কক্সবাজার শহরের পিটাকেট মন্দিরে কঠিন চীবর দানোৎসব সম্পন্ন

45680361_2071800119530433_7963374579492061184_n.jpg

সংবাদ বিজ্ঞপ্তি(৯ নভেম্বর) :: কক্সবাজার শহরের বাজারঘাটাস্থ ঐতিহ্যবাহী পিটাকেট মন্দিরে রাখাইন ইয়ুথ ইউনিটি’র আয়োজনে ২ দিন ব্যাপী কঠিন চীবর দানোৎসব সম্পন্ন হয়েছে।

শুক্রবার উৎসবের সমাপণী দিনে সকালে বের করা হয় বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রা। এরপর মন্দির প্রাঙ্গণে পবিত্র সোয়েঙ্গ গ্রহণ করেন পূজার্থীরা। বিকালে দান করা হয় পবিত্র চীবর। এছাড়া পূজার্থীরা বিভিন্ন স্থান থেকে আগত ধর্মীয় গুরুদের নানা দ্রব্যদি দান করেন।

রাখাইন ইয়ুথ ইউনিটির উসেনমি (বাবু), মং ছেন য়াইন, জনাই, জলাই, জ জ, হাপু (কোম্পানি), ও মং হ্লা ওয়ান জানান, প্রতি বছর প্রবারণা পূর্ণিমার পরই বৌদ্ধ ধর্মাবলম্বীরা এক মাস পর্যন্ত কঠিন চীবরদান অনুষ্ঠান পালন করে থাকেন। তাদের বিশ্বাস বুদ্ধ ও বৌদ্ধ ভিক্ষুদের উদ্দেশ্যে এই চীবরদানের মাধ্যমে পূণ্য লাভ করা যায়।

বৌদ্ধ ভিক্ষুদের টানা তিন মাস বর্ষাবাসের পর প্রবারণা পূর্ণিমা পালনের মধ্য দিয়ে শুরু হয় মাসোব্যাপী কঠিন চীবরদান উৎসব।

এসময় দায়ক-দায়িকারা বৌদ্ধ বিহারে ভিক্ষুদের উদ্দেশ্যে সংঘ দান, অষ্ট পরিস্কার, বুদ্ধ মূর্তি, কল্পতরু, হাজার প্রদীপসহ নানাবিধ দান করে। এছাড়া চন্দন ও ডাবের পানি দিয়ে বুদ্ধমূর্তিকে স্নান করানো হয়। এটি বৌদ্ধ সম্প্রদায়ের সবচেয়ে পবিত্র অনুষ্ঠান।

গত বৃহস্পতিবার দুপুরে ধর্মীয়, জাতীয় ও সাংগঠনিক পতাকা উত্তোলনের মধ্য দিয়ে উৎসবের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করা হয়। এরপর মন্দির প্রাঙ্গণ থেকে একটি বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রা বের করা হয়।

শোভাযাত্রাটি প্রধান প্রধান সড়ক পদক্ষিণ করে পুনরায় মন্দিরে এসে শেষ হয়। সেখানে পঞ্চশীল গ্রহণ পূজার্থীরা। সন্ধ্যার পর ধর্মীয় বিভিন্ন বিষয় নিয়ে বিশদ আলোকপাত করেন ভান্তেগণ। রাতে অনুষ্ঠিত হয় মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান।

Share this post

PinIt
scroll to top
bahis siteleri