মঙ্গল গ্রহে প্রাণের অস্তিত্ব নিয়ে পরীক্ষামূলক গবেষণা

mars-wtr.jpg

কক্সবাংলা ডটকম(৪ জুন) :: মঙ্গল গ্রহে প্রাণের অস্তিত্ব থাকার সম্ভাবনা দেখছেন যুক্তরাজ্যের গবেষকরা। দেশটির দক্ষিণ উপকূলের সঙ্গে মঙ্গলপৃষ্ঠের কিছুটা মিল থাকায় পরীক্ষামূলকভাবে এখানে গবেষণা চালাচ্ছেন বিশেষজ্ঞরা। এর মাধ্যমে মঙ্গলগ্রহে প্রাণের অস্তিত্ব খোঁজ করা সহজ হবে বলে মনে করছেন তারা।

সেন্ট ওসওয়াল্ড বের তীব্র এসিডযুক্ত পানিতেও টিকে থাকে বিশেষ ধরণের সব অণুজীব ধারণা করা হয়, কয়েকশ কোটি বছর আগে মঙ্গল গ্রহের পরিবেশ এমনটাই ছিল।

ডোরসেট কাউন্টির প্রতিকূল এ পরিবেশ থেকে প্রাপ্ত তথ্য উপাত্ত মঙ্গলে প্রাণের অস্তিত্ব খুঁজতে সাহায্য করবে বলে মনে করছেন ইমেরিয়াল কলেজ অব লন্ডনের গবেষকরা।

এখানকার মাটিতে জিওথাইট নামক খনিজ পদার্থ ব্যাকটেরিয়ার জীবন ধারণে সহায়ক ভূমিকা রাখে। আর আয়রনযুক্ত এই জিওথাইটের পরিবর্তিত জীবাশ্ম হেমাটাইটের উপস্থিতির কারণেই মঙ্গলপৃষ্ঠে লালচে রঙ দেখা যায়।

ইমপেরিয়াল কলেজ অব লন্ডনের প্রধান গবেষক মার্ক সেফটোন বলেন,” মঙ্গল গ্রহে গিয়ে গবেষণা চালানো অত্যন্ত ব্যয়বহুল। তাই আমরা পৃথিবীতে মঙ্গলের সদৃশ পরিবেশে পরীক্ষা চালাচ্ছি। এর ফলে মঙ্গলপৃষ্ঠে পরীক্ষা করাটা সহজ ও নির্ভুল হবে”।

সেইন্ট ওসওয়াল্ড বে-র এসব তথ্য উপাত্ত বিশ্লেষণ করে মঙ্গলের ১২হাজার জলাশয়ে বিভিন্ন অণুজীবের টিকে থাকার সম্ভাবনা দেখছেন বিশেষজ্ঞরা।

ইমপেরিয়াল কলেজ অব লন্ডনের সহকারী গবেষক জোনাথন ট্যান বলেন,” এখানে আমরা জিওথাইটের সন্ধান পেয়েছি। এসব আয়রন সমৃদ্ধ এসব খনিজের মধ্যে অণুজীবেরা প্রাণ সঞ্চার করতে পারে। তাই মঙ্গল পৃষ্ঠে পৌঁছে আমরা জিওথাইটের মতো খনিজ উপাদান খোঁজার চেষ্টা করবো”।

২০২০ সালের মধ্যে মঙ্গলে ‘এক্সোমার্স’ অভিযান শুরু করবে যুক্তরাজ্যের জাতীয় মহাকাশ গবেষণা সংস্থা। অভিযান সফলভাবে পরিচালনা করতে সহায়তা করবে এসব গবেষণার তথ্য উপাত্ত।

Share this post

PinIt
scroll to top
bahis siteleri