২০১৯ সালেই মার্কিন প্রিডেটর ড্রোন কিনতে চায় ভারত

drone-manik-india.jpg

কক্সবাংলা ডটকম(২৭ জানুয়ারী) :: ভারতীয় নৌবাহিনী ও সেনাবাহিনী উভয়ের জন্যই জেনারেল অ্যাটমিক্স প্রিডেটর এমকিউ-৯ কিনতে চায় ভারত। উচ্চ পর্যায়ের সূত্র এফই অনলাইনকে বলেছে যে, “প্রাথমিকভাবে ভারতীয় নৌবাহিনী ২২টি ইউনিট কিনতে চেয়েছিল, কিন্তু ভারতীয় সেনাবাহিনীরও এটার ব্যাপারে আগ্রহ থাকায় সেনাবাহিনী ও নৌবাহিনী ১০টি করে এই ড্রোন কিনবে”। সূত্র জানিয়েছে, দুই দেশের সরকারই ২০১৯ সালের মধ্যে এই চুক্তি শেষ করতে চায়।

ফিনান্সিয়াল এক্সপ্রেস এর আগে এক রিপোর্টে জানিয়েছিল, ২০১৭ সালের জুনে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি যখন যুক্তরাষ্ট্র সফর করেছিলেন, তখন ক্যাটেগরি ১ ড্রোন কেনার ব্যাপারে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের সাথে তার আলোচনা হয়েছিল।

মার্কিন অ্যারোস্পেস নেতা ড. বিবেক লাল, যিনি জেনারেল অ্যাটমিক্সের স্ট্র্যাটেজিক ডেভেলপমেন্টের প্রধানও বটে, তিনি এই প্রচেষ্টার নেতৃত্ব দেন এবং যুক্তরাষ্ট্র ভারতের কাছে এই ড্রোন বিক্রি করতে রাজি হয়।

এইই-ই প্রশ জেনারেল অ্যাটমিক্স অ্যাভেঞ্জার ইউএভি কেনার ব্যাপারে ভারতীয় সেনাবাহিনীর আগ্রহ নিয়ে রিপোর্ট প্রকাশ করেছিল। ২০১৭ সালের জুনে মার্কিন প্রতিরক্ষা মন্ত্রী জেমস ম্যাটিস যখন ভারতের প্রতিরক্ষামন্ত্রী নির্মলা সীতারমনের সাথে বৈঠক করেন, তখন এই বিষয়টি আলোচনার অন্যতম ইস্যু ছিল।

অ্যাভেঞ্জার (সাবেক প্রিডেটর সি) ড্রোনটি মার্কিন বাহিনীর জন্য তৈরি করেছে জেনারেল অ্যাটমিক্স অ্যারোনটিক্যাল সিস্টেম। এটা আগের এমকিউ-১ এবং এমকিউ-৯ রিপার ড্রোনের মতো নয়। এটাতে টার্বোফ্যান ইঞ্জিন রয়েছে। এতে স্টেলথ বৈশিষ্ট্য ও অভ্যন্তরীণ অস্ত্র স্টোরেজ সিস্টেম রয়েছে।

ভারতের অনুরোধে সি গার্ডিয়ান ড্রোনগুলোও ছাড় করেছে যুক্তরাষ্ট্র। সি গার্ডিয়ান ড্রোনগুলো তৈরি করেছে মার্কিন ফার্ম জেনারেল অ্যাটমিক্স। এটা প্রিডেটর বি ড্রোনের নৌ ভার্সন। ভারতীয় বিমান বাহিনীও ১০০টি প্রিডেটর সি অ্যাভেঞ্জারের অনুরোধ জানিয়েছে, যার মূল্য ৮ বিলিয়ন ডলার।

সি গার্ডিয়ান ড্রোনের সক্ষমতার বিষয়টি বিবেচনা করলে বোঝা যায়, ভারতীয় নৌবাহিনীকে এটা বিক্রির প্রস্তাব দিয়ে যুক্তরাষ্ট্র তাদের নীতিতে বড় ধরণের পরিবর্তন আনলো।

২০১৬ সালে নৌবাহিনী ২২টি সি গার্ডিয়ানের জন্য আমেরিকান কোম্পানিটিকে চিঠি দেয়। যুক্তরাষ্ট্র খুব সীমিত কিছু দেশের কাছে সি গার্ডিয়ান বিক্রি করেছে এবং ভারত শিগগিরই সেই তালিকায় যুক্ত হতে যাচ্ছে।

ভারতকে মেজর ডিফেন্স পার্টনার (এমডিপি) ঘোষণা দিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র এবং ভারতের এমডিপি স্ট্যাটাসকে আরও সম্প্রসারণের প্রতিশ্রুতিও দিয়েছে তারা। প্রতিরক্ষা সম্পর্ককে আরও শক্তিশালী করতে এবং নিরাপত্তা সমন্বয় ও সহযোগিতার জন্য দুই দেশকে সমন্বিতভাবে কাজ চালিয়ে যেতে হবে।

Share this post

PinIt
scroll to top