Home কক্সবাজার কক্সবাজারের গর্জনিয়ায় সেচ প্রকল্পে হাজার কৃষকের আশার আলো

কক্সবাজারের গর্জনিয়ায় সেচ প্রকল্পে হাজার কৃষকের আশার আলো

26
SHARE

হাবিবুর রহমান সোহেল,নাইক্ষ্যংছড়ি(১৩ ফেব্রুয়ারি) :: রামুর গর্জনিয়ার বেলতলী কৃষি সেচ প্রকল্পে বেলতলি ও তার পার্শবর্তী  হাজার হাজার কৃষকের মনে আশার আলোতে বুক জোড়ে গেছে।

সরজমিন পরিদর্শনে দেখা গেছে ওই সেচ প্রকল্পের আওতাধিন প্রায় ১শ একর জমিতে ধানের চাষ হয়েছে। ওই সব ধান ইতিমধ্যে সবুজে সবুজে আলোকিত হয়ে একটি চোখ দাধানো পরিবেশের সৃষ্টি হয়েছে।

এলেকার শতাধিক কৃষকের সাথে কথা বলে জানা গেছে, ওই সেচ প্রকল্পের ব্যবস্থাপক পরিবর্তনের খবরে কৃষকের মূখে হাসি ফুটেছে। প্রকল্পের ব্যবস্থাপক নুরুল আমিন কে দায়িত দেওয়া পর এখানকার অনাবাদি ৫০ একরের বেশি জমিতে নতুন করে চাষ হয়েছে।

যা আগের তুলনায় ১০ গুন বেশি বলে দাবী করেছে একাবাসী। তার কারন হিসেবে ওই এলেকার বাসিন্দা আবু শাহমা, বদিউল আলম, আনুমিয়া, আমির আলী ফরিদুল আমল, মোঃ ইদ্রিস, মোফাজ্জল হোসেন, নুর আহাং সহ শতাধিক লোকের দাবী এর আগে এই প্রকল্পের ব্যবস্থাপক মো.শাহজাহান ও তার দলবল মিলে কৃষকের উপর নানা অনিয়ম ও অত্যাচার করতো।  যার কারনে তারা আগের বছর ওই প্রকল্পে ধান চাষের প্রতি তেমন আগ্রহী ছিল না। ওই শাহাজানের বিরুদ্ধে কৃষকের বিভিন্ন ধরনের অভিযোগ ছিল।

সম্প্রতি কৃষক, সংসদ সদস্য ও উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যানসহ সর্বমহলের অনুরোধে বিএডিসি কর্তৃপক্ষ স্থানীয় বাসিন্দা নুরুল আমিনকে বেলতলী কৃষি সেচ প্রকল্পের ব্যবস্থাপক করে সেচ কমিটি অনুমোদন দেন। বিএডিসির এক সহকারি প্রকৌশলি ব্ষিয়টি নিশ্চিত করেছেন। আর এ খবরে সংশ্লিষ্ট কৃষক এবং জমির মালিকের মুখে হাসি ফুটেছে। ১২০টি কৃষি পরিবার ওই কৃষি সেচ প্রকল্প থেকে পানি সরবরাহ করে ইতিমধ্যে লাভবান হতে শুরু করেছে।

কৃষক জসিমউদ্দিন বলেন, শাহজাহান ছিলেন পার্বত্য জেলার বাসিন্দা। তিনি সম্পূর্ণ অবৈধভাবে ব্যবস্থাপক পদে ছিলেন। সে টাকা বেশি দাবি করে কৃষকদের হয়রানি করতেন। এখন নুরুল আমিন ব্যবস্থাপক হওয়াতে কৃষকেরা উপকৃত হবে।

স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতা শাহ আলম বলেন, বেলতলী কৃষি সেচ প্রকল্পের কৃষকেরা এখন ঐক্যবদ্ধ। তারা অনিয়মের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়াতে প্রস্তুত। তবে ফের শাহজাহান ওই প্রকল্পের ব্যবস্থাপক হতে মরিয়া হয়ে উঠেছে বলে জানিয়েছেন স্থানীয় ইউনিয়নের হাজার মানুষ।

এদিকে প্রকল্পের নবনির্বাচিত ব্যবস্থাপক মো.নুরুল আমিন বলেন, ইতোমধ্যে বাঁকখালী নদীর পাশে নতুন মটর পাম্প স্থাপন করে কৃষি সেচ প্রকল্প সচল করা হয়েছে। এখন জমিতে ধান বড় হয়ে সবুজে সবুজে মাঠ ভরে গেছে।

SHARE