মিয়ানমারের সাথে সামরিক সম্পর্ক পুনর্বিবেচনা করছে অস্ট্রেলিয়া

myanmar_army.jpg

কক্সবাংলা ডটকম(২৫ এপ্রিল) :: রোহিঙ্গাদের সাথে আচরণের কারণে অস্ট্রেলিয়ার সাথে মিয়ানমারের সামরিক সহযোগিতা এখন ‘পুরোপুরি অচল’ হয়ে পড়েছে। বিরোধীদলের প্রতিরক্ষা মুখপাত্র এ তথ্য জানিয়েছেন।

জাতীয় প্রেস ক্লাবে মঙ্গলবার এক বক্তৃতায় লেবার দলের রিচার্ড মার্লেস বলেন অস্ট্রেলিয়ার উচিত অভ্যন্তরীণ প্রতিরক্ষা শিল্পের উন্নয়ন করা। তার এই বক্তৃতার প্রতিক্রিয়ায় ওই মন্তব্য করা হলো।

রাখাইন রাজ্যের মুসলিম সংখ্যালঘু রোহিঙ্গাদের সাথে অমানবিক আচরণের পরও মিয়ানমারের সামরিক বাহিনীর সাথে সহযোগিতা অব্যাহত রাখায় সমালোচনার মুখে পড়তে হয়েছে অস্ট্রেলিয়াকে। মিয়ানমারের সেনাবাহিনীর আচরণকে জাতিসংঘ গণহত্যার আদর্শ উদাহরণ হিসেবে আখ্যা দিয়েছে।

ভবিষ্যতের লেবার সরকার ইউরোপিয় ইউনিয়ন, যুক্তরাষ্ট্র, ব্রিটেন, কানাডা এবং ফ্রান্সের মতো সামরিক সম্পর্কোচ্ছেদ করবে কি না, এমন প্রশ্নের জবাবে মার্লেস রোহিঙ্গাদের প্রতি মিয়ানমার সেনাবাহিনীর আচরণকে ‘নিষ্ঠুর বর্বরতা’ হিসেবে আখ্যা দেন।

মার্লেস বলেন, মিয়ানমার স্বৈরাচারি ব্যবস্থা থেকে গণতন্ত্রের দিকে যাচ্ছিল। এখানে মিয়ানমারের সামরিক বাহিনীর সাথে আরও বড় ধরণের প্রতিরক্ষা সহযোগিতা তৈরির সুযোগ ছিল।

তিনি বলেন, কিন্তু এখন রোহিঙ্গাদের সাথে যেটা ঘটেছে, সেটা আমার দৃষ্টিতে কোনভাবেই সমর্থনের যোগ্য নয়। “আসলে এখন এই কথাটা বলতেই কষ্ট হচ্ছে। কারণ, আমি মনে করি যে ধরণের দেশের সাথে আমাদের কাজ করা উচিত মিয়ানমার ঠিক সে ধরণের একটা দেশ এবং যে ধরণের সামরিক বাহিনীর সাথে আমরা কাজ করতে চাই তাদের সেনাবাহিনীও ঠিক সেই ধরণের। কিন্তু সেখানকার সংখ্যালঘুদের সাথে যেটা ঘটেছে, সেটা কোনভাবেই গ্রহণযোগ্য নয়।”

Share this post

PinIt
scroll to top