কক্সবাজার প্রেসক্লাবে আলোচনা ও মিলাদ মাহফিল অনুষ্ঠিত

pic-1.jpg

সংবাদ বিজ্ঞপ্তি(২২ নভেম্বর) :: পবিত্র ঈদে মিলাদুন্নবী (স:) উপলক্ষে কক্সবাজার প্রেসক্লাবের উদ্যোগে আলোচনা ও মিলাদ মাহফিল ২১ নভেম্বর সকাল ১১ টায় প্রেসক্লাব মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত হয়।

প্রেসক্লাব সভাপতি মাহবুবর রহমানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় নবী মুহাম্মদ (স:) এর আগমন ও তাঁর সীরাত (স:) সম্পর্কে আলোচনা করেন বাহারছড়া জামে মসজিদের খতিব মাওলানা শফিউল আলম।

অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, প্রেসক্লাবের প্রতিষ্ঠাতা সদস্য ও সাবেক সভাপতি বদিউল আলম, প্রেসক্লাবের প্রতিষ্ঠাতা সদস্য ও সাবেক সভাপতি আতাহার ইকবাল।

প্রেসক্লাবে সাহিত্য ও সাংস্কৃতিক সম্পাদক হাসানুর রশীদের পরিচালনা অনুষ্ঠিত আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিলে উপস্থত ছিলেন, প্রেসক্লাবের প্রতিষ্ঠাতা সদস্য প্রিয়তোষ পাল পিন্টু, সাধারণ সম্পাদক আবু তাহের, সহ-সভাপতি মমতাজ উদ্দিন বাহারী, সহ-সাধারণ সম্পাদক আব্দুল কুদ্দুস রানা, কোষাধ্যক্ষ মোহাম্মদ মুজিবুল ইসলাম, ক্রীড়া সম্পাদক দীপক শর্মা, নির্বাহী সদস্য আয়াছুর রহমান, জিএএম আশেক উল্লাহ, সাংবদিক নজরুল ইসলাম বক্সী, সরওয়ার আজম মানিক, মোহাম্মদ হাসিম, আবদুল আজিজ, রাশেদুল মজিদ, শফিউল্লাহ শফি, আহসান সুমন, কামরুল ইসলাম মিন্টু, মোহাম্মদ জুনায়েদ, শফিউল আলম, এম আর মাহবুব, আতিকুর রহমান মানিক, সাইফুল ইসলাম, ছৈয়দ আলম, মিজানুর রহমান, মোহাম্মদউর রহমান মাসুদ, ইসলাম মাহমুদ, শহীদুল করিম শহিদ, রফিকুল ইসলাম সোহেল, মাহবুুবুর রহমান।

সভায় প্রধান আলোচক মাওলানা শফিউল আলম বলেন, আল্লাহ রাব্বুল আলামিন মহানবী হজরত মুহাম্মদ সা: কে পাঠালেন মানবজাতির পথপ্রদর্শক হিসেবে। তাঁর উপর নাজিল করা হয় আল্লাহর পবিত্র গ্রন্থ আল কুরআন, যা সমগ্র মানবজাতির জন্য অনুসরণীয় একটি জীবনাদর্শ। আধুনিক জীবনে বৈজ্ঞানিক জিজ্ঞাসা ও তৎপরতা মানুষের কৃষ্টির একটি অপরিহার্য অঙ্গ হয়ে দাঁড়িয়েছে।

তাই অনেকের মনে প্রশ্ন জাগে, পবিত্র কুরআন ও হাদিসে যেহেতু মানুষের জীবনপদ্ধতির সুনির্দিষ্ট দিকনির্দেশনা দেয়া হয়েছে, তাই এই দু’টি সূত্রে জ্ঞান-বিজ্ঞানের প্রতিও ইঙ্গিত থাকার কথা। হ্যাঁ, ইঙ্গিত আছে এবং আছে খুব জোরালোভাবে।

পবিত্র কুরআনের ছয় হাজার ৬৬৬টি আয়াতের মধ্যে প্রায় সাড়ে ৭০০ আয়াতই বিজ্ঞান ও প্রযুক্তিসংক্রান্ত। ইসলামকে শ্রেষ্ঠ দ্বীন এবং নবী (স:) সর্ব সেরা হিসেবে সৃষ্টি করা হয়েছে। নবীর প্রতি শ্রদ্ধা ও ভালোবাসা দেখিয়ে তার পথ অনুসরণ এবং আল্লাহর আদেশ পালন হবে এ দিবস পালনের মুল স্বার্থকতা।

কুরআন তেলাওয়াত করেন মাওলানা রাশেদুল ইসলাম। পরে বিশেষ দোয়া ও মোনাজাতের মাধ্যমে সভা শেষ হয়।

Share this post

PinIt
scroll to top
bahis siteleri