চাঁদের ‘আঁধার পিঠ’ দেখতেই ভারতের চন্দ্রাভিযান

moon-black.jpg

কক্সবাংলা ডটকম(৩০ জুন) :: পৃথিবীর একমাত্র উপগ্রহ চাঁদের আলোকিত পিঠে এতদিন সবাই মহাকাশযান পাঠিয়েছে। আর এবার প্রথমবারের মতো নতুন একটা ইতিহাস গড়তে যাচ্ছে ভারতের মহাকাশ বিজ্ঞানীরা। দেশটির মহাকাশ গবেষণা সংস্থা ইসরো চাঁদের আলোকিত পিঠের পরিবর্তে পেছনের অন্ধকার পিঠ দেখতে অভিযানে যাচ্ছে।

এটি সফল হলে চাঁদের অন্ধকার পিঠে পাড়ি দেওয়ার জন্য পৃথিবীর প্রথম কোনও দেশ হিসেবে নাম উঠবে ভারতের।

চলতি বছরের অক্টোবরে ভারতের মহাকাশ যানটি চাঁদের উদ্দেশে যাত্রা করবে। ছয় চাকার রোভার চাঁদের মাটিতে নেমে ১৪ দিন ধরে ৪০০ মিটার ব্যাসার্ধ বিশিষ্ট অঞ্চল জুড়ে তল্লাশি চালিয়ে নমুনা ও তথ্য সংগ্রহের কাজ চালাবে। পাশাপাশি ওই রোভার চন্দ্রপৃষ্ঠের ছবিও তুলবে, যা থেকে ইসরো তাদের গবেষণা চালাবে।

এদিকে কেবল ভারতই নয় আমেরিকাও ওই অঞ্চলে অভিযান চালানোর পরিকল্পনা করছে। তবে এখনই নয় ২০২০ সালের প্রথম দিকে হয়তো চাঁদের উলটো পিঠে নামবে মার্কিন যান। সেই হিসেবে ইসরো তার বহু আগেই সাফল্য পেতে চলেছে।

কিন্তু কেন চাঁদের ওই অংশে যেতে চায় ভারত বা আমেরিকা? চাঁদে পানির চিহ্ন খোঁজার পাশাপাশি হিলিয়াম-৩ এরও সন্ধান চালাতে চান মহাকাশ গবেষকরা। নিঃসন্দেহে চাঁদের মাটিতে এই আইসোটোপের সন্ধান পাবে যে দেশ, তারা বিরাট শক্তি অর্জন করবে। ইসরোর চেয়ারম্যানকে শিভান এ প্রসঙ্গে জানিয়েছেন, ‘আমি এই প্রক্রিয়ার কেবল অংশমাত্র হতে চাই না। এটির নেতৃত্ব দিতে চাই।’

যদিও ভারতের প্রথম মহাকাশচারী রাকেশ শর্মা চাঁদের পিঠে এই ধরনের অভিযানের উদ্দেশ্য হিসেবে কেবল ব্যবসায়িক মনোবৃত্তিকে দেখতে চান না। তিনি জানিয়েছেন, ‘আপনি চাঁদে গিয়ে পাঁচিল তুলে দিতে পারেন না। আমি চাই ভারত দেখিয়ে দিক যে আমরা জনসাধারণের ভালর জন্য কীভাবে স্পেস টেকনোলজিকে কাজে লাগাতে পারি।’

Share this post

PinIt
scroll to top