খুটাখালীতে রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় মুক্তিযোদ্ধা জাকের আহমদের দাপন সম্পন্ন

moktijoda-jaker.jpg

সেলিম উদ্দিন,খুটাখালী(৮ সেপ্টেম্বর) :: নেতাকর্মী, শুভাকাঙ্খীসহ সর্বশ্রেণী পেশার মানুষের মাঝ থেকে চির বিদায় নিয়ে গেলেন চকরিয়া উপজেলার খুটাখালী ইউনিয়নের বীর মুক্তিযোদ্ধা জাকের আহমদ প্রকাশ টুনা মিয়া। কিশলয় স্কুল মাঠে তাঁর নামাজে জানাযায় বিপুল সংখ্যক শোকার্ত মানুষের ঢল নামে। শেষ বারের মত বিদায় জানাতে বিভিন্ন সম্প্রদায়ের লোক সমবেত হয়।

তিনি বৃহষ্পতিবার সন্ধ্যা সাড়ে ৭ টার সময় চট্রগ্রাম মা ও শিশু জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যু বরন করেন।

শুক্রবার (৮ সেপ্টেম্বর) বাদে জুমা কিশলয় স্কুল মাঠে তাঁর নামাজে জানাযা অনুষ্ঠিত হয়।

জানাযা নামাজের পুর্বে চকরিয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো: শাহেদুল ইসলামের নেতৃত্বে পুলিশের একটি সু-সজ্জিত দল গার্ড অব অনার প্রদর্শন করেন।

এসময় নির্বাহী কর্মকর্তা ও মুক্তিযোদ্ধারা পুষ্পমাল্য প্রদান করেন। পরে এক মিনিট দাঁড়িয়ে নিরবতা পালন করা হয়।

জানাযায় চকরিয়া উপজেলা আওয়ামীলীগ সভাপতি উপজেলা চেয়ারম্যান জাফর আলম,ভাইস চেয়ারম্যান সিরাজুল ইসলাম আজাদ, মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার মো: শাহজাহান, মুক্তিযোদ্ধা আবদু ছালাম, মুক্তিযোদ্ধা ডা. মোহাম্মদ হোছাইন, মুক্তিযোদ্ধা বজল মিয়া, ইউনিয়ন আওয়ামীলীগ সহ সভাপতি বাহাদুর হকসহ জেলা উপজেলা ও ইউনিয়নের বিপুল সংখ্যক নেতাকর্মী উপস্থিত ছিলেন।

মরহুম বীর মুক্তিযোদ্ধা জাকের আহমদের জানাযায় অংশ নিতে বিভিন্ন প্রান্ত থেকে ছুঁটে আসেন প্রচুর সংখ্যাক নেতাকর্মী। অংশ নেন বীর মুক্তিযোদ্ধাগন, আওয়ামীলীগ, বিএনপি, জামায়াত, শিক্ষক, শ্রমিক, সাংবাদিক, শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ছাত্রসহ বিভিন্ন শ্রেণীর পেশার মানুষ। এর আগে মরহুমের কপিনে জাতীয় পতাকা ও মুক্তিযোদ্ধা পতাকা দিয়ে ঢেকে রাখেন মুক্তিযোদ্ধা ফরিদুল আলমের নেতৃত্বে বীর মুক্তিযোদ্ধারা। জানাযা নামাজের পর খুটাখালী কেন্দ্রীয় মসজিদ সংলগ্ন কবরস্থানে তাকে সমাহিত করা হয়।

উল্লেখ্য গত বৃহষ্পতিবার সন্ধ্যা সাড়ে ৭ টার সময় চট্রগ্রাম মা ও শিশু জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মৃত্যু বরন করেন। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৭০ বছর। তিনি বর্ণিত ইউনিয়নের মাইজ পাড়ার মরহুম বাছা মিয়া তালুকদারের পুত্র এবং মরহুম মুক্তিযোদ্ধা জালাল আহমদ এমএ’র ছোট ভাই।

Share this post

PinIt
scroll to top
error: কপি করা নিষেধ !!
bahis siteleri