izmir escort telefonlari
porno izle sex hikaye
çorum sürücü kursu malatya reklam

পেকুয়ায় জামায়াত-শিবিরের ৪৫ নেতা-কর্মীর বিরুদ্ধে মামলা

pekua-thana-protest-mamla-coxbangla.jpg

মুকুল কান্তি দাশ,চকরিয়া(৩ ডিসেম্বর) :: কক্সবাজারের পেকুয়ায় নাশকাত পরিকল্পনার প্রস্ততিকালে উপজেলা পরিষদের ভাইস-চেয়ারম্যান জামায়াত নেতা নুরুজ্জামান মঞ্জুসহ তিনজনকে আটকের পর জামায়াত শিবিরের ২০ জন নেতা-কর্মীর নাম উল্লেখ করে ও অজ্ঞাত আরো ২০-২৫জনকে আসামী দেখিয়ে থানায় মামলা দায়ের করা হয়েছে।

পেকুয়া থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) মকবুল হোসেন বাদি হয়ে বিশেষ ক্ষমতা আইনে রবিবার মধ্যরাতে মামলাটি দায়ের করেন। ধৃত তিন জনের মুক্তির দাবিতে বিএনপি প্রার্থী হাসিনা আহমেদের নেতৃত্বে ওসি সাথে বাকবিতন্ডা, নেতা-কর্মীদেও থনাও ঘেরাও পুলিশ ও সরকার বিরোধী স্লোগানের ঘটনায় কোন আইনি ব্যবস্থা নেয়নি পুলিশ।

রবিবার দুপুরে পেকুয়া উপজেলার বারবাকিয়া নিজ বাড়ি থেকে ভাইস-চেয়ারম্যানসহ জামায়াতের তিন নেতা-কর্মীকে আটক করা হয়। এর প্রতিবাদে ভাইস-চেয়ারম্যান মঞ্জুর স্ত্রী ও মা সংবাদ সম্মেলন, কর্মীরা চৌমুহনী স্টেশনে মানববন্ধন করে ওইদিন বিকালে। পরে ওইদিন সন্ধ্যায় বিএনপি’র কেন্দ্রীয় নেতা ঐক্যফ্রন্টের মনোনিত প্রার্থী হাসিনা আহমেদের নেতৃত্বে হাজারো নেতা-কর্মী-সমর্থক থানায় যায়।

এসময় সংসদ সদস্য প্রার্থী হাসিনা আহমেদ, উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও উপজেলা বিএনপি’র সাংগঠনিক সম্পাদক শাফায়েত আজিজ রাজু এবং উপজেলা বিএনপি’র সভাপতি ও সদও ইউপি চেয়ারম্যান বাহাদুর শাহসহ সাত নেতা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তার রুমে প্রবেশ করে ওসির সাথে বাকবিতন্ডায় লিপ্ত হয়।

ওয়ারেন্ট বা কোন অভিযোগ ছাড়াই ভাইস-চেয়ারম্যান মঞ্জুকে আটক করা হয়েছে দাবি করে তাকে ছেড়ে দিতে চাপ প্রয়োগ করা হয়। ওইসময় ওসি উর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের সাথে আলাপ করে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেয়া হবে আশ্বাস দিয়ে থানার বাইরে অবস্থানরত নেতা-কর্মীদের নিয়ে চলে যেতে অনুরোধ করেন। এতে বিএনপি’র নেতা-কর্মীরা চলে যায়।

পেকুয়া থানার ওসি জাকির হোসেন ভুঁইয়া বলেন, মধ্যরাতে ধৃত তিনজনসহ ২০ জনের নাম উল্লেখপূর্বক অজ্ঞাত ২৫জনসহ ৪৫জনকে আসামী করে পুলিশ বাদি হয়ে মামলা করা হয়েছে। ওই মামলায় শুধুমাত্র জামায়াত শিবিরের নেতা-কর্মীদের আসামী করা হয়েছে।

এ মামলার খবর সোমবার জানাজানি হলে পেকুয়ায় উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে। অনাকাংখিত ঘটনা ঘটতে পারে বলেও অনেকে আশংকা করছেন। ফলে, পেকুয়ার গুরুত্বপূর্ণ স্থানে পুলিশি টহল জোনদারের পাশাপাশি স্ট্রাইকিং ফোর্স প্রস্তত রাখা হয়েছে।

Share this post

PinIt
scroll to top