izmir escort telefonlari
porno izle sex hikaye
çorum sürücü kursu malatya reklam

পেকুয়ায় যানবাহনে পুলিশের তল্লাশী

police-1.jpg

নাজিম উদ্দিন,পেকুয়া(২৬ সেপ্টেম্বর) :: পেকুয়ায় যানবাহনগুলিতে চলছে পুলিশিং তল্লাশী। নিরাপদ সড়ক দাবীতে সম্প্রতি শিক্ষার্থীরা সড়ক অবরোধে নেমেছিলেন। যানবাহন সমুহের বৈধতা ও ড্রাইভিং লাইসেন্স নিশ্চিত করতে নিরাপদ সড়ক দাবীর আন্দোলনে শিক্ষার্থীরা এ শর্ত ছুড়ে দেয়। সরকার সারা দেশে শুদ্ধ অভিযান পরিচালনা করছে।

সড়ক ও মহাসড়কে সারা দেশে চলছে পুলিশিং তল্লাশী। এর ধারাবাহিকতায় পেকুয়ায় এ অভিযান পরিচালিত হচ্ছে। পেকুয়া থানা পুলিশ যানবাহন তল্লাশী জোরদার করে। অটোরিক্সাসহ সড়কে যাতায়াতকারী সব ধরনের যানবাহনে চলছে তল্লাশী।

২৬ সেপ্টেম্বর থেকে পেকুয়া থানা পুলিশ সড়কে যানবাহনে অভিযান পরিচালনা করছে। ওই দিন সদর ইউনিয়নের কলেজ গেইট চৌমুহনী চত্তরে পুলিশ বেশ কিছু যানবাহনে তল্লাশী চালায়। এ সময় সড়কে প্রচুর পরিমান যানবাহনে তল্লাশী পরিচালিত হয়।

এ দিকে যানবাহন তল্লাশী চলাকালীন সময়ে পুলিশকে বাধা দেয়া হয়েছে। ওই দিন পেকুয়া থানার এস,আই কামরুল হাসানসহ সঙ্গীয় ফোর্স চৌমুহনী মোড়ে যানবাহনে তল্লাশী চালায়। কাগজপত্র যাচাই বাছাই করনসহ এ সব যানবাহনের বৈধ কাগজপত্র ও লাইসেন্স অনুসন্ধান চলছিল।

এ সময় হঠাৎ পুলিশ তুমুল তোপের মুখে পড়ে।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, তল্লাশী কাজে পুলিশকে নিরুৎসাহিত করতে দু’যুবক সরাসরি বাকবিতন্ডায় জড়ায় পুলিশের সাথে।

এ সময় ওই পুলিশ কর্মকর্তা ও যুবকদ্বয়ের মধ্যে উচ্চস্বরে উত্তপ্ত বাক্য বিনিময় হচ্ছিল। এক পর্যায়ে বিক্ষ্দ্ধু যুবকরা গাড়ী চালকদের জড়ো করে রাস্তায় ব্যারিকেড তৈরীর চেষ্টা চালায়। তারা ক্ষিপ্ত হয়ে পুলিশের সাথে অসাধাচরনে জড়িয়ে পড়ে।

সড়কে যানবাহন চলাচলে বিঘœতা দেখা দেয় চৌমুহনী মোড়ে। উত্তেজিত ওই দুই যুবক সড়কে যানবাহন চলাচলে প্রতিবন্ধকতা তৈরী করছিল। শ্রমিক সংগঠনের কথা বলে চৌমুহনী ষ্টেশনে শাহাদাত ও রফিকুল ইসলাম কানা রফিক নামের দু’ব্যক্তি এ উদ্ভূত পরিস্থিতি সৃষ্টি করে। এ সময় উত্তেজনা প্রশমিত করতে অতিরিক্ত পুলিশসহ পেকুয়া থানা পুলিশ নিরাপত্তা বলয় তৈরী করে।

এ সময় পুলিশ উত্তেজিত ওই দুইজনকে খোঁজছিলেন। তারা বেগতিক অবস্থা দেখতে পেয়ে দ্রুত ওই স্থান থেকে সটকে পড়ে। কিছুক্ষনের মধ্যে পরিস্থিতি পুলিশের নিয়ন্ত্রনে চলে যায়। যানবাহন চলাচল স্বাভাবিক হয়। আধাঘন্টা তল্লাশী কাজে বিঘœতা দেখা দিয়েছিল।

অবশ্যই দ্বিতীয় দফায় পুলিশ দুপুরের দিকে ফের তল্লাশী কার্যক্রম সড়কে জোরদার করে। পেকুয়া থানার এস,আই কামরুল হাসান জানায়, সরকারী কাজে পুলিশকে তারা অন্যায়ভাবে প্রতিহত করার চেষ্টা করছিলেন। এ কার্যক্রম সারাদেশে চলমান।

সরকারের নির্দেশ মতে পেকুয়া থানা পুলিশ সড়কে তল্লাশী কার্যক্রম পরিচালনা করছে। পেকুয়া থানার ওসি(তদন্ত) মিজানুর রহমান জানায়, কাগজপত্র যাচাই বাছাই করন চলছে সারাদেশে।

এর আওতায় পেকুয়ায়ও এ কার্যক্রম চলমান। বাধা কেন দেবে তারা। আসলে এটি ঘোলা পানিতে মাছ শিকারের প্রচেষ্টা। পুলিশ বিচক্ষণ। ঠিকই পুলিশের কাজ পুলিশ করবে। অন্যায় হলে বলার অধিকার সবার আছে।

Share this post

PinIt
scroll to top
bedava bahis bahis siteleri
bahis siteleri