লঞ্চ হল iPhone XS আর iPhone XS Max আর iPhone XR

iphone-xs-12_September_18.jpg

কক্সবাংলা ডটকম(১২ সেপ্টেম্বর) :: বাজারে এক সঙ্গে তিনটি টপ নচ iPhone আনল Apple। বুধবার রাতে আত্মপ্রকাশ করল iPhone Xs, iPhone Xs Max এবং iPhone Xr।

রাত ১০-৩০ তথা স্থানীয় সময় সকাল ১০টা নাগাদ ক্যালিফোর্নিয়ার কুপারটিনোয় স্টিভ জোবস থিয়েটারে অনুষ্ঠিত Apple ইভেন্টে নতুন তিনটি iPhone-এর আত্মপ্রকাশ ঘটালেন Apple-এর সিইও টিম কুক। প্রেক্ষাগৃহে উপস্থিত দর্শক এবং সংস্থার নিজস্ব ওয়েবসাইট ও টুইটারের মাধ্যমে বিশ্বজুড়ে ঘটনার সাক্ষী থাকলেন কয়েক কোটি মানুষ।

কুক জানিয়েছেন, iPhone কে এক প্রজন্ম এগিয়ে নিয়ে গেল iPhone XS সিরিজের দু্’টি ফোন। সোনালি ছাড়াও স্পেস গ্রে ও রুপোলি রঙে পাওয়া যাবে ফোনগুলি। গ্রাহকদের কথা ভেবে iPhone Xr ফোনটি মধ্যবিত্তের পকেটসাধ্য করার চেষ্টা করা হয়েছে বলে কুক জানান।

Apple-এর ভাইস প্রেসিডেন্ট ফর ওয়ার্লডওয়াইড মার্কেটিং ফিল শিলার জানিয়েছেন, নতুন iPhone Xs-এ রয়েছে ৫.৮ ইঞ্চি ডিসপ্লে এবং iPhone Xs Max ফোনে রয়েছে আরও বড় ৬.৫ ইঞ্চি ডিসপ্লে প্যানেল, যা বাজারচলতি স্মার্টফোনগুলির মধ্যে বৃহত্তম। দু’টি মডেলেই ব্যবহার করা হয়েছে স্মার্টফোনে ব্যবহৃত এযাবত সবচেয়ে টেকসই কাচ।

এছাড়া ফোনগুলির অন্যান্য অংশ তৈরি হয়েছে সার্জিক্যাল গ্রেড স্টিল দিয়ে। রয়েছে IP68 শংসাপত্র পাওয়া ধুলো ও জল রোধক প্রযুক্তি (৩০ মিনিট ও ২ মিটার পর্যন্ত)। তিনটি ফোনেই ব্যবহার করা হয়েছে OLED প্যানেল যা ২৪৩৬X১১২৫ পিক্সেল রেজোলিউশন এবং OLED স্ক্রিন। আছে থ্রি-ডি টাচ, উন্নত স্টিরিও সাউন্ড, সিকিওর এনক্লেভ-সহ দ্রুতগামী ফেস আইডি।

দু’টি iPhone Xs মডেলের শক্তি বাড়াতে রয়েছে A12 Bionic SoC চিপ, যা ৭মিমি পদ্ধতিতে প্রস্তুত হয়েছে। ফোনগুলিতে রয়েছে হেক্সা-কোর সিপিইউ এবং কোয়াড-কোর জিপিইউ, একটি নিউরাল ইঞ্জিন এবং আগের A11 চিপের চেয়ে অন্তত ১৫% দ্রুত অ্যাপ প্রসেসিং ক্ষমতা ধরে। অন্য দিকে, জিপিইউ প্রায় ৫০% দ্রুততর এবং ন্সরহীন এআই প্রসেসিং ও এআর গেমিং ও ট্র্যাকিং প্রযুক্তিও উন্নততর করা হয়েছে।

ফোন দু’টিতে রয়েছে পিছন দিকে একজোড়া ১২ মেগাপিক্সেল সেন্সর, একটি ওয়াইড অ্যাঙ্গেল ক্যামেরা (এফ/১.৮ অ্যাপারচার) এবং অন্যটি টেলিফোটো ক্যামেরা (এফ/২.৪ অ্যাপারচার)। দু’টি ক্যামেরাতেই আছে ৬ এলিমেন্ট লেন্স ও অপটিক্যাল ইমেজ স্টেবিলাইজেশন। দু’টিতেই রয়েছে ফ্লিকার ডিটেকশন ব্ৎবস্থা-সহ ট্রু টোন ফ্ল্যাশ। ফ্রন্ট ক্যামেরা সেট-আপে রয়েছে ৭ মেগাপিক্সেল সেন্সর (এফ/২.২ অ্যাপারচার), একটি IR ক্যামেরা এবং থ্রি-ডি পেশিয়াল ডিটেকশনের জন্য উন্নত মানের ডট প্রোজেক্টর।

iPhone Xs ও iPhone Xs Max ফোনে থাকছে ডুয়াল সিম এবং ডুয়াল স্ট্যান্ডবাই প্রযুক্তি। চিনে এই দু’টি মডেলে থাকছে ডুয়াল সিম রাখার স্লট, তবে বাকি বিশ্বের গ্রাহকদের জন্য থাকছে সফ্টওয়্যার ভিত্তিক সিম। ভারতে জিও ও এয়ারটেল সংস্থাকে Apple-এর ই-সিম ব্যবস্থা সাপোর্ট দেওয়ার জন্য বেছে নেওয়া হয়েছে।

iPhone Xs ফোনের াম শুরু হচ্ছে ৯৯৯ ডলার থেকে। iPhone Xs Max ফোনের দাম শুরু হচ্ছে ১,০৯৯ ডলার থেকে। ২১ সেপ্টেম্বর থেকে বাজারে বিক্রি শুরু হবে দু’টি মডেল। ভারতের বাজারে ২৮ সেপ্টেম্বর থেকে বিক্রি চালু হবে।

iPhone Xr মডেলে থাকছে ৬।১ ইঞ্চি এলসিডি ডিসপ্লে সঙ্গে ১২৯২X৮২৮ পিক্সেল রেজোলিউশন। তবে এই ফোনে থাকছে না থ্রি-ডি টাচ প্রযুক্তি। এই ফোনে রয়েছে সিঙ্গল ক্যামেরা সেট-আপ যাতে থাকছে ১২ মেগাপিক্সেল সেন্সর, ৬ এলিমেন্ট লেন্স, এফ/১.৮ অ্যাপারচার ও ফোকাস পিক্সেল।

অন্য দুই ফোনের মতোই এতে রয়েছে A12 Bionic SoC চিপ। ফেস আইডি, টাচ টু ওয়েক আপ, উন্নত মানের অ্যালুমিনিয়াম বডি এবং ডুয়াল সিম ব্যবস্থা রয়েছে এই ফোনে। ৬৪ জিবি, ১২৮ জিবি ও ২৫৬ জিবি স্টোরেজ অপশনে পাওয়া যাবে ফোনটি। দাম শুরু হচ্ছে ৭৪৯ ডলার থেকে। আগাম অর্ডার নেওয়া শুরু হবে ১৯ অক্টোবর থেকে। ফোন পাঠানো শুরু হবে ২৬ অক্টোবর থেকে।

Share this post

PinIt
scroll to top
bahis siteleri