বার্সেলোনায় ব্রাজিলিয়ান প্লেমেকার কুতিনহো

ktnho.jpg

কক্সবাংলা ডটকম(৭ জানুয়ারী) :: অবশেষে স্বপ্নের ঠিকানা পেয়ে গেলেন ফিলিপে কুতিনহো। ব্রাজিলিয়ান প্লেমেকারকে ১৬ কোটি ইউরোয় (১ হাজার ৫৯৬ কোটি টাকা) দলভুক্ত করল স্প্যানিশ ক্লাব বার্সেলোনা। ২৫ বছর বয়সী এ খেলোয়াড়ের সঙ্গে সাড়ে পাঁচ বছরের চুক্তি হয়েছে কাতালান ক্লাবটির। চুক্তিতে রিলিজ ক্লজ রাখা হয়েছে ৪০ কোটি ইউরো।

কুতিনহোর দলবদলে ব্রিটিশ ও স্প্যানিশ রেকর্ড ভেঙে চুরমার। ব্রিটিশ ফুটবলে এত অর্থে আগে কখনই কোনো দলবদল হয়নি। আগের রেকর্ডটি ১০ কোটি ৫০ লাখ ইউরোর। ২০১৬ সালে জুভেন্টাস থেকে পল পগবাকে ওই অর্থে কিনেছিল ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড। স্পেনের কোনো ক্লাবও এত দামে কোনো খেলোয়াড়কে আগে কখনো কেনেনি। সেই অর্থে এটা স্পেনের ফুটবলেও রেকর্ড। যদিও বিক্রিতে অনেক বড় রেকর্ডের অধিকারী স্পেনের ক্লাব বার্সেলোনা। গত গ্রীষ্মে তারা ২২ কোটি ২০ লাখ ইউরোয় পিএসজির কাছে বিক্রি করে কুতিনহোরই স্বদেশী নেইমারকে।

ফুটবলে রেকর্ড ভাঙা-গড়ার খেলা চলছেই। দলবদলের সর্বোচ্চ ১১টি রেকর্ডের মধ্যে ১০টিই হয়েছে গত পাঁচ বছরে! এর মধ্যে গত তিন বছরে ফুটবলের ফি পৌঁছেছে অবিশ্বাস্য উচ্চতায়। পগবার পেছনে ম্যানইউর ব্যয় করা ১০ কোটি ৫০ লাখ ইউরোকেই যখন মনে হচ্ছিল অনতিক্রম, তখনই নেইমারকে ২২ কোটি ২০ লাখ ইউরোয় কিনে তাক লাগিয়ে দেয় পিএসজি। এখন তাই কুতিনহোর ১৬ কোটি ইউরোর দলবদলেও মানুষ মোটেও বিস্মিত হচ্ছেন না।

বার্সা নগদ ১০ কোটি ইউরো পরিশোধের পাশাপাশি ৪ কোটি ইউরো দিতে চেয়েছিল ‘অন্যান্য’ খাতে। কিন্তু গত সপ্তাহে বার্সা কর্তৃক কুতিনহোকে কেনার খবর ফাঁস করে দেয় নাইকি। ওই ঘটনার পর আরো বেশি ফি দাবি করে অনড় থাকে লিভারপুল। বার্সাকে তাই বাধ্য হয়েই ২ কোটি ইউরো বেশি ফি দিতে হচ্ছে।

কুতিনহোর জন্য প্রথমেই ১২ কোটি ইউরো পাবে লিভারপুল। দলবদলের বাকি অর্থ পাবে শর্তসাপেক্ষে। যেমন, এ খেলোয়াড় বার্সায় শততম ম্যাচ খেললে ২ কোটি ইউরো ও প্রথম দুটি চ্যাম্পিয়ন্স লিগ কিংবা ইউরোপিয়ান শিরোপার জন্য ৫০ লাখ ইউরো পাবে লিভারপুল।

চুক্তিতে রিলিজ ক্লজ ছিল না, এমন কোনো খেলোয়াড়কে বিক্রির ক্ষেত্রেও এটা গড়েছে নতুন ব্রিটিশ রেকর্ড। ব্রাজিলের কিংবদন্তি স্ট্রাইকার রোনালদো নাজারিও কিছুদিন আগে কুতিনহোকে সতর্ক করে দিয়ে বলেছেন, ব্রাজিলের খেলোয়াড়দের সঙ্গে বার্সেলোনার ইতিহাস সুখকর নয়। তাদের সঙ্গে মোটেও ভালো আচরণ করেনি ক্লাবটির নীতিনির্ধারক। কিন্তু পূর্বপরিকল্পনায় অনড় থাকেন কুতিনহো। অবশেষে তার চাওয়াই পূরণ হলো।

শনিবার রাতে লিভারপুল থেকে উড়ে যান স্পেনে, গতকাল লেভান্তের বিপক্ষে বার্সার ম্যাচ দেখেন গ্যালারিতে বসে। এখন মাঠে নামার অপেক্ষা।

গত গ্রীষ্মে লিভারপুল ছাড়তে উদ্গ্রীব হয়ে ওঠেন কুতিনহো। তিনি ক্লাবটির কাছে দলবদলের আবেদন জানান। কিন্তু সেবার ফি নিয়ে সমঝোতা না হওয়ায় এ খেলোয়াড় থেকে যান লিভারপুলেই। শীতকালীন দলবদল সামনে রেখে আবারো কুতিনহোকে নিয়ে গুঞ্জন চলতে থাকে।

এ নিয়ে লিভারপুল কোচ ইয়ুর্গেন ক্লোপ বলেন, ‘আমরা একজন ভালো বন্ধু, অসাধারণ ব্যক্তি ও খেলোয়াড়কে বিদায় জানাতে তৈরি। এখানে গোপনীয়তার কিছু নেই যে, গত জুলাইয়েই সে বার্সেলোনায় নাম লেখাতে চেয়েছিল।

কুতিনহো আমার কাছে, মালিকের কাছে, এমনকি তার সতীর্থদের কাছেও তাকে চলে যেতে দেয়ার সনির্বন্ধ অনুরোধ করছিল। তবু আমরা তাকে গ্রীষ্মের পরও এখানে রাখতে সমর্থ হই এবং আশা করছিলাম, হয়তো ভবিষ্যতেও সে থেকে যাবে।’

ক্লোপ আরো বলেন, ‘লিভারপুল সমর্থকদের আমি আশ্বস্ত করতে পারি— কুতিনহোকে রাখতে সম্ভাব্য সবকিছুই আমি করেছি। কিন্তু সে তার ভবিষ্যত্ নিয়ে শতভাগ নিশ্চিত ছিল— তার গন্তব্য ছিল বার্সেলোনায়। এটা ছিল তার স্বপ্ন এবং তার মন পরিবর্তনে আমাদের আর কিছুই করার ছিল না।’

এক ভিডিও বার্তায় চুক্তির বিষয়টি নিশ্চিত করে  বার্সা। ক্লাবটির ওয়েবসাইটে এক ভিডিওতে দেখা যায়, বার্সার লকার রুমে অন্য সতীর্থদের পাশাপাশি কুতিনহোর একটি জার্সিও ঝুলছে। পরে টুইটার ও ইনস্টাগ্রামেও এ খবর শেয়ার করে ক্লাবটি।

ফুটবলের ইতিহাসে সবচেয়ে দামি ফুটবলার নেইমার, দুইয়ে তারই স্বদেশী কুতিনহো। অবশ্য আগামী গ্রীষ্মে তিনে নেমে যেতে পারেন তিনি। কেননা তখন কিলিয়ান এমবাপ্পের ১৮ কোটি ইউরোর দলবদলটা কার্যকর হবে। উয়েফার ফিন্যান্সিয়াল ফেয়ার প্লের (এফএফপি) শাস্তি থেকে বাঁচতেই গত গ্রীষ্মে এমবাপ্পেকে না কিনে ধার চুক্তিতে দলভুক্ত করে প্যারিস জায়ান্টরা।

আগামী গ্রীষ্মে ফরাসি স্ট্রাইকারকে পাকাপাকিভাকে নিজেদের করে নেবে কাতারি মালিকানাধীন ক্লাবটি। তখন ইতিহাসের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ দামি ফুটবলার হয়ে যাবেন তিনি। তবে আপাতত এ মুকুট কুতিনহোর মাথায়ই।

কুতিনহোকে বিক্রি করে বিশাল মুনাফা করল লিভারপুল। ২০১৩ সালে ইতালির ইন্টার মিলান থেকে ৯৫ লাখ ইউরোয় তাকে কিনেছিল লিভারপুল। সেই থেকে সাড়ে চার বছরে তিনি ‘অল রেড’দের হয়ে দাপটে খেলে যাচ্ছেন। ক্লাবটির হয়ে করেছেন ৫৪ গোল। যদিও মার্সেসাইডের ক্লাবটির হয়ে কোনো শিরোপার স্বাদ পাননি।

বিবিসি, এএফপি, মেইল অনলাইন

Share this post

PinIt
scroll to top
bahis siteleri