izmir escort telefonlari
porno izle sex hikaye
çorum sürücü kursu malatya reklam

পেকুয়ায় গ্রাম পুলিশের মাস্তানি

cader-village-homki.jpg

নাজিম উদ্দিন,পেকুয়া(২৬ জানুয়ারী) :: মাস্তানি দেখালো গ্রাম পুলিশ। এক পক্ষের ভাড়াটে হিসেবে ধেয়ে যায় বিরোধপূর্ন স্থানে। এ সময় বসতবাড়িতে ঢুকে রুপিত বাঁশঝাড় উজাড় করে। ধারালো দা নিয়ে একে একে কেটে ফেলে প্রচুর পরিমান মূলী বাঁশ। এক পর্যায়ে সাবাড় করে ফেলে বাঁশ বাগান।

উপজেলার বারবাকিয়া ইউনিয়নের নতুনপাড়া গ্রামে ২৬ জানুয়ারী ভোর ৫ টার দিকে এ ঘটনা ঘটে।

স্থানীয় সুত্র জানায়, সীমানা নিয়ে নতুনপাড়া এলাকায় মাহামুদের ছেলে জসিম উদ্দিন ও প্রতিবেশী মৃত নওশা মিয়ার ছেলে ইদ্রিস গংদের বিরোধ চলছিল। বারবাকিয়া ইউপির গ্রাম আদালতে বিচার চলছিল। জায়গা পরিমাপের সিদ্ধান্ত হয়েছে। ইদ্রিস গং সার্ভেয়ার নিযুক্তির পক্ষে ছিলেন। অপরদিকে জসিম উদ্দিন সেটি অবজ্ঞা করে। ঘটনার দিন ভোরে জসিম উদ্দিনের অনুগত হিসেবে বারবাকিয়ার ইউপির গ্রাম পুলিশ সাহাব উদ্দিন ইদ্রিস গংদের বসতভিটায় পৌছে।

এ সময় ধারালো দা উচিয়ে ভীতি সঞ্চার করে। এক পর্যায়ে ওই গ্রাম পুলিশ বাঁশঝাড়ে গিয়ে একাধিক মুলী বাঁশ কেটে সাবাড় করে। ইদ্রিস জানায়, ৫ নং ওয়ার্ডের গ্রাম পুলিশ সাহাব উদ্দিন মাস্তানী করেছে।

তার এ কান্ড দেখে মানুষ হতবাক। চেয়ারম্যান ও ইউপি সদস্য ওই স্থানে গিয়েছিলেন। তারা এটি গ্রাম পুলিশের মাস্তানী বলে স্বীকৃতি দেয়।

সমাজপতি নুরুল আজিম জানায়, চেয়ারম্যান একদিকে বলেছে আর গ্রাম পুলিশ কেন সেটি করল।

মনোয়ারা, আমেনা বেগমসহ গৃহবধূ জানায়, তিনি আমরা যারা মহিলারা ছিলাম এদেরকেও গালিগালাজ করে। এটি মাস্তানী।

ইউপি সদস্য সাহাব উদ্দিন জানায়, আমরা তাকে সতর্ক করেছি। চৌকিদার একপেশী এ ধরনের কাজ করতে পারে না।

Share this post

PinIt
scroll to top