izmir escort telefonlari
porno izle sex hikaye
çorum sürücü kursu malatya reklam

ব্রাজিলের ৫ গোলে জয়ের দিনে আর্জেন্টিনার ড্র : স্পেনের গোল উৎসব, জয়ে ফিরল ইংল্যান্ড

brazil-12-sp.jpg

কক্সবাংলা ডটকম(১২ সেপ্টেম্বর) :: আন্তর্জাতিক প্রীতি ম্যাচে একই দিনে ভিন্ন স্বাদ পেয়েছে ফুটবলের দুই চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী ব্রাজিল ও আর্জেন্টিনা। নেইমার-কৌতিনহোরা ৫ গোলে জিতলেও গোলশূন্য ড্র করেছে লিওনেল মেসিহীন আর্জেন্টাইনরা। এল সালভাদরকে গুণে গুণে এক হালি একটা গোল দিয়েছে সেলেসাওরা। আর কলম্বিয়ার বিপক্ষে ০-০ ড্র করে আকাশী-নীল আর্জেন্টাইনরা।

উয়েফা নেশন্স লিগে টানা তিন হারের পর জয়ের পথে ফিরেছে ইংল্যান্ড। আন্তর্জাতিক প্রীতি ম্যাচে সুইজারল্যান্ডকে একমাত্র গোলে হারিয়েছে গ্যারেথ সাউথগেটের দল। অপর ম্যাচে ক্রোয়াটদের জালে গোল উৎসব করেছে স্পেন। মঙ্গলবার রাতে ‘এ’ লিগের গ্রুপ ৪-এর ম্যাচে ৬-০ গোলে জিতেছে লুইস এনরিকের দল। নতুন কোচের অধীনে এটি স্পেনের টানা দ্বিতীয় জয়।

ব্রাজিলের হয়ে এক গোল করার পাশাপাশি অ্যাসিস্টের হ্যাট্রটিক করেছেন নেইমার। দলের হয়ে জোড়া গোল পেয়েছেন রিসারলিসন এবং একটি করে গোল করেছেন কৌতিনহো ও মারকুইনহোস। এই ম্যাচে দীর্ঘ অপেক্ষার পর ২৯ বছর বয়সে অভিষেক হয়েছে নেতোর।

শক্তির বিচারে এল সালভাদরের জন্য অবাক করা কিছুই ঘটেনি। দ্বিতীয় ম্যাচে টানা দ্বিতীয় পেনাল্টিতে গোল করে ব্রাজিলিয়ানদের গোলের মুখ চেনান নেইমার। ম্যাচের মাত্র চার মিনিটের সময় রিসারলিসন ডি-বক্সে ফেলে দেন এল সালভাদর ডিফেন্ডার ডমিনেজ। সঙ্গে সঙ্গে পেনাল্টির বাঁশি বাজান রেফারি। স্পট কিক থেকে বল জালে জড়ান নেইমার।

১২ মিনিট পর ব্যবধান দ্বিগুণ করেন রিসারলিসন। গোলের কাছে রিসারলিসনের একেবারে পায়ের কাছে বল দেন নেইমার। জাতীয় দলের হয়ে প্রথম গোলটি করতে ভুল করেনি এভারটন তারকা। ৩০ মিনিটের সময় নেইমারের পাস থেকেই ব্যবধান ৩-০ করেন ফিলিপে কৌতিনহো।

প্রথমার্ধের মতো দ্বিতীয়ার্ধের শুরুতে থেকেও একের পর এক আক্রমণ করতে থাকে ব্রাজিল। ৫০ মিনিটে সময় গোলের হালিও পূরণ করে ফেলে তারা। দলকে আবারও এগিয়ে দেন রিসারলিসন। হার্নান্দেজের ক্রস থেকে গোল করেন তিনি। গোল খেয়েও মাঝে মাঝে পাল্টা আক্রমণ করেছে এল সালভাদর। কিন্তু কাজের কাজ করতে পারেনি তারা। উল্টো ম্যাচের শেষ মিনিটে (৯০মিনিট) নেইমারের ক্রস থেকে বল পেয়ে স্কোরলাইন ৫-০ করেন মারকুইহোস।

অন্যদিকে, জিততে না পারলেও কলম্বিয়ার বিপক্ষে অপরাজিত থাকার রেকর্ডটা আরো বাড়িয়ে নিয়েছে আর্জেন্টিনা। ২০০৭ সালের পর আর্জেন্টাইদের বিরুদ্ধে কোনো ম্যাচ জিততে পারেনি কলম্বিয়ানরা।

মেসিকে ছাড়াই যে আর্জেন্টিনা অনেক ভালো দল সেটা গুয়েতেমালা ম্যাচে প্রমাণ পাওয়া গিয়েছিল। ওই ম্যাচে ৩-০তে জিতেছিল মার্টিনেজ-সেলেসোরা। গোল করতে না পারলেও এদিন দুর্দান্ত ফুটবল খেলেছে আর্জেন্টাইনরা। কলম্বিয়ানরাও অবশ্য কম যায়নি।

ম্যাচের শুরু থেকেই বিপজ্জনক মনে হচ্ছিল আর্জেন্টিনাকে। সাত মিনিটের সময় এগিয়ে যাওয়ারও সুযোগ পেয়েছিল তারা। কিন্তু এক্সকুয়েল পালাসিওর জোরালো শট ঠেকিয়ে দেন কলম্বিয়ান গোলকিপার ডেভিড ওসপিয়া। এই ম্যাচের প্রথম একাদশে জায়গা পেয়েছিলেন মাওরো ইকার্দি। তার একটি শটও সেভ করেন ওসপিয়া।

পাল্টা আক্রমণে ৩০ মিনিটের সময় এগিয়ে যাওয়ার সবচেয়ে সহজ সুযোগ পেয়েছিল কলম্বিয়া। কিন্তু সেই সুযোগ কাজে লাগাতে পারেননি রাদামেল ফ্যালকাও। প্রথমার্ধ গোলশূন্যভাবে শেষ হওয়ার পর দ্বিতীয়ার্ধেও আক্রমণ-পাল্টা আক্রমণে খেলা চললেও জাল খুঁজে পায়নি কোনো দলই। ফলে ০-০ স্কোরলাইন রেখেই মাঠ ছাড়তে হয় দুদলকে।

অন্য ম্যাচে যুক্তরাষ্ট্রের কাছে ১-০ গোলে হেরেছে মেক্সিকো। পানামাকে ২-০ গোলে ভেনিজুয়েলা এবং একই ব্যবধানে গুয়েতেমালাকে হারিয়েছে ইকুয়েডর।

Share this post

PinIt
scroll to top
bedava bahis bahis siteleri
bahis siteleri