চকরিয়া আড়ম্বরপূর্ণভাবে সাপ্তাহিক ‘মাতামুহুরী’র প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালন

Pic-2Chakaria-25.09.18.jpg

মুকুল কান্তি দাশ,চকরিয়া(২৫ সেপ্টেম্বর) :: বস্তুনিষ্ঠ ও গ্রহণযোগ্য সংবাদ ছাপিয়ে সাপ্তাহিক মাতামুহুরী দিনদিন পাঠক প্রিয় হয়ে উঠেছে। পত্রিকাটি এখন অনলাইনেও পাঠকের কাছে ব্যাপক সমাদৃত।

মুহুর্তের খবর মুহুর্তে প্রকাশ করে পাঠকের মনে স্থান করে নিয়েছে। উন্নয়ন সাংবাদিকতার পাশাপাশি সমাজের অশুভ শক্তির বিরুদ্ধে সব সময় সংবাদ প্রচার করে পাঠকের প্রশংসা অর্জনে সক্ষম হয়েছে।

২৫ সেপ্টেম্বর মঙ্গলবার সাপ্তাহিক মাতামুহুরী পত্রিকার ১৭বছর পূর্তি উপলক্ষে মাতামুহুরী পাঠক ফোরাম আয়োজিত বর্নাঢ্য অনুষ্ঠানে বক্তারা এসব কথা বলেন।

চকরিয়া প্রেসক্লাবের সভাপতি এম জাহেদ চৌধুরীর সভাপতিত্বে ও মাতামুহুরী পত্রিকার সাহিত্য সম্পাদক হাসান মুরাদ ছিদ্দিকীর সঞ্চালনায় শুরুতেই স্বাগত বক্তব্য রাখেন নির্বাহী সম্পাদক ও চকরিয়া প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক মিজবাউল হক।

প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন-চকরিয়া উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক ও উপজেলা ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান সমিতির সভাপতি আলহাজ্ব গিয়াস উদ্দিন চৌধুরী। এসময় অনুষ্ঠানের উদ্বোধন করেন জেলা আওয়ামীলীগের বন ও পরিবেশ বিষয়ক সম্পাদক এবং জেলা পরিষদ সদস্য লায়ন কমর উদ্দিন আহমদ।

বিশেষ অতিথির বক্তব্য দেন-উপজেলা আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি মোক্তার আহমদ চৌধুরী, সহ-সভাপতি ছৈয়দ আলম কমিশনার, সহ-সভাপতি এমআর চৌধুরী, জেলা পরিষদ সদস্য সুলতান আহমদ, চট্টগ্রামস্থ চকরিয়া সমিতির সাধারণ সম্পাদক হামিদ হোসাইন, চকরিয়া প্রেসক্লাবের সহ-সভাপতি জহিরুল ইসলাম, মাতামুহুরী’র সহকারী সম্পাদক হেলাল উদ্দিন, পৌরসভা কর্মকর্তা রাজিবুল মোস্তফা চৌধুরী, ফাইতং ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সভাপতি সাদ্দাম হোসেন, সাধারণ সম্পাদক শরীফুল ইসলাম ও প্রভাষক ইমরানুল হক।

এসময় উপস্থিত ছিলেন-চকরিয়া প্রেসক্লাবের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও হিন্দু-বৌদ্ধ-খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদ চকরিয়া শাখার সাধারণ সম্পাদক মুকুল কান্তি দাশ, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মো: মনজুর আলম, অর্থ সম্পাদক এম জিয়াবুল হক, প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক এম মনছুর আলম, ক্রীড়া ও সাংস্কৃতিক সম্পাদক বাপ্পি শাহরিয়ার, পাঠক ফোরামের সদস্য শিফাত ও রুবেল।

পত্রিকাটির দৈনিকে রূপান্তরে সহযোগিতার দ্বার উন্মুক্ত রাখবেন বলে প্রতিশ্রুতি দেন আগত অতিথিরা।

Share this post

PinIt
scroll to top
error: কপি করা নিষেধ !!
bahis siteleri