পেকুয়ায় আত্মহত্যার চেষ্টা থেকে গৃহবধূকে উদ্ধার

wmn-torcer.jpg

নাজিম উদ্দিন,পেকুয়া(২৬ জানুয়ারী) :: পেকুয়ায় আত্মহত্যা চেষ্টা থেকে সেতারা বেগম (৩৮) নামের এক গৃহবধূকে উদ্ধার করেছে স্থানীয়রা। এ সময় রক্তাক্ত অবস্থায় তাকে উদ্ধার করে পেকুয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে।

২২ জানুয়ারী (মঙ্গলবার) বিকেল ৫ টার দিকে উপজেলার টইটং ইউনিয়নের রমিজপাড়ায় এ ঘটনা ঘটে। সেতারা বেগম ওই এলাকার বেলাল উদ্দিনের স্ত্রী।

প্রত্যক্ষদর্শী বিধবা আনজিমা খাতুন, ৬ষ্ঠ শ্রেনীর ছাত্র তৌহিদুল ইসলাম জানায়, ওই দিন বিকেলে সেতারা বেগম স্বামীর বসতভিটায় বাড়ি নির্মাণ করতে খুটি পুতছিলেন। এ সময় মৃত পুতুন আলীর ছেলে কামাল হোসেন ও জমির হোসেন গং বাধা দেয়। এর সুত্র ধরে তারা দু’ভাই ওই নারীর সাথে বাকবিতন্ডায় জড়ায়।

এক পর্যায়ে তারা দু’ভাই এ মহিলাকে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করে। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে ওই নারী চরম অভিমানী হন। এ সময় ধারালো দা নিয়ে নিজেই মাথায় তিনটি কুপ খাই। এ সময় রক্তাক্ত অবস্থায় ওই নারী ফাঁকা জায়গায় পড়ে থাকে।

প্রত্যক্ষদর্শীরা তাকে ধরাধরি করে একটি সিএনজি যোগে পেকুয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে পৌছায়। ছাত্রী শাহানা আক্তার, স্কীম চালক আবদু সালাম, রমিজা বেগম, মিনা আক্তার জানায়, মুলত সেতারাকে লাঞ্চিত করেছিল। অপমান অসহ্য হওয়ায় ওই নারী দা নিয়ে আত্মহত্যার চেষ্টা চালায়। তবে কামাল হোসেন ও জমির হোসেন ওই সময় ওই স্থানে ছিলেন না।

গ্রামবাসী জানায়, জায়গা নিয়ে বেলাল উদ্দিন ও কামাল হোসেন গংদের বিরোধ চলছিল। তারা খালাত ভাই। নানীর সম্পত্তির ভাগ বাটোয়ারা নিয়ে এ বিরোধ। সেতারা এর আগে আরও দু’দফা আত্মহত্যার প্রচেষ্টা চালায়। একবার ভাইয়ের সাথে ঝগড়া আরেকবার স্বামীর সাথে ঝগড়ায় এ দু’দফা আত্মহত্যার চেষ্টা চালায়।

Share this post

PinIt
scroll to top