রোহিঙ্গাদের ধর্মীয় স্বাধীনতা ও নাগরিক অধিকার নিশ্চিত করতে হবে : কক্সবাজারে মার্কিন দূত

sam-broun-bac.jpg

কক্সবাংলা রিপোর্ট(১৮ এপ্রিল) :: কক্সবাজারের রোহিঙ্গা ক্যাম্প এবং তুমব্রু নো-ম্যান্স ল্যান্ড পরিদর্শন করেছেন মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের আন্তর্জতিক ধর্মীয় স্বাধীনতা বিষয়ক দূত স্যাম ব্রাউনব্যাক এবং বাংলাদেশে নিযুক্ত মার্কিন রাষ্ট্রদূত মার্শা ব্লুম বার্নিকাট ।

১৮ এপ্রিল বুধবার সকাল ১১টার দিকে উখিয়ায় কুতুপালং রোহিঙ্গা ক্যাম্প পরিদর্শন এবং নাইক্ষ্যংছড়িতে তুমব্রু কোনারপাড়া শূণ্যরেখায় অবস্থান নেয়া রোহিঙ্গা পরিস্থিতি দেখতে যান তারা। এরপর বিকালে কুতুপালং মধুর ছড়া রোহিঙ্গা ক্যাম্প পরিদর্শন করেন এবং মসজিদের ঈমাম, মাদ্রাসা শিক্ষক, ধর্মীয় নেতাদের সাথে কথা বলেন তিনি।

এসময় যুক্তরাষ্ট্রের আন্তর্জতিক ধর্মীয় স্বাধীনতা বিষয়ক দূত স্যাম ব্রাউন ব্যাক বলেন,রোহিঙ্গারা যাতে ন্যায় বিচার পায় এবং দ্রুত নিজ দেশে ফিরতে পারে সে বিষয়ে যুক্তরাষ্ট্র কাজ করছে।দেশে ফিরে গিয়ে রোহিঙ্গা মুসলিমরা পূর্ণ ধর্মীয় স্বাধীনতা যাতে ভোগ করতে পারে সেই দিকও খেয়াল রাখছে ট্রাম্প সরকার।এ কারণে রোহিঙ্গাদের প্রত্যাবাসন প্রক্রিয়ায় যুক্তরাষ্ট্র বাংলাদেশের পাশে আছে। যুক্তরাষ্ট্র চায় দ্রুত রোহিঙ্গাদের মিয়ানমারে ফেরত নেয়া হোক।

এসময় তিনি আরো বলেন,মিয়ানমারে রোহিঙ্গারা জাতিগত বৈষম্যের শিকার হয়েছে এবং তারা সেখানে স্বাধীনভাবে ধর্মীয় কর্মকাণ্ড চালাতে বাধাগ্রস্থ হয়েছে। এ ছাড়াও মিয়ানমারের রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠী সেখানকার রাখাইন সম্প্রদায়ের ধর্মীয় প্রতিবন্ধকতার পাশাপাশি অত্যাচার নির্যাতনের শিকার হয়ে প্রাণ বাঁচাতে বাংলাদেশে চলে আসতে বাধ্য হয়েছে। এমনকি অসংখ্য তরুণ-তরুণী, শিশু, বয়োবৃদ্ধ লোকজন হত্যার শিকার হয়েছে। ধর্ষণের শিকার হয়েছে কিশোরী ও তরুণীরা।

তাই সবার আগে মিয়ানমার সরকারকে নিরাপদ পরিবেশ তৈরি করতে হবে। লুণ্ঠিত বাড়িঘর, ধন সম্পদ ফিরিয়ে দিতে হবে। ধর্মীয় স্বাধীনতা ও নাগরিক অধিকার নিশ্চিত করতে হবে। এসব সুবিধা দেয়া হলে রোহিঙ্গারা মিয়ানমারে ফিরে যাবে।

এসময় প্রশাসনের পদস্থ কর্মকর্তা সহ ইউএনএইচসিআর এবং আইওএম এর প্রতিনিধিরা উপস্থিত ছিলেন।

 

Share this post

PinIt
scroll to top
bahis siteleri