রাখাইন থেকে পালিয়ে আসছে বাকি রোহিঙ্গারাও

Rakhine_-Myanmar_top_news-1.jpg

কক্সবাংলা ডটকম(২৩ আগস্ট) :: মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্য থেকে রোহিঙ্গাদের বাংলাদেশে পালিয়ে আসা এখনও বন্ধ হয়নি। হামিদা বেগম (১৮) নামে এক রোহিঙ্গা নারী স্বামী ও দুই শিশু সন্তানকে নিয়ে দুই মাস আগে পালিয়ে এসে কক্সবাজারের বালুখালী ক্যাম্পে আশ্রয় নিয়েছেন। রাখাইনের পরিস্থিতির উন্নতি না হওয়ায় হামিদার মতো আরও অনেকে ভিটেমাটি ছেড়ে আসছে।

পালিয়ে আসার আগের আতঙ্কময় দিনগুলোর কথা মনে করে হামিদা জানান, বাংলাদেশে আসার আগে কয়েক সপ্তাহ মিয়ানমারের সেনাদের ভয়ে নিজেদের ঘরে ঘুমাতে পারেননি হামিদার স্বামী। কোনো কোনো রাতে প্রচণ্ড বৃষ্টির মধ্যেও তাকে গ্রেফতার আতঙ্কে উঁচু গাছের ডালে রাত কাটাতে হয়।

হামিদার বড় ছেলের বয়স দুই বছর; মেয়ের বয়স তিন মাস। বালুখালীতে বাঁশের তৈরি ঝুপড়ি ঘরে আশ্রয় নিয়েছেন তারা।

চলতি বছরের শুরু থেকে ১৩ হাজারের মতো রোহিঙ্গা কক্সবাজারে পালিয়ে এসেছেন। এর মধ্যে চলতি আগস্ট মাসেই এসেছে অন্তত দেড়শো রোহিঙ্গা। তাদের মধ্যে ছয়জনের সঙ্গে কথা বলে রাখাইনের সাম্প্রতিক পরিস্থিতি নিয়ে প্রতিবেদন করেছে রয়টার্স।

সাম্প্রতিক সময়ে পালিয়ে আসা রোহিঙ্গারা বলেছেন, গতবছর আগস্ট-সেপ্টেম্বরে অধিকাংশ রোহিঙ্গা পালিয়ে আসে। এরপরের মাসগুলোতে শূন্য গ্রামে কঠিন সংগ্রাম করে জীবন চালাতে হয়েছে তাদের।

কেউ কেউ সেনাবাহিনীর নির্যাতন ও গ্রেফতারের ভয়ে বাড়ি ছাড়তে বাধ্য হয়েছেন। অনেকে দীর্ঘদিন ঘর থেকে বের হতে পারেননি। কৃষিকাজ ও মাছ ধরা বন্ধ থাকায় অনাহারে থাকতে হয়েছে তাদের।

হামিদা বলেন, রাখাইনে রোহিঙ্গাদের গ্রামগুলোতে এখনও আলো জ্বালানোর উপায় নেই। রাতে বাচ্চারা কাঁদলেও মোমবাতি জ্বালাতাম না। আলো দেখলেই সেনাবাহিনী এসে ধরে নিয়ে যায়।

আর ইউএনএইচসিআরের প্রতিনিধি ক্যারোলিন গ্লুক বলেন, নতুন করে পালিয়ে আসা রোহিঙ্গারা বলছে, তাদের সেখানে কারাবন্দির মতো দিন কেটেছে। কারফিউ এতটাই কড়া যে তারা বাড়ি থেকে বের হতে পারেনি, মাছ ধরতে যেতে পারেনি। কেবল নির্দিষ্ট একটা সময়ে আলো জ্বালানোর অনুমতি ছিল।

সম্প্রতি ইউএনএইচসিআরের অপর এক প্রতিবেদনে বলা হয়, নতুন আসা রোহিঙ্গাদের আত্মীয়-স্বজনদের মধ্যে এখনও যারা রাখাইনে রয়ে গেছেন, তারাও বাংলাদেশে চলে আসার পরিকল্পনা করছেন।

হামিদা জানান, ২০১৭ সালের আগস্টের আগে উত্তর রাখাইনে তাদের গ্রামের জনসংখ্যা ছিল প্রায় পাঁচ হাজার। আর দুই মাস আগে তিনি গ্রাম ছেড়ে আসার আগে লোক ছিল একশোরও কম।

তিনি বলেন, গতবছরের আগস্টে পথের খরচ জোগাড় করতে না পারায় তারা বাংলাদেশে পালিয়ে আসতে পারেননি। বেশির ভাগ রোহিঙ্গা কক্সবাজারে পালিয়ে আসার পরও সেনাবাহিনী নিয়মিত তাদের গ্রামগুলোতে টহলে যেত, কখনও কখনও রোহিঙ্গাদের ধরে নিয়ে যেত, কাউকে কাউকে বিনা পারিশ্রমিকে সেনা ক্যাম্প সম্প্রসারণের কাজ করতে বাধ্য করত।

হামিদার বক্তব্য যাচাই না করা গেলেও বালুখালিতে পালিয়ে আসা অন্য রোহিঙ্গারাও একই বক্তব্য দিয়েছেন।

রাখাইনে নৃতাত্ত্বিক ও ধর্মীয় উত্তেজনা থেকে সৃষ্ট সংঘাত এখনও মেটেনি বলে স্বীকার করেছেন মিয়ানমারে ক্ষমতাসীন এনএলডির মুখপাত্র মিও নায়ান্ট। তিনি রয়টার্সকে বলেন, গত এক বছরে সেখানকার পরিস্থিতি বদলায়নি। অবস্থার উন্নতি হতে অনেক সময় লাগবে।

গত বছর ২৫ আগস্ট মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যে দেশটির সেনাবাহিনীর সহিংস অভিযান শুরুর পর লাখ লাখ রোহিঙ্গা পালিয়ে এসে বাংলাদেশ সীমান্তে আশ্রয় নেয়। সেই সময়ে মানবিক কারণে সীমান্ত খুলে দেয় বাংলাদেশ সরকার।

পালিয়ে আসা রোহিঙ্গারা মিয়ানমার সেনাবাহিনীর সদস্যদের চালানো নির্বিচারে হত্যা, বাড়ি-ঘর পুড়িয়ে দেওয়া ও গণধর্ষণের বর্ণনা। এরপর থেকে জাতিসংঘ একে জাতিগত দমন অভিযান হিসেবে বর্ণনা করে আসছে।

গত এক বছরে বাংলাদেশে পালিয়ে এসেছে সাত লাখের বেশি রোহিঙ্গা। গত কয়েক দশকের বিভিন্ন সময়ে আরও প্রায় চার লাখ রোহিঙ্গা পালিয়ে এসে বাংলাদেশে আশ্রয় নিয়েছে। এ কারণে এটিকে বলা হচ্ছে, বিশ্বের সবচেয়ে বড় শরণার্থী শিবির।

সূত্র: রয়টার্স

Share this post

PinIt
scroll to top
bahis siteleri