বাংলাদেশের রাজনীতিতে সংলাপের ইতিহাস কেমন

songlap-bd.jpg

কক্সবাংলা ডটকম(৩০ অক্টোবর) :: আওয়ামী লীগের সঙ্গে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের সংলাপ নিয়ে আলোচনা চলছে দেশজুড়ে। বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের সঙ্গে সংলাপে বসবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

নির্বাচনের আগে আগে সংলাপের ইতিহাস বহু পুরনো। এর বাইরেও বিভিন্ন সময় রাজনৈতিক বিভিন্ন ইস্যুতে সংলাপ হয়েছে। ইতিহাস থেকে তুলে ধরা হলো সেই ধরনের কিছু সংলাপের ঘটনা।

এরশাদের সংলাপ

১৯৮৪ সালে দেশের রাজনৈতিক দলগুলোকে সংলাপে আহ্বান জানিয়েছিলেন এইচ এম এরশাদ। বঙ্গভবনে হওয়া ওই সংলাপে বেগম খালেদা জিয়ার সাত দলের পক্ষ থেকে ৩৩ দফা দাবিনামা দেওয়া হয়েছিল। ওই সংলাপের পরপরই বঙ্গভবনে জামায়াতের সঙ্গে মতবিনিময় করেন এরশাদ।  আবার সংলাপে বসেন শেখ হাসিনার ১৫ দলের নেতাদের সঙ্গেও।

রাজনীতিতে ওই সংলাপ গুরুত্বপূর্ণ কোন রেখাপাত করেনি।

৯৪ সালের তত্ত্বাবধায়ক সরকারের দাবি

১৯৯৪ সালে মাগুরার উপনির্বাচন নিয়ে বিতর্ক সৃষ্টি হওয়ার পর আওয়ামী লীগ, জাতীয় পার্টি ও জামায়াতে ইসলামী নিরপেক্ষ তত্ত্বাবধায়ক সরকারের অধীনে নির্বাচন দাবি করে। ওই সময় সরকারি দল বিএনপির সঙ্গে বিরোধী দলগুলোর সংঘাতময় রাজনৈতিক পরিস্থিতি নিরসনের চেষ্টায় বাংলাদেশে আসেন তৎকালীন কমনওয়েলথ মহাসচিবের বিশেষ দূত স্যার নিনিয়ান স্টিফেন।

শেষ পর্যন্ত আওয়ামী লীগের তোলা পক্ষপাতিত্বের অভিযোগের মধ্যে কোন ধরনের মধ্যস্থতা না করেই ফিরে যান স্যার নিনিয়ান।

জিমি কার্টারের সংলাপ

২০০১ সালে অষ্টম জাতীয় সংসদ নির্বাচনের আগে যুক্তরাষ্ট্রের সাবেক প্রেসিডেন্ট জিমি কার্টার দুই প্রধান রাজনৈতিক পক্ষের মধ্যে একটি সংলাপে মধ্যস্থতা করার চেষ্টা করেন। বাংলাদেশের রাজনৈতিক ইতিহাসে অবশ্য এ সংলাপ গুরুত্বপূর্ণ কোন ভূমিকা রাখতে পারেনি।

২০০৬: আওয়ামী লীগ-বিএনপির সংলাপ

২০০৬ সালের অক্টোবরে তৎকালীন ক্ষমতাসীন দল বিএনপির মহাসচিব আবদুল মান্নান ভূঁইয়া ও প্রধান বিরোধী দল আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আবদুল জলিল সংলাপে বসেন। সেসময় প্রায় তিন সপ্তাহ ধরে সংলাপ হয়েছিল নির্বাচনকালীন সরকার ইস্যুতে। আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে বিএনপির কাছে আনুষ্ঠানিকভাবে ২৯ দফা তুলে ধরা হয়। কিন্তু এত লম্বা সময় ধরে ছয় দফা বৈঠক করেও মান্নান ভূঁইয়া ও আবদুল জলিলের মধ্যে সমঝোতা হয়নি। অবশেষে দুজনই তাদের দলের শীর্ষনেত্রীর কাঁধে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেওয়ার দায়িত্ব ছেড়ে দিয়ে সংলাপ সম্পন্ন করেন।

২০১৪: মধ্যস্থতায় তারানকো

২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারি দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনের আগে ২০১৩ সালের শেষ দিকে নির্বাচনকালীন সরকার ইস্যুতে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের সঙ্গে সংলাপে বসে বিএনপি। সংকট নিরসনে জাতিসংঘের রাজনীতিবিষয়ক সহকারী মহাসচিব অস্কার ফার্নান্দেজ তারানকো তিনবার ঢাকা সফর করেন।

আওয়ামী লীগের তৎকালীন সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম এবং বিএনপির তৎকালীন ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের নেতৃত্বে তারানকোর সঙ্গে সরকার ও বিরোধী দলের প্রথম বৈঠকটি হয় ১০ ও ১১ ডিসেম্বর। তৃতীয় বৈঠক হয় জাতিসংঘের আবাসিক প্রতিনিধি নিল ওয়াকারের উপস্থিতিতে।

সংলাপটিও রাজনৈতিক অঙ্গনে বেশ আলোচনার জন্ম দিয়েছিল। শেষ পর্যন্ত অবশ্য তা ফলপ্রসূ হয়নি।

Share this post

PinIt
scroll to top
bahis siteleri