ওজিলের বিদায়ে খুশি জার্মানরা

ozil.jpg

কক্সবাংলা ডটকম(২৪ জুলাই) :: বিতর্ক যেন পিছু ছাড়ছে না মেসুট ওজিলের৷ শুরুটা হয়েছিল বিশ্বকাপ শুরুর আগে ওজিলের তুরস্ক অভিযান নিয়ে৷ শত্রুদেশের প্রেসিডেন্টের সঙ্গে দহরমমহরম দেখে বেজায় চটেছিলেন জার্মানরা৷ দাবি উঠেছিল তাঁকে বিশ্বকাপ স্কোয়াডে না-রাখা নিয়ে৷ বিশ্বকাপের পরই বর্ণবিদ্বেষের অভিযোগ তুলে জার্মান দল ছাড়ার কথা ঘোষণা করেন ওজিল৷ এরপর পাল্টা দিলেন এক জার্মান বিশ্বকাপার, স্পষ্ট ভাষায় বললেন ‘জঘন্য ওজিল বিদায় নেওয়াতে আমি খুশি’৷

১৯৭৪ সালের জার্মান বিশ্বকাপ জয়ী দলের সদস্য হোয়েনেসের বলেন ‘ওজিলের দল ছাড়াতে জার্মানির লাভ হবে৷ ‘আমি খুশি এই বিতর্ক এখানেই শেষ হচ্ছে৷ অনেকদিন ধরেই জঘন্য খেলছিলও৷ সর্বশেষ ট্যাকল জিতেছিল ২০১৪ বিশ্বকাপের আগে৷ এখন নিজের বাজে পারফরম্যান্স ঢাকতে বর্ণবিদ্বেষের গল্প শোনাচ্ছে৷’

জার্মান হলেও পারিপারিক সূত্রে তুরস্কের সঙ্গে যুক্ত ওজিল বিশ্বকাপের ঠিক আগে তুরস্কের প্রেসিডেন্ট এর্দোয়ানের সঙ্গে একটি ছবি পোস্ট করেন সোশ্যাল মিডিয়ায়৷ তাতেই বেজায় চটে যায় জার্মান ফুটবল সংস্থা৷ কোচ জোয়াকিম লো কড়া ভাষায় জানিয়ে দেন যে, বিশ্বকাপের আগে বিতর্কিত রাজনৈতিক ব্যক্তিত্বের সঙ্গে বৈঠক, ছবি তোলা, অটোগ্রাফ দেওয়া জার্সি উপহার, এসব তিনি বরদাস্ত করবেন না৷

এর্দোয়ানের সঙ্গে ছবি তোলা নিয়ে ওজিল আগেই বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করেছিলেন৷ এবার নিজের অবসরের কথা ঘোষণা করে ওজিল বলেন, ‘প্রেসিডেন্ট এর্দোয়ানের সঙ্গে ছবি তোলা কোনও রাজনৈতিক উদ্দেশ্যে নয়৷ এর পিছনে নির্বাচনের কোনও প্রসঙ্গও ছিল না৷ এটা নিতান্তই আমার পরিবারের দেশের সর্বোচ্চ সরকারি ব্যক্তিত্বের প্রতি আমার সম্মান প্রদর্শন ছিল৷’

টুইটারে ওজিল আরও জানান, ‘আমি একজন ফুটবলার৷ রাজনীতিবিদ নই৷ আমার কাজ ফুটবল খেলা৷ সুতরাং আমাদের বৈঠকে কোনও রাজনৈতির অভিসন্ধি ছিল না৷ তবে এই ঘটনার জন্য জার্মান ফুটবল সংস্থার কাছ থেকে যে রকম ব্যবহার পেয়েছি এবং আরও অনেকেই যেভাবে অপদস্ত করেছে আমাকে, তাতে জার্মানির জার্সি গায়ে চাপিয়ে আমার পক্ষে আর মাঠে নামা সম্ভব নয়৷’

বর্তমানে ইংলিশ ক্লাবে আর্সেনালের হয়ে খেলেন ওজিল৷ জার্মান ক্লাব বার্য়ান মিউনিখের বিরুদ্ধে বরাবরই বাজে পারফর্ম করে আর্সেনাল৷ বিষয়টির উল্লেখ করে মজার যুক্তি দিয়েছেন হোয়েনেসের৷

প্রাক্তন জার্মান বিশ্বকাপার বলেন, ‘আর্সেনালের বিপক্ষে ম্যাচে ওজিল আসলে আমাদের হয়ে খেলেছে৷ কারণ আমরা জানতাম ওই আর্সেনাল দলের সবচেয়ে দুর্বল দিক৷ ওর জনপ্রিয়তা এমন কিছু বেশি নয়৷ সোশ্যাল মিডিয়ায় সাড়ে তিন কোটি  আছে, ওরা বাস্তব পৃথিবীতে থাকে না৷ ওদের ধারণা, ওজিল একটা ক্রস করলেই সেটা অসাধারণ৷ খেলার মান অনুসারে সামনের বছরগুলোতে জার্মান জাতীয় দলে ওজিলের কোনও জায়গা নেই৷’

Share this post

PinIt
scroll to top