izmir escort telefonlari
porno izle sex hikaye
çorum sürücü kursu malatya reklam

চকরিয়ায় ভুমি বিরোধ জেরে ইউপি চেয়ারম্যানসহ ১৩ জনের বিরুদ্ধে মামলা

mamla-4.jpg

এম.জিয়াবুল হক,চকরিয়া(২৯ সেপ্টেম্বর) :: চকরিয়া উপজেলার ঢেমুশিয়া ইউনিয়নে ভুমি বিরোধের জেরে প্রতিপক্ষের হামলায় নারীসহ চারজন গুরুতর আহত হয়েছে। হামলার ঘটনায় ইউপি চেয়ারম্যানের নির্দেশের অভিযোগ তুলে আক্রান্ত পরিবারের গৃহকর্তা দিল মোহাম্মদ বাদি হয়ে উপজেলা সিনিয়র জুড়িসিয়াল ম্যাজিষ্টেট আদালতে ইউপি চেয়ারম্যানসহ ১৩জনের বিরুদ্ধে একটি নালিশী মামলা দায়ের করেছেন।

আদালতের বিচারক বাদির নালিশী মামলাটি আমলে নিয়ে তদন্ত পুর্বক প্রতিবেদন দাখিলের জন্য চকরিয়া থানা পুলিশকে নির্দেশ দিয়েছেন।

মামলার অভিযুক্ত বিবাদিরা হলেন ঢেমুশিয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান নুরুল আলম জিকু বাদির প্রতিপক্ষ দোস্ত মোহাম্মদ, শওকত ওসমান, নুর মোহাম্মদ, আজম উদ্দিন, আফছির আরা বেগম, মো. এমরুল, দিলদার নাজনাঈম আকফ্ফা, জিয়াউর রহমান, হিফজু হুমা, এ্যামি সোলতানা, নুরুল আলম ও মোঃ বেলাল উদ্দিন। এছাড়া মামলায় আরো ৪-৫ জনকে অজ্ঞাতনামা আসামি করা হয়েছে।

শুক্রবার বিকালে চকরিয়া প্রেসক্লাবে উপস্থিত হয়ে আক্রান্ত পরিবারের গৃহকর্তা উপজেলার ঢেমুশিয়া ইউনিয়নের ৬নম্বর ওয়ার্ডের গান্ধী পাড়া এলাকার মাস্টার হাফেজ আহমদের ছেলে দিল মোহাম্মদ জানান, তাঁর সাথে পৈত্রিক জমি-জমা নিয়ে ভাই দোস্ত মোহাম্মদসহ অপর ভাই বোনদের মধ্যে দীর্ঘদিন ধরে বিরোধ চলে আসছিল।

এরই জের ধরে গত ২২ সেপ্টেম্বর সকালে ইউপি চেয়ারম্যানের নির্দেশে প্রতিপক্ষ দোস্ত মোহাম্মদ তাঁর লোকজন দলবদ্ধ হয়ে বাদির (দিল মোহাম্মদ) বাড়িতে ঢুকে হামলা করে।

এসময় পরিবার সদস্যদের ব্যাপক মারধর করে বাড়িতে লুটপাট চালায়। এতে গৃহকর্তা দিল মোহাম্মদ (৬০), তার স্ত্রী হামিদা বেগম (৪৭), মোঃ মিল্লাত হাফেজের স্ত্রী জুবলী আক্তার (২২), দিল মোহাম্মদের ছেলে মোহাম্মদ বাবর হাফেজী (১৬) সহ ৪ জন আহত হন। পরে তাদেরকে উদ্ধার করে চকরিয়া সরকারী হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

এ ঘটনায় দিল মোহাম্মদ বাদী হয়ে গত ২৪ সেপ্টেম্বর ১৩ জনের নাম উল্লেখ করে আরো ৪-৫ জনকে অজ্ঞাত আসামি দেখিয়ে চকরিয়া উপজেলা সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে নালিশী মামলাটি রুজু করেন।

আহত দিল মোহাম্মদ বলেন, গত ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচনে তার বিপক্ষে ভোট দেওয়ায় চেয়ারম্যান নুরুল আলম জিকু তাঁর (বাদি) বিরুদ্ধে অবস্থন নেয়। পরে পৈত্রিক ঘটনায় তিনি (ইউপি চেয়ারম্যান) উস্কানি দিয়ে হামলা করতে প্রতিপক্ষকে উৎসাহ দেয় বলে অভিযোগ করেন দিল মোহাম্মদ। বর্তমানে দিল মোহাম্মদের পরিবার এলাকা ছেড়ে অন্যত্র চকরিয়া পৌরসভার বোনের বাড়িতে আশ্রয় নিয়েছে।

ঘটনাটি সম্পর্কে জানতে চাইলে ইউপি চেয়ারম্যান নুরুল আলম জিকু মুঠোফোনে বলেন, ইতিপূর্বে দিল মোহাম্মদ ও দোস্ত মোহাম্মদের একটি পারিবারিক বিষয় নিয়ে পরিষদে বিচার ছিল। ওই বিচার দোস্ত মোহাম্মদের পক্ষে যাওয়ায় দিল মোহাম্মদ ক্ষিপ্ত তাদের পারিবারিক ঘটনার জেরে দায়ের করা মামলায় আমাকে মামলায় জড়ানো হয়েছে।

 

Share this post

PinIt
scroll to top
bedava bahis bahis siteleri
bahis siteleri