izmir escort telefonlari
porno izle sex hikaye
çorum sürücü kursu malatya reklam

টি-২০তে অস্ট্রেলিয়াকে ৬ উইকেটে হারাল ভারত : সিরিজ ১-১ ড্র

india-3.jpg

কক্সবাংলা ডটকম(২৫ নভেম্বর) :: ২০১৭ সালের জুলাই থেকে ভারত টি২০ ম্যাচে হারেনি অস্ট্রেলিয়ার কাছে হারের আগে পর্যন্ত। শেষ হেরেছিল ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিরুদ্ধে একটি ম্যাচে। তার পর থেকে ২৭টির মধ্যে ২০টি টি২০ জিতে নিয়েছে ভারত।  তাও বিভিন্ন পরিস্থিতিতে, বিভিন্ন প্রতিপক্ষের বিরুদ্ধে। এ বার এসসিজিতে শেষ টি২০তে উত্তেজক ম্যাচের যবনিকা পতন হল ভারতের জয়ে।

ধাওয়ান, কোহলি ব্যাট হাতে জ্বলে উঠতেই সিডনিতে হিট ‘মেন ইন ব্লু’। ১৬৫ রান তাড়া করে উত্তেজক ম্যাচে অস্ট্রেলিয়াকে ৬ উইকেটে হারিয়ে সিরিজে ড্র করল টিম ইন্ডিয়া। সেইসঙ্গে টেস্ট সিরিজ শুরুর আগে প্রয়োজনীয় আত্মবিশ্বাস সংগ্রহ করে নিল কোহলি ব্রিগেড।

রবিবার সিডনি ক্রিকেট গ্রাউন্ডে টসে জিতে প্রথমে ব্যাট করার সিদ্ধান্ত নেন অজি দলনায়ক অ্যারন ফিঞ্চ। বৃষ্টির ভ্রুকুটি সরিয়ে রৌদ্রকরোজ্জ্বল পরিবেশেই এদিন শুরু হয় খেলা। পাল্লা দিয়ে ধুঁয়াধার ব্যাটিংয়েই ইনিংস শুরু করেন দুই অজি ওপেনার। ডার্সি শটকে সঙ্গে নিয়ে ৬৮ রানের পার্টনারশিপ গড়েন অধিনায়ক অ্যারন ফিঞ্চ। প্লাওয়ার প্লে-তে ওঠে ৪৯ রান। শুরুর ঝড় দেখে মনে করা হচ্ছিল পাহাড়প্রমাণ রানের মুখে পড়তে হতে পারে ভারতকে।

কিন্তু প্রাথমিক সেই ঝড় ধীরে ধীরে সামাল দেন ভারতীয় স্পিনাররা। ক্রুনাল-কুলদীপ জুটিতেই ম্যাচে ফেরে ভারত৷ ফিঞ্চকে ক্রুণালের হাতে বন্দি করে ২৮ রানে ফেরান চায়নাম্যান। পরের ওভারেই ডার্সিকে ৩৩ রানে তুলে নেন ক্রুণাল। দুই ওপেনার ফিরতেই ভাঙন ধরে অজি ব্যাটিং লাইন আপে।

রানের খাতা না খুলেই ক্রুণালের শিকার হয়ে সাজঘরে ফেরেন চার নম্বরে নামা ম্যাকডরমট৷ ম্যাক্সওয়েল দুটি চার দিয়ে ইনিংস শুরু করলেও বেশি দূর এগোতে পারেননি। ম্যাক্সের ব্যাটে ঝড় ওঠার আগেই ১৩ রানে তাঁকে সাজঘরের রাস্তা দেখান ভারতীয় দলের সিনিয়র পাণ্ডিয়া। ক্যারের ব্যাট থেকে এল ২৭। স্টোয়েনিস মূল্যবান ২৫ রানে ও কুল্টার নাইল অপরাজিত থাকলেন ১৩ রানে। ভারতের হয়ে ৩৬ রান দিয়ে ৪ উইকেট নেন ক্রুণাল। সিডনির মাঠে আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টিতে এটাই কোনও স্পিনারের সেরা বোলিং।

১৬৫ রান তাড়া করতে নেমে এদিন সিডনিতে এদিন ফিঞ্চ-শটকে ছাপিয়ে গেলেন ধাওয়ান-রোহিত। অজি বোলিং অ্যাটাককে বেদম প্রহার করে পাওয়ার প্লে-তে এই জুটি তুলল ৬৭ রান। যদিও পাওয়ার প্লে শেষ হবার তিন বল আগেই ধাওয়ানকে প্যাভিলিয়নের রাস্তা দেখান স্টার্ক। তবে গব্বরের ২২ বলে ৪১ রানের ইনিংস ভারতের জয়ের ভিত গড়ে দেয়। যদিও এরপর দ্রুত রোহিত, রাহুল ও পন্তের উইকেট হারিয়ে চাপে পড়ে যায় বিরাট ব্রিগেড।

সেখান থেকে দলের ত্রাতা হয়ে ওঠে অধিনায়ক কোহলি ও দীনেশ কার্তিকের জুটি। অধিনায়কোচিত অর্ধশতরান করে দলকে জয়ের দিশা দেখান বিরাট। আর তাঁকে যোগ্য সহায়তা করে যান কার্তিক। পঞ্চম উইকেটে তাদের দুরন্ত ৬০ রানের পার্টনারশিপ জয় নিশ্চিত করে ভারতের। কোহলি ৪১ বলে অপরাজিত ৬১ এবং কার্তিক ১৮ বলে ২২ রানে অপরাজিত থেকে মাঠ ছাড়েন। দুরন্ত বোলিং পারফর্ম্যান্সের সুবাদে ম্যাচের সেরা হন ক্রুনাল পান্ডিয়া। সিরিজ সেরা শিখর ধাওয়ান।

ব্রিসবেনে প্রথম ম্যাচে ভারতকে চার রানে হারিয়ে সিরিজে এগিয়ে গিয়েছিল অস্ট্রেলিয়া। মেলবোর্নে দ্বিতীয় ম্যাচ বৃষ্টির কারণে ভেস্তে গেলে নির্ণায়ক হয়ে দাঁড়ায় এই ম্যাচ। সুতরাং নির্ণায়ক ম্যাচে দুরন্ত প্রত্যাবর্তনে সিরিজ ড্র করল ভারত।

Share this post

PinIt
scroll to top
bedava bahis bahis siteleri
bahis siteleri