায়।

সেই সময়ের ঘটনাপঁজী-লেখক হিসেবে প্রখ্যাত হয়ে আছেন আবুল ফজল, তার দুটি বিখ্যাত কাজ আকবার নামাহ আর আইনি আকবারি আকবরের রাজসভার নানা বিবরণের সবচেয়ে বিশ্বাসযোগ্য উত্স। আকবর একদল প্রতিভাধর ব্যক্তির সমাবেশ ঘটাতে সক্ষম হয়েছিলেন। আইনি আকবারিতে একটি গোটা অধ্যায়ই রয়েছে সম্রাটের শিল্পকর্মপ্রীতি আর রাজসভার শিল্পশালার প্রতি তার অনুরাগের বয়ানের। তার রাজসভার প্রধান দুই শিল্পগুরু ছিলেন পারস্য থেকে আগত আবদুস সামাদ এবং সাঈদ আলী; আর বাকিরা ছিলেন স্থানীয় হিন্দু শিল্পী। চিত্রকরদের মনোযোগ নিবদ্ধ ছিল মিনিয়েচার শিল্পকর্মের দুই শাখায়: পুস্তক অলঙ্করণ আর প্রতিকৃতি অঙ্কনবিদ্যায়।

প্রতিকৃতি আঁকার ক্ষেত্রে একজন চিত্রশিল্পীর তখন লক্ষ্যই থাকত তাদের কাজে সম্রাটের পছন্দকে প্রতিফলিত করা, এ কারণে আকবরের রাজসভা আলোকিত করে থাকা নবরত্নের প্রতিকৃতিসহ বিবরণ পাওয়া সম্ভব হয়েছে। আর এ নবরত্নের মধ্যে সবচেয়ে বিখ্যাত ব্যক্তিটি ছিলেন একজন সংগীতশিল্পী, তানসেন। আইনি আকবারিতে আবুল ফজল পুরো একটি অধ্যায়ই ব্যয় করেছেন এ রাজশিল্পীর ওপর।

‘আমার পক্ষে এ বিদ্যার (সংগীত) আশ্চর্য ক্ষমতার কথা সঠিকভাবে বর্ণনা করা সম্ভব না; কোনো কোনো সময় কণ্ঠমাধুর্য দিয়েই হূদয় মাঝে হারেমের শ্রেষ্ঠ প্রাণীটিকে যেমন চিত্রিত করে তোলে, কখনো কখনো তা আবার শুধু দুই হাতের কারুকাজের সুরঝঙ্কার হয়েও ফুটে ওঠে, প্রবেশ করে কর্ণকুহরে, তারপর তা আবার ফিরে যায় পুরনো আসনে, হূদয়ে, শত-সহস্র তোফা হয়ে, শ্রোতামণ্ডলী তখন তার অন্তর্দৃষ্টি দ্বারা কখনো দুঃখ সায়রে আবার কখনো সুখ সায়রে ভাসে…

মান্যবর সম্রাট সংগীতের বিশেষ অনুরক্ত। তার রাজসভা ভিড় করে আছে অগণিত সংগীতজ্ঞ: হিন্দু, ইরান-তুরানের, কাশ্মিরী, নারী-পুরষ উভয়ই। রাজসভার শিল্পীদের বিভাজন করে হয়েছিল সাত দিবসের হিসাব অনুসারে, প্রত্যেকের জন্য সপ্তাহের একটি দিন নির্ধারিত থাকত পরিবেশনার…’

আবুল ফজল প্রধান প্রধান রাজশিল্পীদের বর্ণনার সঙ্গে তানসেন বন্দনা করেছেন এভাবে: ‘গোয়লিউরের মিয়া তানসেন। গত এক হাজার বছরেও ভারতবর্ষে তার মতো গায়কের আবির্ভাব ঘটেনি।’

তানসেনের জন্মের সঠিক দিন-তারিখ জানা যায় না। তবে একটা জনশ্রুতি আছে— আকবরের আগেই তানসেনের মৃত্যু হয়েছিল এবং সম্রাট নিজে তার জন্য প্রার্থনাবাণী রচনা করেছিলেন, সে দোয়ায় সম্রাট বলছেন:

পিথালা সো মাজলিস গ্যায়, তানসেন সো রাগ
হাসিবো রামিবো বোলিবো, গ্যায়য়ো বীরবলা স্যাথ।

পিথালার সঙ্গে সামাজিক জীবন গত হয়েছে; সুর চলে গেছে তানসেনের সঙ্গে। আর হর্ষ, শ্লেষ, যুক্তিতর্ক গেছে বীরবলের সঙ্গে।

প্রয়োজনীয় তথ্য-প্রমাণের অপ্রতুলতার কারণে তানসেনের গোড়ার দিকের জীবন ও পেশা সম্পর্কে ধারণা পাওয়া কষ্টসাধ্য। বাদাওনির মুন্তাখাবু’ত তাওয়ারিখ থেকে জানা যায়, তানসেন মোহাম্মদ আদিলের শিক্ষানবিশি করেছেন, আদালি নামে খ্যাত এ শিল্পী ছিলেন একজন নর্তক।

বাদাওনির বর্ণনায় আরো জানা যায়, বান্ধোগড়ের (রেওয়া) রাজা রামচন্দ তানসেনের সংগীত প্রতিভায় মুগ্ধ হয়ে প্রচুর স্বর্ণমুদ্রা বর্ষণ করেছিলেন।

রাজা রামচন্দের কাছ থেকে বিদায় নিয়ে আকবরের রাজসভায় যোগ দেয়ার স্মৃতিচারণ আছে আবুল ফজলের আকবার নামাহতে।

জাহাঙ্গীরের বণর্নাতেও তানসেনের কথা পাওয়া যায়, তিনি বেশ জোর দিয়ে বলেছেন:
‘তার মতো সংগীতশিল্পী আর কোনো যুগে আসেওনি, ছিলও না।’

আকবর, স্বামী হরিদাস আর তানসেনের সাক্ষাতের ঘটনা নিয়েও কিংবদন্তি আছে। এ রকম একটি বিশ্বাস প্রচলিত আছে যে, আকবর একবার তানসেনকে সঙ্গে নিয়ে সাধুর ছদ্মবেশে বৃন্দাবনে এসে হাজির হন স্বামী হরিদাসের মুধুর কণ্ঠের গান শুনবেন বলে। তানসেন ইচ্ছে করেই গান পরিবেশনে ভুল করেন, যাতে স্বামী হরিদাস ভুল সংশোধন করে দেন। স্বামী হরিদাস সত্যিই তানসেনের ভুল শোধরাতে গেয়ে ওঠেন সঠিক সুরে। ফলে সম্রাটের অভিলাষ পূরণ হলো, স্বামী হরিদাসের গান শুনতে সক্ষম হলেন।

কিন্তু আকবর নিজে তানসেনের এ চালাকির ব্যাপারে অবগত ছিলেন না। ফলে তিনি তানসেনকে জিজ্ঞেস করলেন, সে কেন স্বামীর মতো সুন্দর করে গাইলেন না। জবাবে তানসেন বলেছিলেন: ‘মহামান্য, আমি গান গাই এক মহাক্রমশালী সম্রাটের রাজসভায়, আর আমার উস্তাদ গান করেন সৃষ্টিকর্তার সভায়।’

অনেকেই এ তিনজনের সাক্ষােক সত্য মানেন। তারা মনে করেন, ১৮ শতকে কিশানগড়ের মিনিয়েচার শিল্পকর্মে এ সাক্ষাতের চিত্র অঙ্কিত হয়েছে। তানসেনের মতো শিল্পীকে ঘিরে যখন নানা কিংবদন্তি প্রচলিত, তখন সাধারণ মানুষের মনে এ প্রশ্নের উদয় হওয়া স্বাভাবিক যে, কেমন ছিলেন এ তানসেন। দিল্লির ন্যাশনাল আর্ট গ্যালারিতে তানসেনের একটি প্রতিকৃতি রক্ষিত আছে। দীর্ঘদেহী, শ্যামল বর্ণ, তীক্ষ নাক আর উন্নত চিবুক। ছোটখাটো হাত, আঙুল, সংবেদনশীল। ছবিতে মনে হয় তানসেন তালি বাজাচ্ছেন, হয়তো গান গাওয়ার সময় করা প্রতিকৃতি এটি।

বোম্বের প্রিন্স অব ওয়েলস জাদুঘরে প্রায় এ রকমই একটি প্রতিকৃতি সংরক্ষিত আছে তানসেনের, প্রথম প্রতিকৃতির মতো একই ধরনের পোশাক পরে আছেন তানসেন এ ছবিতেও: আতপাটি পাগড়ি, আর এক জামা হাঁটু পর্যন্ত ছুঁয়েছে, দোপাট্টা বুকের ওপর আড়াআড়িভাবে রাখা আর কোমরে কোমরবন্দ, তাতে ছোরা গোজা। স্ফুরিত ঠোঁট, সম্ভবত গান গাইছেন।

ছবির পেছনে ফারসি ও হিন্দিতে খোদাই করা আছে: সাহিব তানসেন কালাওয়ান্ত আজ দিল্লি মারফত মাহানাথ (ফারসিতে)। এর অর্থ এটি কালাওয়ান্ত তানসেনের প্রতিকৃতি আর দিল্লি থেকে মহানাথ এটি এনেছেন। হিন্দি ভাষ্যটি আরো কৌতূহলোদ্দীপক। এতে কালাওয়ান্ত তানসেনের নাম উল্লেখের পাশাপাশি দুই লাইনের শ্লোকও খোদিত হয়েছে: রাগা দিপাক গ্যায়ো, তেথি মারনা প্যায়ো (তানসেন রাগ দীপক গাইছেন, আর আগুন জ্বলে উঠেছে তার অপূর্ব সংগীত মূর্চ্ছনায়)।

622 ভিউ

Posted ১২:১৬ অপরাহ্ণ | সোমবার, ৩০ অক্টোবর ২০১৭

coxbangla.com |

এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

এ বিভাগের আরও খবর

Archive Calendar

রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি
১০১১১২১৩১৪
১৫১৬১৭১৮১৯২০২১
২২২৩২৪২৫২৬২৭২৮
২৯৩০  

Editor & Publisher

Chanchal Dash Gupta

Member : coxsbazar press club & coxsbazar journalist union (cbuj)
cell: 01558-310550 or 01736-202922
mail: chanchalcox@gmail.com
Office : coxsbazar press club building(1st floor),shaheed sharanee road,cox’sbazar municipalty
coxsbazar-4700
Bangladesh
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন

ABOUT US :

coxbangla.com is a dedicated 24x7 news website which is published 2010 in coxbazar city. coxbangla is the news plus right and true information. Be informed be truthful are the only right way. Because you have the right. So coxbangla always offiers the latest news coxbazar, national and international news on current offers, politics, economic, entertainment, sports, health, science, defence & technology, space, history, lifestyle, tourism, food etc in Bengali.

design and development by : webnewsdesign.com