ভারতীয় বায়ুসেনা এবার মার্কিন এফ-১৬ ও সুইডিশ গ্রিপেন যুদ্ধবিমান পাচ্ছে

F-16.jpg

কক্সবাংলা ডটকম(১২ জুন) :: নৌসেনার জন্য ৬০ হাজার কোটি টাকার সাবমেরিনের পর এবার ১.৩ লক্ষ কোটি টাকার যুদ্ধবিমান সংক্রান্ত চুক্তি চূড়ান্ত করার পথে হাঁটতে চলেছে কেন্দ্র। ‘মেক ইন ইন্ডিয়া’ প্রকল্পে ঘাতক মার্কিন যুদ্ধবিমান এফ-১৬ ও সুইডেনে নির্মিত সাব গ্রিপেন ফাইটার এয়ারক্রাফট পরীক্ষা করে দেখছে ভারতীয় বায়ুসেনা। বেশ কয়েক দফার পরীক্ষায় পাশ করলে ১২০টি যুদ্ধবিমান নির্মাণের বরাত পাবে যে কোনও এক বিদেশি সংস্থা। সেক্ষেত্রে প্রথম দফায় কয়েকটি যুদ্ধবিমান আমদানি করা হলেও তারপর ভারতেই বিদেশি প্রযুক্তি ও কারিগরী সহায়তায় তৈরি হবে নয়া যুদ্ধবিমানগুলি।

বায়ুসেনা সূত্রে খবর, নয়া দু’ধরনের যুদ্ধবিমানই ভারতীয় সেনার হাতে তুলে দিতে আগ্রহ দেখিয়েছে প্রতিরক্ষা মন্ত্রক। সাত বছর আগেও একবার এই চিন্তাভাবনা করেছিল মন্ত্রক। সেই সময়ও যুদ্ধবিমান দু’টিকে নানা কঠিন পরীক্ষা-নিরীক্ষার মধ্যে দিয়ে যেতে হয়েছিল। সেই সময় ভারতের দরকার ছিল ১২৬টি মিডিয়াম মাল্টি-রোল কমব্যাট এয়ারক্রাফট। কিন্তু সেই সময় এফ-১৬ বা সুইডিশ ‘সাব গ্রিপেন’ যুদ্ধবিমানকে বেছে নেওয়া যায়নি। কারণ সেগুলিতে আধুনিক রাডার ব্যবস্থা ছিল না। AESA বা ‘অ্যাক্টিভ ইলেকট্রনিক্যালি স্ক্যানড অ্যারে’ সেই সময় বায়ুসেনার বিমানে থাকা বাধ্যতামূলক ছিল।

 

কিন্তু এবার বিদেশি সংস্থাগুলি ভারতীয় বায়ুসেনার সমস্ত দাবি-দাওয়া ও চাহিদা মেনে নয়া যুদ্ধবিমানে এমন কিছু প্রযুক্তি যোগ করেছে, যেগুলি আগে কখনও আকাশপথে যুদ্ধের সময় ব্যবহার করেনি ভারত। আগামী এক বছরের মধ্যে নির্বাচিত সংস্থার সঙ্গে চুক্তি চূড়ান্ত করে ফেলতে এবার দফায় দফায় ট্রায়াল হবে নতুন যুদ্ধবিমানগুলির। পরীক্ষায় পাশ করলে ও সেনাকর্তাদের পছন্দ হলে ১২০টি নতুন সিঙ্গল ইঞ্জিন সমৃদ্ধ যুদ্ধবিমান নির্মাণের বরাত দেবে কেন্দ্র। সেক্ষেত্রে রুশ প্রযুক্তিতে নির্মিত মিগ সিরিজের মিগ-২১ ও মিগ-২৭ যুদ্ধবিমানের বদলে নতুন ফাইটার জেটই হয়ে উঠবে ভারতীয় বায়ুসেনার অন্যতম প্রধান হাতিয়ার।

এমনিতেই ২০২৫ সালের মধ্যেই অবসর গ্রহণ করতে চলেছে মিগ-২১ ও ২৭। তাই মেক ইন ইন্ডিয়া প্রকল্পের অধীনে নয়া ১২০টি লাইট কমব্যাট এয়ারক্রাফটকে দ্রুত সেনার হাতে তুলে দিতে চায় প্রতিরক্ষা মন্ত্রক। বায়ুসেনার ভাণ্ডারে এই মুহূর্তে মিগ ছাড়াও সুখোই-৩০ এমকেআই, জাগুয়ার-সহ মোট ৩৩ স্কোয়াড্রন যুদ্ধবিমান রয়েছে। বায়ুসেনার পাশাপাশি, নৌসেনাও মার্কিন এফ-১৮ ও ফ্রান্সের টুইন ইঞ্জিন সমৃদ্ধ রাফালে-৩৬ যুদ্ধবিমানের মহড়া চালাচ্ছে সম্পূর্ণ দেশীয় প্রযুক্তিতে নির্মিত এয়ারক্রাফট ক্যারিয়ারের জন্য।

Share this post

PinIt
scroll to top
error: কপি করা নিষেধ !!
bahis siteleri