পেকুয়ায় নেতাকর্মীদের ভালবাসায় পালন হবে জাতীর জনকের শাহাদত বার্ষিকী

pic-jahangir.jpg

মো: ফারুক,পেকুয়া(৫ আগষ্ট) :: বাংলাদেশ আ’লীগের রাজনীতিকে চিরতরে ধংস করার জন্য ঘাতক পাকিস্তানি হানাদার বাহিনীদের দোষর রাজাকার আলবদর এর অনুসারীরা জাতীর জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান, তার পরিবার ও আত্বীয় স্বজনকে ১৯৭৫ সালের ১৫ আগষ্ট একটি নির্মম হত্যাকান্ডের মাধ্যমে শাহাদত বরণ করে।

মহান আল্লাহ অশেষ কৃপায় সেদিন বর্তমান মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা ও তার বোন শেখ রেহেনা বাড়িতে না থাকায় ঘাতকের হাত থেকে রক্ষা পায়। ওই নির্মম হত্যাকান্ডের পর মীর জাফরের অনুসারীরা ক্ষমতা গ্রহন করে আ’লীগকে ২১ বছর ক্ষমতায় আসতে দেয়নি। নেতাকর্মীরা পালন করতে পারেনি প্রিয় নেতা শাহাদত বার্ষিকী।

১৯৯৬ সালে জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে আ’লীগ ক্ষমতা গ্রহন করলে আমরা পালন করার সুযোগ পায় জাতীর জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের শাহাদত বার্ষিকী পালন।

এরই ধারাবাহিকতায় বাংলাদেশ আ’লীগ পেকুয়াস্থ কক্সবাজার জেলা শাখার নেতৃবৃন্দ, পেকুয়া উপজেলা আওয়ামীলীগের প্রবীণ আর নবীণ নেতাসহ সকল সহযোগি সংগঠন ঐক্যবদ্ধ হয়ে শাহাদত বার্ষিকী পালন করবো। জাতীর জনকের শাহাদত বার্ষিকী কোন ধরণের চাঁদাবাজি ও চাঁদার টাকায় হবে না।

জেলা আ’লীগ ও উপজেলা আ’লীগ ও সহযোগি সংগঠনসহ তৃণমূল নেতা ও কর্মীদের আর্থিক অনুদান ও ভালবাসায় বৃহত্ত পরিসরে ১৫ আগষ্ট মহান জাতীয় শোক দিবস ও শাহাদত বার্ষিকী পালন করবো।

এছাড়াও আজকের সভায় প্রমাণ হয় পেকুয়া উপজেলা আ’লীগ ঐক্যবদ্ধ। পেকুয়ার বিচ্ছিন্ন আ’লীগকে ঐক্যবদ্ধ করতে পারায় আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে চকরিয়া-পেকুয়ার নৌকা প্রতীকের প্রার্থীকে বিজয়ী করে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীকে নৌকার প্রার্থীকে উপহার দিব ইনশাল্লাহ।

শোক দিবসের আলোচনা সভা হলেও উপজেলার প্রত্যেকটি এলাকা থেকে উপজেলা আ’লীগ ও সহযোগি সংগঠনের নেতাকর্মীরা ঐক্যবদ্ধ হয়ে সভাস্থলে উপস্থিত হলে উপজেলা সমবায় হল রুম কানায় কানায় পূর্ন হয়ে ওঠে। এ সময় নেতাকর্মীদের মাঝে উৎসব মুখর পরিবেশ সুষ্টি হয় এবং প্রবীণ আর নবীণ নেতারা ঐকবদ্ধ হওয়ায় সাধুবাদ জানান।

পেকুয়া বাজারস্থ সমবায় কমিউনিটি হল রুমে উপজেলা আ’লীগের সাবেক ধর্ম বিষয়ক সম্পাদক মাওলানা ছাবের আহমদ এর পবিত্র কোরাআন তেলোয়াতের মাধ্যমে অনুষ্টিত সভায় সভাপতিত্ব করেন ১৫ আগষ্ট জাতীয় শোক দিবস ও শাহাদত বার্ষিকী পালন কমিটির চেয়ারম্যান জেলা আ’লীগের প্রভাবশালী সদস্য এসএম গিয়াস উদ্দিন। সদস্য সচিব উপজেলা আ’লীগ নেতা সাবেক টইটং ইউপি’র চেয়ারম্যান শহিদুল্লাহ (বিএ) পরিচালনায় অনুষ্টিত সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন জেলা আ’লীগের উপদেষ্টা সাবেক সদর ইউপি’র চেয়ারম্যান ১৫ আগষ্ট জাতীয় শোক দিবস ও শাহাদত বার্ষিকী পালন কমিটির সিনিয়র সদস্য এ্যাড: কামাল হোসেন।

বক্তব্য রাখেন জেলা আ’লীগের প্রভাবশালী সদস্য ১৫ আগষ্ট জাতীয় শোক দিবস ও শাহাদত বার্ষিকী পালন কমিটির কো-চেয়ারম্যান উম্মে কুলমুস মিনু, আ’লীগ নেতা মাষ্টার সালাউদ্দিন এমএ, কাজিউল ইনসান, কামাল হোছাইন এমকম, মাশুক আহমদ, মো: মুফিজ, মাষ্টার শাহালম, আহামুদুর রহমান, উপজেলা যুবলীগের সভাপতি জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান জাহাঙ্গীর আলম, প্রকাশনা উপ-কমিটির আহ্বায়ক মাষ্টার হানিফ চৌ:, সদস্য সচিব মমতাজ উদ্দিন, আ’লীগ নেতা এ্যাড গিয়াস উদ্দিন, সাবেক ইউপি সদস্য জাহাঙ্গীর আলম, রাজাখালী ইউপি’র সাবেক চেয়ারম্যান নজুরুল ইসলাম সিকদার বাবুল, আবু তালেব, সাইফুউদ্দিন খালেদ, আবুল শামা শামীম, ছৈয়দুল হক, শ্রমিকলীগ জেলা কমিটির সহ-সভাপতি আবদুল ওয়াদুদ. মগনামার আ’লীগ নেতা আনোয়ারুল আজিম বাবুল, নুরুল হুদা, ইউপি সদস্য আজিজুল হক, মোকতার, উজানটিয়ার নাজেম উদ্দিন চৌধুরী,

মাষ্টার হোছাইন, সদর আ’লীগ সম্পাদক বেলাল উদ্দিন, ছৈয়দ নুর, বারবাকিয়া আ’লীগ নেতা ওসমাণ, ইউপি সদস্য এম এনামুল হক, টইটংয়ের আ’লীগ নেতা জমির হোসেন, কৃষকলীগের আহ্বায়ক আবদু রশিদ ভেট্টা,কৃষকলীগ নেতা আবু তালেব, যুবলীগ নেতা শফিউল আলম, ইউপি সদস্য বাদশা মিয়া, আকতার হোছাইন, সৈনিকলীগ উপজেলা শাখার সভাপতি সাংবাদিক শহিদুল ইসলাম হিরু, সাধারণ সম্পাদক মো: ফারুক, শ্রমিকলীগ উপজেলা শাখার আহ্বায়ক নুরুল আবছার, সদস্য সচিব সাইফুল ইসলাম বাবুল,

মৎস্যজীবিলীগের সভাপতি জাকিরুল ইসলাম,তাঁতীলীগের আহ্বায়ক জায়েদ মোর্শেদ, সদস্য সচিব মো: ইসমাঈল, ছাত্রলীগ পেকুয়া উপজেলা শাখার যুগ্ন-সম্পাদক(১) ওসমাণ সরওয়ার বাপ্পি, যুবলীগ নেতা সেলিম উদ্দিন, সাবেক ইউপি সদস্য আরিফুল ইসলাম, জাফর আলম, হারুনর রশিদ, আনসার উদ্দিন, জয়নাল আবদীন, টইটং যুবলীগের সভাপতি এনামুল হক চৌধুরী, সৈনিকলীগ সদর সভাপতি আরশাদুজ্জামান, মগনামা সভাপতি মো: আকতার, উজানটিয়ার সভাপতি হারুনর রশিদ, সম্পাদক মো: মুছা, বারবাকিয়ার সভাপতি মো: আক্কাস, টইটংয়ের সম্পাদক রবিউল আলম, সদর যুবলীগ সভাপতি শহিদুল ইসলাম, সম্পাদক আরিফুল ইসলাম, মগনামা সভাপতি রুকুন উদ্দিন, সম্পাদক মো: ইসমাঈল, উজানটিয়ার সভাপতি মহি উদ্দিন, সম্পাদক মিজবাহ উদ্দিন, রাজাখালীর সম্পাদক টিপু, টইটং সম্পাদক মো: বাচ্চু মিয়া, বারবাকিয়া সভাপতি হেলাল উদ্দিন, সম্পাদক আবুল কালাম, শীলখালী সভাপতি শেখ ফরিদ, সম্পাদক তুষার, শ্রমিকলীগ নেতা গিয়াস উদ্দিন, খোরশেদ আলম, আবদুল হামিদ, জহির উদ্দিন, সৈনিকলীগ নেতা আজিজুল হক, দিদারুল ইসলাম, করিমসহ উপজেলা, ইউনিয়ন ও ওয়ার্ড আ’লীগ ও সহযোগি সংগঠনের নেতৃবৃন্দরা।

পরে ১৫ আগষ্ট জাতীর জনকের শাহাদত বার্ষিকী শ্রদ্ধার সাথে পালন করার সিদ্ধান্ত গৃহিত হয় এবং জাতীর জনকের স্মৃতি বিভিন্ন বিষয় নিয়ে স্মরণিকা প্রকাশ করার উদ্যোগ নেওয়া হয়।

 

Share this post

PinIt
scroll to top
bahis siteleri