চকরিয়ায় গ্রেপ্তার হওয়া আসামি ছিনতাই : পুলিশের চার সদস্য আহত, আটক-২

police-hamla.jpg

এম.জিয়াবুল হক,চকরিয়া(৫ ডিসেম্বর) :: চকরিয়ায় পুলিশের ওপর হামলা চালিয়ে প্রতারণা মামলায় আদালতের পরোয়ানাভুক্ত গ্রেপ্তার আসামী এক বিএনপি নেতাকে ছিনিয়ে নিয়েছেন সশস্ত্র লোকজন। এ সময় তারা নারীদেরও জড়ো করে পুলিশের ওপর হামলায় ব্যবহার করে।

হামলার সময় ধারালো অস্ত্রের আঘাতে গুরুতর আহত হন পুলিশের দুই সাব ইন্সপেক্টর ও দুইজন কনষ্টেবল। আহত পুলিশ সদস্যদেরকে উপজেলা হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

বুধবার ভোররাতে উপজেলার সাহারবিল ইউনিয়নের কোরালখালী এলাকার আমিন মেম্বার পাড়ায় এ ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় তাৎক্ষণিক অভিযান চালিয়ে মামুন ও একনারীসহ দুইজনকে আটক করেছে পুলিশ।

পুলিশের ওপর হামলা চালিয়ে ছিনিয়ে নেওয়া গ্রেপ্তারী পরোয়ানাভুক্ত আসামীর নাম আনোয়ারুল আজিম প্রকাশ এরফান (৩০)। তিনি ওই এলাকার নুরুল আমিন মেম্বারের ছেলে এবং সাহারবিল ইউনিয়ন বিএনপির সদস্য।

পুলিশ ও প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, প্রতারণা মামলায় আদালতের গ্রেপ্তারী পরোয়ানামূলে আসামী আনোয়ারুল আজিম প্রকাশ এরফানকে নিজ বাড়ি থেকে আজ ভোররাতে গ্রেপ্তার করে চকরিয়া থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) আল আমিন ও মাজহারুল ইসলামের নেতৃত্বে সঙ্গিয় পুলিশ। এ সময় বিএনপির লোকজন নারীদেরও জড়ো করে পুলিশের ওপর হামলায় ব্যবহার করে তারা। ছিনিয়ে নেওয়া হয় গ্রেপ্তার আসামী ও সাহারবিল ইউনিয়ন বিএনপির সদস্য আনোয়ারুল আজিম প্রকাশ এরফানকে।

চকরিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. বখতিয়ার উদ্দিন চৌধুরী বলেন, একটি প্রতারণা মামলায় আদালতের গ্রেপ্তারী পরোয়ানা জারি ছিল সাহারবিল ইউনিয়ন বিএনপির সদস্য আনোয়ারুল আজিম প্রকাশ এরফানের বিরুদ্ধে। এই পরোয়ানা হাতে পাওয়ার পর বুধবার ভোরে অভিযান চালিয়ে তাকে গ্রেপ্তার করে থানায় নিয়ে আসার প্রস্তুতি নিচ্ছিল পুলিশ। এই অবস্থায় পুলিশের ওপর হামলা চালিয়ে ছিনিয়ে নেয় গ্রেপ্তার আনোয়ারুল আজিম প্রকাশ এরফানকে।

তিনি বলেন, হামলায় পুলিশের দুই সাব ইন্সপেক্টর ও দুই কনষ্টেবল রক্তাক্ত জখম হয়। তাদেরকে উপজেলা হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। এ ঘটনায় তাৎক্ষণিক অভিযান চালিয়ে হামলায় জড়িত বিএনপি কর্মী মামুন প্রকাশ ছুট্টু এবং একনারীকে আটক করা হয়েছে। হামলায় জড়িত অন্যদের আটকে পুলিশের অভিযান চলছে।

Share this post

PinIt
scroll to top