পেকুয়ায় অগ্নিকান্ডে বসতবাড়ি ভষ্মীভূত

fire-md20150520190046.jpg

নাজিম উদ্দিন,পেকুয়া(২১ এপ্রিল) :: পেকুয়ায় অগ্নিকান্ডে বসতবাড়ির আংশিক ভষ্মীভূত হয়েছে। তবে আগুনের সুত্রপাত নিয়ে সন্দেহের অবতারনা দেখা দিয়েছে। গভীর রাতে আগুন এর সুত্রপাত হয়েছে। এ সময় বসতবাড়ির গৃহবধূ আগুন দেখতে পান।

তারা আর্তচিৎকার করলে স্থানীয়রা ওই স্থানে দ্রুত গিয়ে আগুন নিয়ন্ত্রনে আনে। এ সময় বসতবাড়ির রান্নাঘরটির প্রায় ২৫ ভাগ পুঁেড় ছাই হয়ে যায়।

উপজেলার রাজাখালী ইউনিয়নের লালজানপাড়া গ্রামে অগ্নিকান্ডের এ ঘটনা ঘটে ২০ এপ্রিল গভীর রাতে। বাড়ির মালিকের নাম হাজী নুরুচ্ছফা। তিনি ওই এলাকার মৃত হাজী নুর আহমদের ছেলে।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়,ওই দিন রাত ২ টার দিকে হাজী নুরুচ্ছফার বসতবাড়ির রান্নাঘরে আগুন লেগে যায়।

বসতবাড়ির উত্তর পাশের্^ ছালের একপেশে দাউ দাউ করে আগুন জ¦লতে থাকে। এ সময় নুরুচ্ছফার পুত্রবধূ হাসিনা বেগম আগুন দেখতে পান। তিনি চিৎকার করে পাড়া প্রতিবেশীদের চেতন করেন।

প্রায় ৩০/৪০ জন স্থানীয়রা জড়ো হয়ে দ্রুত পানি ছিটিয়ে আগুন নিয়ন্ত্রন আনতে সক্ষম হন।

আনিসুর রহমান, নবী হোসাইন, জাফর আহমদ, বশির মিয়া, আহমদ হোসনসহ স্থানীয়রা জানায়, আগুন এর দৃশ্য আমরা দেখতে পেয়ে দ্রুত ছুটে গিয়েছিলাম। পানি দিয়ে আগুন নেভানো হয়েছে। নিছের কোন অংশ থেকে আগুনের সুত্রপাত হয়নি।

এটি নুরুচ্ছফার রান্না ঘর। ছাউনের ছানি ছালের উত্তরাংশে আগুন দেখা গেছে। নুরুচ্ছফা গংদের সাথে তার ভাইয়ের ছেলেদের বিরোধ চলছিল। তারা এক বছর ধরে এক পক্ষ অপরপক্ষকে ঘায়েল করার চেষ্টায়। মনে হচ্ছে এটি শত্রুতাও হতে পারে।

নুরুচ্ছফার স্ত্রী মরিয়ম খাতুন জানায়, আমরা চেতন না হলে বড় ধরনের ক্ষয়ক্ষতি হত। এটি নাশকতা।

হাজি নুরুচ্ছফা জানায়, ৮শতক বসতবাড়ির জায়গা সেকান্দর আলী গং জবর দখলে রেখেছে। তারা আমাকে নানাভাবে হয়রানি ও গায়েল করার চেষ্টা করছে। এ আগুন তারাই দিয়েছে। এটি আমার যথেষ্ট সন্দেহ এদের উপর। পুত্রবধূ গোলাম রহমানের স্ত্রী হাসিনা বেগম জানায়, আমরা মহিলারা দ্রুত বাইরে গিয়ে চিৎকার দিয়ে মানুষ জড়ো করি। তারা এসে আগুন নিভে ফেলে।

শত্রুতামুলক আগুন দিয়েছে। বাড়ির ছালের উপরে এ আগুন ধরবে কেন। অবশ্যই কেউ দিয়েছে। আমরা সর্বনাশ হতাম। আল্লাহ রক্ষা করেছে।

Share this post

PinIt
scroll to top
error: কপি করা নিষেধ !!
bahis siteleri